স্বাস্থ্যের উপর সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব

স্বাস্থ্যের উপর সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব - Harmful Health Effects of Smoking

Harmful Health Effects of Smoking In Bengali

Smoking Is Injurious To Health (ধুমাপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক) এই কথাটি আমরা প্রায়ই শুনে থাকি। ধূমপান আমাদের স্বাস্থ্যের জন্যই এতটাই ক্ষতিকারক যে মানুষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়। ধূমপান শুধুমাত্র আমাদের ফুসফুসের জন্য ক্ষতিকর নয় বরং আমাদের দেহের অন্যান্য অংশের জন্যও মারাত্মক ক্ষতিকারক। ডাক্তারদের মতে যারা সিগারেট বা বিড়ি খান না কিন্তু এগুলির সংস্পর্শে থাকে, তাদেরও অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি থাকে। আপনি কি জানেন অতিরিক্ত সিগারেট খেলে আমাদের চোখের উপর ক্ষতিকারক প্রভাব পড়ে। যেমন- চোখ লাল হয়ে যাওয়া, চোখের দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়া, চোখে জ্বালা হওয়া এই সমস্ত লক্ষণগুলি দেখা যায়। তাই আজকের এই নিবন্ধে আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তু স্বাস্থ্যের জন্য সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব।

যারা উচ্চ রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিসের রোগী, তাদের ধূমপান করা একদমই উচিত নয়, কারণ এটি রক্তে নিকোটিনের মাত্রা বাড়ায়, যা রেটিনার জন্য ক্ষতিকারক। পৃথিবীতে প্রতি বছর বড় বড় দেশে লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হছে ধূমপানের কারণে। গবেষণা করলে দেখা যাবে প্রতি 5-6 জন মানুষের মধ্যে একজনের মৃত্যুর কারণ অতিরিক্ত ধূমপান। এইচআইভি এইডস (HIV Aids) , ড্রাগ (Drug), মদ (Alcohol) এবং Smoking এর কারণে মৃত্যুর সংখ্যা দিনের পর দিন বেড়ে চলছে। বলা হয়ে থাকে সিগারেটে 600 প্রকারের রাসায়নিক উপাদান রয়েছে, যা আগুনে জ্বালানোর সঙ্গে সঙ্গে 7000 প্রকার ক্ষতিকারক পণ্যগুলিতে পরিণত হয়। এরমধ্যে 70 প্রকার বিষাক্ত রাসায়নিক ক্যান্সার রোগের কারণ।

স্বাস্থ্যের উপর সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব - Harmful Health Effects of Smoking

সূত্র :- share.upmc . com

স্বাস্থ্যের উপর সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাবHarmful Health Effects of Smoking

সকল মানুষের মধ্যে রোগ এবং অন্যান্য ধরনের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা রয়েছে, যাকে ইমিউন সিস্টেম বলা হয় । যারা সিগারেট খায়, তাদের ইমিউন সিস্টেম ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে পড়ে, যার ফলে শ্বসন তন্ত্রের সংক্রামণ (Respiratory Infection) খুব দ্রুত হয় । অন্যান্য বিভিন্ন রোগ বা আর্থ্রাইটিসের কারণ ধূমপানও হতে পারে । ধূমপান করেন এমন ব্যক্তি যারা ডায়াবেটিস টাইপ ২ রোগে আক্রান্ত, তাদের ডায়াবেটিসের একমাত্র কারণ ধূমপান বলা হয় । নীচে অতিরিক্ত Smoking এর জন্য স্বাস্থ্যের উপর স্বাস্থ্যের উপর সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাবপ্রভাবগুলি দেওয়া হল-

ফুসফুসে ক্যান্সার Lung Cancer

ফুসফুসে ক্যান্সার - Lung Cancer

সূত্র :- 3.bp.blogspot . com

Lung Cancer এর মুখ্য কারণ হল অতিরিক্ত ধূমপান। 90 শতাংশ ফুসফুস ক্যান্সারের জন্য সিগারেটকে দায়ী করা হয়। একটি গবেষণায় দেখা গেছে তামাক ধূমপান এবং ফুস্ফুসে ক্যান্সারের মধ্যে একটি সংযোগ রয়েছে । যারা সামান্য মাত্রায় ধূমপান করেন, তাদেরও ক্যান্সার হওয়ার ঝুকি থাকে । ধুমাপান ছেড়ে দিলে অথবা ধূমপান না করলে ফুসফুসে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভবনা কম থাকে।

তামাক ধূমপানকারী ব্যক্তিদের শুধু ফুসফুসেই নয় অন্যান্য অংশেও ক্যান্সার হতে পারে । যেমন- শ্বাসনালী, মুখ, ঠোঁট, গলা, পেট, মূত্রাশয়, অগ্ন্যাশয়, বৃক্ক, যকৃৎ ইত্যাদি।

হাড় দুর্বলত Weakness of Bones

হাড় দুর্বলত - Weakness of Bones

সূত্র :- conchovalleyer . com

অতিরিক্ত ধূমপান করার ফলে অস্টিওপরোসিসের (Osteoporosis) ঝুঁকি বাড়ে। এতে হাড়গুলি দুর্বল হয়ে পড়ে এবং কোন দুর্ঘটনা হলে হাড় ভেঙে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে। সর্বাধিক ধূমপানকারী বেশিরভাগ পুরুষ এবং মহিলাদের এই সমস্যায় ঝুঁকি বেশি থাকে। অল্প বয়সী যেই সমস্ত মহিলারা ধূমপান করেন, তাদের শরীরে ইস্ট্রোজেনের মাত্রা কম হয়ে যায়। যার ফলে অল্প বয়সেই Menopause হয়, যা অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি বাড়ায়।

ম্যাকুলার ডিজেনারেশন Macular degeneration

ম্যাকুলার ডিজেনারেশন - Macular degeneration

সূত্র :- observer . news

অনেক গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা ধূমপান করেন, তাদের অন্যদের তুলনায় বয়স ভিত্তিক ম্যাকুলার ডিজেনারেশন (Macular degeneration) এর ঝুঁকি দ্বিগুণ।

হৃদয় এবং রক্ত বাহিকা থেকে রোগ Disease From the heart and blood vessels

হৃদয় এবং রক্ত বাহিকা থেকে রোগ - Disease From the heart and blood vessels

ধূমপান এত বিপজ্জনক যে এটি রক্তক্ষয়ীকে ধীরে ধীরে ধ্বংস করে দেয় এবং হৃদয়কে সম্পূর্ণ ভাবে দুর্বল করে দেয় । হৃদয় ও রক্তবাহী বাহকগুলিতে বিভিন্ন ধরনের রোগ সৃষ্টি হয়।

শ্বসনের সমস্যাRespiratory Problems

শ্বসনের সমস্যা - Respiratory Problems

ধূমপান করার ফলে শ্বসনে গুরুতর সমস্যা দেখা দিতে পারে। যখন আপনি smoke করছেন, তখন আপনি এমন কিছু পদার্থ গ্রহণ করছেন যা ফুসফুসকে ক্ষতি করেছে, যা infections বাড়ায়, chronic nonreversible ফুসফুসের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয় । এছাড়াও ধূমপান বিদ্যমান কার্বন-মনোক্সাইড যা রক্তে মিশিয়ে যায়, যার ফলে শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়।

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে Increases the Risk of Diabetes

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে - Increases the Risk of Diabetes

সূত্র :- ayurclinic . com . au

ধূমপান গ্লুকোজ বিপাককে নষ্ট করে দেয়, যা type 2 diabetes ( ডায়াবেটিস) হতে পারে। এছাড়াও এটি ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয় । ২০১২ সালে প্রকাশিত আরেকটি গবেষণায় দেখা যায়, যেসমস্ত ডায়াবেটিস রোগীরা ধূমপান করেন তাদের ডায়াবেটিস কমার সম্ভবনা কম থাকে । পাশাপাশি গর্ভাবস্থায় যেসমস্ত মহিলারা ধূমপান করেন, তাদের 80 % ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভবনা থাকে । ডায়াবেটিস একটি মারাত্মক রোগ, তাই সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে মুক্তি পেতে সিগারেট খাওয়া ছেড়ে দিতে হবে।

সুপারিশ নিবন্ধন :-

ধূমপান চোখের সমস্যা সৃষ্টি করে Smoking Causes Eye Problems

ধূমপান চোখের সমস্যা সৃষ্টি করে - Smoking Causes Eye Problems

সূত্র :- sa1s3optim.patientpop . com

ফুসফুসের পাশাপাশি সিগারেট ক্ষতি করে দৃষ্টিশক্তিরও । ধূমপান করলে যেমন ম্যাকুলার ডিজেনারেশন (Macular degeneration) এর ঝুঁকি বাড়ে ঠিক তেমনি দৃষ্টি সংক্রান্ত সমস্যা সৃষ্টি করে । যেসমস্ত লোকজন ধূমপান করেন তাদের কারণেই আশেপাশে মানুষের সমস্যার সৃষ্টি হয় ।
তামাকে উপস্থিত নিকোটিন retina and optic নার্ভের কোষগুলির উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলে । রেটিনা এবং অপটিক স্নায়ু চোখের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘমেয়াদী ধূমপান চোখের অপ্রত্যাশিত ক্ষতি করতে পারে।

ধূমপান বন্ধ করার স্বাস্থ্য উপকারিতা Health Benefits of Stopping Smoking

ধূমপান বন্ধ করার স্বাস্থ্য উপকারিতা – Health Benefits of Stopping Smoking

• বেশিরভাগ সময় দেখা যায়, যারা সিগারেট ধূমপান করেন তাদের শ্বাস নিতে সমস্যা হয়। সিগারেট খাওয়া বন্ধ করলে সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে রেহাই পাবেন।
• তাই সিগারেট খাওয়া বন্ধ করে দিলে তাদের শ্বাস নিতে অসুবিধা হবে ।
• সিগারেট ত্যাগ করলে ক্যান্সার থেকে দূরে থাকবেন ।
• ধূমপান করা ছেড়ে দিলে শরীরে শক্তি বৃদ্ধি হয় ।
• মন থেকে চিন্তা দূরে হবে।
• অনেকসময় অতিরিক্ত ধূমপান করার ফলে খাবারে স্বাদ পাওয়া যায় না । ধূমপান বন্ধ করলে স্বাদ ফিরে আসে ।
• বেশি ধূমপান করলে চামড়া রুক্ষ এবং কালো হয়ে যায়, সিগারেট ছেড়ে দিলে সুন্দর চেহারা ফিরে আসে ।
• মৃত্যু থেকে বাঁচতে পারেন ।

ধূমপান ছাড়ব কি করে (How to Quit Smoking)?

ধূমপান ছাড়ব কি করে How to Quit Smoking

সূত্র :- quitterscircle . com

ধূমপান এক গভীর নেশার মতো । তবে, আপনি যদি দৃঢ় সিধান্ত নেন যে এই নেশা থেকে চিরতরে দূরে থাকবেন এবং নিজেকে সুস্থ রাখবেন । তাহলে আপনি সহজ কিছু কাজ করে এই নেশা আপনার জীবন থেকে দূরে সরিয়ে দিতে পারেন । তাই এখানে সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব এড়াতে সিগারেট ছাড়ার কিছু টিপস রইল-

  • যারা ধূমপান করে, তাদের শরীরের জন্য সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব কতটা তা কিন্তু তাদের অজানা নয়। তারা জানে যে এর ফলে হৃদরোগ, ভিন্ন ধরনের রোগ এমনকি মারাত্মক রোগ ক্যান্সারও হতে পারে । তাই আপনি জেনে থাকলেও প্রথমে আপনাকে সিগারেট সম্পর্কিত স্বাস্থ্য সমস্যা সম্পর্কে তথ্য জানতে হবে। আর আপনার এটাও জানা দরকার যে তামাক খাওয়ার কারণে প্রতিদিন ৪০ লাখ মানুষ মারা যায় । জানার পর নিজেকে জিজ্ঞেস করুন আপনি কোনটা চান মৃত্যু না সুস্থ জীবন। এবং এরপরে সিধান্ত নিন সিগারেট ছাড়ার ।
  • আপনি পরিবার এবং বন্ধু-বান্ধবকে জানান যে আপনি ধূমপান করা ছেড়ে দিয়েছেন এবং আর কোনোদিন এই খারাপ অভ্যাসটি গ্রহণ করবেন না। একবার, যদি আপনি সমস্ত লোককে বলেন যে আপনি সিগারেট খাওয়া বন্ধ করেছেন, তাহলে পরের বার আপনি এটি করতে পারবেন না, তখন পরিস্থিতি আপনার পক্ষে বেশ বিব্রতকর হতে পারে। এই বিব্রতকরতা আপনাকে সিগারেট থেকে দূরে রাখতে সহায়তা করবে।
  • হঠাৎ সিগারেট ছেড়ে দেওয়া ভালো উপায় মোটেই নয়, সিগারেট ছাড়তে হবে আস্তে আস্তে। কারণ যদি আপনি হঠাৎ করে সিগারেট খাওয়া ছেড়ে দেন, তাহলে আপনি নিজেকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবেন না । নিজেকে নিয়ন্ত্রণে না আনতে পারলে পুনরায় আপনি সিগারেট খাওয়া শুরু করবেন । তাই আপনি যদি দিনে 5– 6 টি সিগারেট খান সেটা কমিয়ে 2 -3 টে করুন । এবং ধীরে ধীরে কমাতে কমাতে সিগারেট খাওয়া একেবারে ছেড়ে দিন । পরিবর্তে যখনই ধূমপান করতে ইচ্ছা করবে চুইংগাম চিবান। এইভাবে ধীরে ধীরে দেখবেন আপনি নিজেই সিগারেট খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন ।
  • গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, নিকোটিন বিকল্প বেছে নিলে আপনার তামাক ছেড়ে দেওয়ার আশা দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। যখনই আপনার সিগারেট খাওয়ার ইচ্ছা হবে, তখন এই বিকল্পটি আপনি বেছে নিতে পারেন। সিগারেট ছাড়ার ভালো বিকল্প হল নিকোটিন এবং চুইংগাম। এই দুটি দামও খুব বেশি না আবার স্বাস্থ্যের পক্ষে খুব একটা ক্ষতিকারকও নয়।
  • আজকাল সিগারেট ধূমপান বাড়লেও সিগারেট খাওয়া চিরতরে বন্ধ করে দিয়েছে এমন মানুষেরও অভাব নেই । এমন কোন জিনিস নেই যা মানুষ চাইলে করতে পারে না। ঠিক তেমনি আপনি যদি মন থেকে বিশ্বাস করেন তাহলে আপনি এই নেশা অবশ্যই ত্যাগ করতে পারবেন।

সারকথাঃ

একবার যদি আপনি সিধান্ত নিতে পারেন যে আপনি সিগারেটের ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখবেন, তাহলে আপনি এই নেশা থেকে ঠিক বের হয়ে আসতে পারবেন। একবার এগিয়ে আসলে আপনার জন্য এটি আরও সহজ হয়ে যাবে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রঃ সিগারেট খেলে কি ক্ষতি হবে?

উঃ সিগারেট খেলে ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগ হতে পারে।

প্রঃ সিগারেট কম খেলে কোন ক্ষতি হবে কি?

উঃ সিগারেট একদম না খাওয়াই উপকার। কম খেলে স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ।

প্রঃ নিকোটিন খেলে কি সিগারেট খাওয়া সত্যিই বন্ধ করা যায়?

উঃ নিকোটিন এমন একটি জিনিস, যা সিগারেট খাওয়ার অভ্যাস কমিয়ে দেয়।

প্রঃ ডায়াবেটিস রোগীদের সিগারেট খেলে কি হয়?

উঃ ডায়াবেটিস রোগীদের সিগারেট খাওয়া একদমই উচিত না। সিগারেট খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে আনা অসম্ভব।

প্রঃ সিগারেট খাওয়া কীভাবে কমানো যাবে?

উঃ সিগারেট খাওয়া একেবারে ছেড়ে দেবেন না, পরিবর্তে ধীরে ধীরে সিগারেট খাওয়া কমিয়ে দেবেন। এবং সিগারেট খেতে যখনই ইচ্ছা করবে, তখন সিগারেটের পরিবর্তে চুইংগাম অথবা নিকোটিন খেতে পারেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here