মেডিটেশন কি এবং কীভাবে করবেন

মেডিটেশন

মেডিটেশন

আমরা প্রায়ই এখন মেডিটেশন কথাটির সঙ্গে পরিচিত। প্রায়ই এই কথাটি শুনে থাকি। তবে কি এই মেডিটেশন জানেন কি? অনেকে মেডিটেশন বলতে শুধু প্রার্থনা করাকে ভেবে থাকে। তবে সেটি কিন্তু ভুল ধারণা। এক কথায় মেডিটেশন বলতে আমরা যেটিকে ধ্যান বলে থাকি। এই মেডিটেশনের মাধ্যমে আপনার আত্মার শান্তি মেলে। মেডিটেশনের মুখ্য উদ্দেশ্যে মানুষের মনে শান্তি প্রদান করা এবং মানুষের মধ্যে মানসিক চাপ মুক্ত করা। পাশাপাশি মানুষের মনে করুণা, ধৈর্য, শক্তি, প্রেম ইত্যাদি বজায় রাখা।

মেডিটেশন সঠিক পদ্ধতিতে বেঁচে থাকার রাস্তা। তাই মানুষের মানসিক অবসাদ থেকে বেরিয়ে আসতে এই রাস্তা বেছে নেওয়া উচিত। আজকের এই নিবন্ধে আমরা মেডিটেশন নিয়ে আলোচনা করব। এই নিবন্ধে আপনারা পারবেন মেডিটেশন কি, মেডিটেশনের সুবিধা এবং মেডিটেশন কেমন ভাবে করবেন।

আরও পড়ুনঃ হার্ট ভালো রাখতে নিয়মিত হার্টে ভালো রাখার ব্যায়াম

মেডিটেশন কি?

মেডিটেশন কি

মেডিটেশন বা ধ্যান এমন একধরণের ক্রিয়া যা কোনও ব্যক্তি তার মনকে একটি চেতনা বিশেষ অবস্থায় আনার চেষ্টা করে। মেডিটেশন লক্ষ্য উদ্দেশ্যে লাভ করা হতেও পারে বা মেডিটেশন করা নিজের মধ্যে লক্ষ্য হতে পারে। মেডিটেশন করার মাধ্যমে মনকে সান্ত্বনা দেওয়া থেকে শুরু করে শরীরে এনার্জি প্রদান করা হয়। যা আমাদের জীবনে ইতিবাচক সুখ নিয়ে আসে।

আরও পড়ুনঃ ওজন বাড়ানোর ব্যায়াম যা ওজন বৃদ্ধি করবে দ্রুত

মেডিটেশন সুবিধাঃ

মেডিটেশন সুবিধাঃ

মেডিটেশন বা ধ্যানের সুবিধাগুলি হল-

  • মানসিক চাপ এবং ডিপ্রেশন হ্রাস হয়।
  • ডায়াবেটিস এবং হাই ব্লাড প্রেসারের মতো রোগ মোকাবিলা করার জন্য সহায়তা পাওয়া যায়।
  • ধূমপান এবং নেশা করার অভ্যাস থেকে রেহাই পাওয়া যায়।
  • নেতিবাচক চিন্তা থেকে মুক্তি পান।
  • মেডিশন বা ধ্যান আমাদের মনকে শান্ত রাখে, চাপ এবং উত্তেজনা থেকে মনকে মুক্তি দেয়।
  • শারীরিক অসুস্থতা যেমন ডিপ্রেশন, অবসাদ, মানসিক রোগের থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।
  • মেমরি শক্তিশালী হয়।
  • মাথা ব্যথা থেকে রেহাই পাওয়া যায়।
  • জীবনের উদ্দেশ্যে বুঝতে সহজ হয়।
  • চিন্তা থেকে মুক্তি দেয়।
  • জান লাভ হয়।

আরও পড়ুনঃ নিয়মিত হাঁটু ব্যথার ব্যায়াম করুন এবং সুস্থ থাকুন

মেডিটেশন কীভাবে করবেন?

যদি মেডিটেশন সঠিক পদ্ধতিতে করা হয়, তাহলে আপনার জন্য খুব লাভজনক। এটি আপনার শারীরিক এবং মানসিক শান্তি তথা এবং ফিটনেস প্রদান করে। কিন্তু এটার জন্য সবচেয়ে জরুরী কথা হল যে আপনি মেডিটেশন সঠিক পদ্ধতিতে করুন। আপনি আপনার মেডিটেশন সঠিক পদ্ধতিতে যাতে করতে পারেন, তার জন্য নীচে কয়েকটি পদ্ধতি দেওয়া হল।

  1. সবার প্রথমে মেডিটেশনের জন্য উপযুক্ত স্থান বাছাই করুনঃ

সবার প্রথমে মেডিটেশনের জন্য উপযুক্ত স্থান বাছাই করুনঃ

মেডিটেশন করার জন্য আপনি প্রথমে আপনার পছন্দ অনুযায়ী একটি জায়গা পছন্দ করুন যেখানে আপনি মেডিটেশন করে শান্তি পাবেন। মেডিটেশন করার জন্য যেই জায়গাটি বাছাই করবেন সেটা যেন খুব অন্ধকার না হয় আবার খুব আলোকিত না হয়। খুব ঠাণ্ডা অথবা গরম ঘর না হয়। মেডিটেশন করার যায়গাটি শান্তিপূর্ণ হওয়া চাই।

  1. আপনি মেডিটেশন করার জন্য একটি অবস্থা বাছাই করুনঃ

আপনি আপনার সুবিধা অনুসারে মেডিটেশন করার জন্য যেকোনো অবস্থা বাছাই করতে পারেন। যেকোনো অবস্থা যেমন বসে, শুয়ে, দাঁড়িয়ে মেডিটেশন করতে পারেন। আপনি যেকোনো অবস্থায় মেডিটেশন করতে পারেন তবে আপনার জন্য এটা ভালো হবে যে আপনি যেকোনো একই অবস্থায় নিয়মিত মেডিটেশন না করে মাঝে মাঝে অবস্থা বদলানো।

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন ঘরে বসে ওজন কমানোর ব্যায়াম

  1. দাঁড়িয়ে মেডিটেশনঃ

দাঁড়িয়ে মেডিটেশনঃ

অনেকেই মনে করেন যে দাঁড়িয়ে মেডিটেশন করা যায় না, কিন্তু এটা একদম ভুল ধারণা। আমাদের পৃথিবীতে এমন অনেক মানুষ আছেন যারা কোন সমস্যার কারণে ঠিকভাবে বসতে পারেন না। অথবা দীর্ঘক্ষণ ধরে একভাবে বসে থাকতে পারে না। তাদের জন্য বসে মেডিটেশন করা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। তাই তাদের জন্য দাঁড়ানো অবস্থায় মেডিটেশন করা শ্রেষ্ঠ। দাঁড়ানো অবস্থায় মেডিটেশন করার জন্য প্রথমে সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে যান এবং হাত দুটি নমস্কার ভঙ্গিতে রাখুন।

  1. শুয়ে মেডিটেশনঃ

এই অবস্থায় মেডিটেশন করার জন্য আপনাকে এক সাইড হয়ে শুতে হবে। যদি আপনি ডান সাইড হয়ে শোন তাহলে আপনার ডান হাত আপনার মাথার নীচে রাখুন এবং বাঁ হাত মাথার নীচে রাখুন। যদি আপনার এই পজিশনে সমস্যা হয় তাহলে আপনি এর পরিবর্তে যেকোনো পজিশন করতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ যোগ ব্যায়ামের সুবিধাঃ নিয়মিত যোগাসনের সুবিধা কি কি

  1. বসে মেডিটেশনঃ

বসে মেডিটেশনঃ

বসে মেডিটেশন করার জন্য অনেক অবস্থা রয়েছে। কেউ পদ্মাসন ধ্যান করে শান্তি পায়, কেউ আবার বজ্রাসনে। তাই আপনি এই অবস্থায় যেকোনো পজিশন চয়েস করতে পারেন যেটায় আপনি স্বচ্ছন্দ বোধ করবেন। এছাড়াও আপনি আপনার হাত যেকোনো অবস্থায় রাখতে পারেন আপনার পছন্দ অনুযায়ী। তবে পুরো শরীর ব্যালেন্স রাখতে হবে।

  1. মেডিটেশনের সময় চাপ মুক্ত রাখুনঃ

আপনি মেডিটেশন শুরু করার সময় মন থেকে সমস্ত রকমের চিন্তা দূরে রাখুন। আপনার মাথায় যেসমস্ত টেনশন কাজ করছে যেমন আপনার বাড়ির কোন সমস্যা, পারিবারিক কোন চিন্তা অথবা অফিসের কোন সমস্যা এই সব চিন্তা মাথা থেকে বের করে মন শান্ত করুন।

আপনি মনে করুন এই পৃথিবীতে আপনি সবচেয়ে সুখী এবং আপনার কিছু সমস্যা নেই। হয়তো আপনার এই মনোভাব আনতে একটু সময় লাগবে। তবে এই মনোভাব এসে গেলে দেখবেন অনেকটা চিন্তা মুক্ত হবেন।

  1. মেডিটেশনের অভ্যাস চালিয়ে যানঃ

মেডিটেশনের অভ্যাস চালিয়ে যানঃ

যখন আপনি ধ্যান করবেন অথবা মেডিটেশন করার জন্য কোন পজিশন বেছে নেবেন তখন হতে পারে আপনি শুরুতে এটি করতে পারছেন না বা মনোযোগ দিতে পারছেন না। তবে এরকম হলে হাল না ছেড়ে মেডিটেশনের অভ্যাস চালিয়ে যাবেন। বার বার চেষ্টা করার পর সহজেই আপনি মন লাগাতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ ঘরোয়া পদ্ধতিতে পদ্ধতিতে আলসার চিকিৎসা

তাহলে আশা করি বুঝে গেলে মেডিটেশন কি এবং মেডিটেশন কীভাবে করবেন। মেডিটেশন করার জন্য আগে আপনার মন স্থির রাখতে হবে। তাহলে প্রথমে নিজের মন থেকে সব চিন্তা দূরে সরিয়ে শান্ত মনে মেডিটেশন করুন।

সারকথাঃ

নিজেকে সুস্থও রাখতে প্রত্যেক ব্যক্তির মেডিটেশন করা প্রয়োজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here