জেনে রাখুন আশ্চর্যজনক ১০ টি গাজরের উপকারিতা

ত্বক ও স্বাস্থ্যের জন্য গাজরের উপকারিতা

শীতকালীন এই সবজিটি পুষ্টিমান সমৃদ্ধ সবজি। গাজর ভিন্ন ধরনের রান্নার রেসিপিতে ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া শীতের কনকনে ঠাণ্ডায় গাজরের হালুয়া বা গাজরের পায়েস খাওয়ার মজাই আলাদা। এই সবজিটি রয়েছে উচ্চমানের ভিটামিন, খনিজ, বিটা ক্যারোটিন এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। যা রান্নার পাশাপাশি ত্বক ও স্বাস্থ্যের পক্ষে উপকার। তাই আজকের নিবন্ধে ত্বক ও স্বাস্থ্যের পক্ষে আশ্চর্যজনক ১০ টি গাজরের উপকারিতা কথা বলব যা সকলের জেনে রাখা উচিত।

ত্বক ও স্বাস্থ্যের জন্য গাজরের উপকারিতা

ত্বক ও স্বাস্থ্যের জন্য গাজরের উপকারিতা

  1. দৃষ্টি শক্তি বাড়ায়ঃ

চোখের দৃষ্টি বৃদ্ধিতে গাজরের উপকারিতা অতুলনীয়। এতে উপস্থিত বিটা ক্যারোটিন যা লিভারে ভিটামিন – এ তে রূপান্তরিত হয়। এই ভিটামিন রেটিনাকে রেডোপসিনে রূপান্তরিত করে, যা রাতের দৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় একটি রক্তবর্ণ রঞ্জক পদার্থ। এটি চোখের সমস্যা সমাধান করে এবং চোখের দৃষ্টি শক্তি বাড়িয়ে তোলে।

  1. ত্বককে শুষ্কতার হাত থেকে বাঁচায়ঃ

শীতকালে একটি বড় সমস্যা হল ত্বকের শুষ্কতা। শুষ্কতার সঙ্গে ধুলোবালি জন্য আমাদের ত্বক বিবর্ণ হয়ে পড়ে। আর এই শুষ্কতার থেকে মুক্তি পথ হল গাজরের ফেস মাস্ক। গাজরের ফেস মাস্ক আপনার রুক্ষ শুষ্ক ত্বককে প্রাণবন্ত করে তুলবে। গাজরের ফেস মাস্ক বানানোর পদ্ধতি নীচে রইল –

উপকরণঃ-

  • ৩ চা চামচ গাজরের রস
  • ১ চা চামচ মিল্ক ক্রিম
  • ১ চা চামচ শসার পেস্ট

প্রণালীঃ-

  • গাজরের রস, মিল্ক ক্রিম এবং শসার পেস্ট একসঙ্গে মিশিয়ে নিন।
  • এবার এই মিশ্রণটি পুরো গলা ও মুখে লাগিয়ে নিন। ১৫ মিনিট অপেক্ষা করে হালকা উষ্ণ গরম জলে ধুয়ে ফেলুন।

এই প্যাকটি আপনার ত্বককে ড্রি- হাইড্রেট রাখবে পাশাপাশি শুষ্কতার হাত থেকে মুক্তি দেবে।

ক্যান্সার প্রতিরোধঃ

  1. ক্যান্সার প্রতিরোধঃ

গবেষণায় দেখা গেছে, যে গাজর ফুসফুসের ক্যান্সার, স্তন ক্যান্সার এবং কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে। গাজরগুলি এন্টি-কার্সিনোজেনিক বৈশিষ্ট্য ধারণ করে যা কোলন ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে বাধা দেয়।

  1. সূর্যের টান রিমুভ করেঃ

সূর্যের পোড়া ত্বকে উজ্জ্বলতা ফিরেয়ে আনতে গাজর ব্যবহার করতে পারেন। ত্বকের মৃত কোষের জন্য টান পড়ে বেশি। গাজরের ফেস প্যাক ত্বকের মৃত কোষগুলি রিমুভ করে ত্বক ব্রাইট করে।

উপকরণঃ-

  • এক টেবিল চামচ ডিমের সাদা অংশ
  • এক টেবিল চামচ দই
  • এক টেবিল চামচ গাজরের রস

প্রণালীঃ-

  • উপকরণগুলি সব একসঙ্গে মিশিয়ে একটি প্যাক বানিয়ে নিন।
  • এবার ১৫- ২০ মিনিট পর উষ্ণ গরম জলে ধুয়ে ফেলুন।

এই প্যাকটি ত্বক গ্লোয়িং করে তুলবে। ভালো ফল পেতে সপ্তাহে ২-৩ বার ট্রাই করে দেখুন।

সম্পর্কিত নিবন্ধ চেক করুন :- 

দাঁতের যত্নঃ

  1. দাঁতের যত্নঃ

ত্বকের পাশাপাশি গাজর দাঁতের জন্যও উপকারী। গাজরে উপস্থিত খনিজগুলি দাঁতের ক্ষতিকারক জীবাণুগুলির সঙ্গে লড়াই করে দাঁতের ক্ষয় প্রতিরোধ করে। তাই নিয়মিত কাঁচা গাজর খাওয়া প্রয়োজন।

  1. এন্টি-এজিং উপকারিতাঃ

গাজর ভিটামিন সি সমৃদ্ধ যা দেহের কোলোজন উৎপাদন সহায়তা করে। কোলোজন এক ধরণের প্রোটিন যা ত্বকের নমনীয়তা বজায় রাখার জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ।

  1. ময়শ্চারাইজিং রাখেঃ

গাজর রস ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রেখে ত্বক ময়শ্চারাইজিং করে রাখে। বাজারে কেমিক্যালযুক্ত ময়শ্চারাইজিং ক্রিমের পরিবর্তে গাজরের ময়শ্চারাইজিং ফেসিয়াল মাস্ক তৈরি করে নিতে পারেন। নীচে ফেসিয়াল মাস্ক বানানোর জন্য টিপস দেওয়া হল –

উপকরণঃ-

  • দুই টেবিল চামচ গাজরের রস
  • এক টেবিল চামচ মিল্ক ক্রিম
  • কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল
  • এক টেবিল চামচ মধু

প্রণালীঃ-

  • সমস্ত উপকরণ এক সঙ্গে মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে নিন।
  • ভালো করে মুখ পরিষ্কার করে এই প্যাকটি লাগিয়ে নিন।
  • এবার ১০ – ১৫ মিনিট বাদে ঠাণ্ডা জলে মুখ ধুয়ে নেবেন।

হজমশক্তি বৃদ্ধিতে সহায়কঃ

  1. হজমশক্তি বৃদ্ধিতে সহায়কঃ

গাজরগুলি ফাইবারের ভালো উৎস। যা হজম শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক।

  1. হাড় মজবুত রাখেঃ

গাজরের উপকারিতা বহুবিধ। গাজর ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ, যা বাচ্চাদের হাড় বৃদ্ধি ও মজবুত করতে সক্ষম।

স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস করেঃ

  1. স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস করেঃ

গবেষণায় দেখা যায়, যারা নিয়মিত গাজর খান তাদের স্ট্রোক হওয়ার সম্ভবনা কম থাকে। তাই স্ট্রোকের হাত থেকে বাঁচতে আজ থেকেই গাজর খাওয়া শুরু করুন।

আশা করি, ১০ টি গাজরের উপকারিতা জেনে গেলেন। এবার সুস্থ থাকার জন্য আপনার খাদ্য তালিকায় গাজর যোগ করুন।

সারকথাঃ

রোজ গাজর কাঁচা খেলে সর্বোচ্চ পুষ্টি পাওয়ার সর্বোত্তম মাধ্যম। এই জন্য সুস্বাস্থ্য থাকার জন্য ডাক্তাররা গাজরের জুস খাওয়ার পরামর্শ দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here