কাঠ বাদামঃ কাঠ মাদামের উপকারিতা ও গুণাগুণ

কাঠ বাদাম কি

বাদাম কমবেশি সবাই খেতে ভালোবাসে। রান্নার স্বাদ বাড়াতে এছাড়াও কেক, পেস্ট্রি তৈরিতে বাদাম ব্যবহার করা হয়। এই আকারে ছোটো জিনিসটি পুষ্টিগুণেও যে ভরপুর সে বলার আর অপেক্ষা রাখে না। বাদাম শুধুমাত্র খাদ্য তালিকায় নয় এটির উপস্থিতি রূপচর্চাতেও বিদ্যমান। বাদাম অনেক ধরণের হয়ে থাকে। কিন্তু আজ আমরা আলোচনা করব কাঠ বাদাম সম্পর্কে। বিশ্বের জনপ্রিয় বাদাম গাছগুলির মধ্যে একটি কাঠ বাদাম। এই বাদামটি প্রচুর পরিমাণে নিউট্রিশনে ভরপুর। আসুন জেনে নিই কাঠ বাদাম কি এবং এর উপকারিতা ও গুণাগুণ ।

কাঠ বাদাম কি

কাঠ বাদাম কি?

প্রাচীনকালে তিন হাজার বছর আগে কাঠবাদাম ফল হিসাবে খ্যাতি ছিল। কাঠবাদামের ফল দেখতে প্রায় অনেকটা গোলাকার এবং কাঠের মতো শক্ত খোলসের আবরণ দিয়ে ঢাকা। খোলসের অভ্যন্তরে থাকে বাদামের খাবারের অংশটি। প্রতি ১০০ গ্রাম বাদামে রয়েছে ১৬১ ক্যালোরি, ৫. ৯ গ্রাম প্রোটিন, ১৩. ৮ গ্রাম ফ্যাট।
কাঠ বাদাম একটি সুস্বাদু ও পুষ্টিকর খাবার। এতে উপস্থিত জিঙ্ক, ফলিক অ্যাসিড এবং প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে, ওজন হ্রাস করতে এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে ।

কাঠ মাদামের উপকারিতা ও গুণাগুণ

হার্ট ভালো রাখেঃ-

হার্ট ভালো রাখেঃ

এফ.ডি.এ অনুসারে, নিয়মিত ১.৫ গ্রাম ওজনের কাঠ বাদাম খেলে হার্ট ভালো থাকে। পুষ্টি ভরপুর কাঠ বাদাম হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে। এই বাদামগুলি ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ, যা হার্ট অ্যাটাক এবং উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধ করতে সক্ষম।
২০১৫ সালে আমেরিকান হার্ট এসোসিয়েশন গবেষণায় দেখা যায়, নিয়মিত খাবারের তালিকায় এই বাদাম থাকলে, এলডিএল কোলেস্টেরলের মাত্রা এবং ওজন বৃদ্ধির ঝুঁকি হ্রাস পায় ।

সুপারিশ নিবন্ধন :- 

ওজন নিয়ন্ত্রণঃ-

কাঠ বাদাম স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখার জন্য উপকারী। প্রোটিন, ফাইবার এবং ফ্যাট সমৃদ্ধ এই খাবারটি আপনার খিদে সন্তুষ্ট করতে সক্ষম। বাদামে রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম, যা রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে এবং যা অতিরিক্ত খুদা হ্রাস করার চাবিকাঠি।
কাঠ বাদাম বডির কোলেস্টেরল শোষণ বন্ধ করতে সক্ষম এবং প্রচুর ওজন হ্রাস করতে কার্যকারী। কারণ বাদামগুলি স্বাভাবিক ভাবেই উচ্চ ক্যালোরি ।

ক্যান্সার প্রতিরোধঃ-

ক্যান্সার প্রতিরোধঃ

কাঠ বাদামে রয়েছে বিশেষ ধরণের অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। যা ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে। গবেষকরা মনে করছেন, চীনা বাদাম, আখরোট এবং কাঠ বাদাম স্তন ক্যান্সারের সুরক্ষা কবজ ।

গুরুত্বপূর্ণ নোটসঃ-
কাঠ বাদামে অ্যালার্জি হওয়ার সম্ভবনা বেশি। অ্যালার্জি আক্রান্ত ব্যক্তিদের না খাওয়াই ভালো ।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করেঃ-

কাঠ বাদাম এক ধরণের আঁশ রয়েছে, যা কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করে ।

গুরুত্বপূর্ণ নোটসঃ-
অত্যাধিক পরিমাণে খেলে আবার অন্য সমস্যা হতে পারে ।

গর্ভস্থ শিশুর জন্মকালীন সমস্যা হ্রাসঃ-

গর্ভস্থ শিশুর জন্মকালীন সমস্যা হ্রাসঃ

কাঠবাদাম ফলিক অ্যাসিড এবং ভিটামিন বি। যা গর্ভস্থ শিশুদের জন্মকালীন সমস্যা হওয়ার সম্ভবনা কম। তাই গর্ভবতী মায়েদের নিয়মিত কাঠ বাদাম খাওয়া উচিত ।

অন্যান্য স্বাস্থ্যের উপকারিতাঃ-

কাঠ বাদামে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার। যা গ্যাস্ট্রিক সমস্যা দূরে রাখে পাশাপাশি ডায়াবেটিসের সঙ্গে লড়াই করার ক্ষমতা রাখে। প্রাইবায়োটিকগুলি অ-পচনশীল খাদ্য পদার্থ, যা অভ্যন্তরীণ এলাকা ভালো ব্যাকটেরিয়া হিসাবে খাদ্য সরবরাহ করে এবং স্বাস্থ্যকর ভারসাম্য বজায় রাখতে সহায়তা করে ।

তাহলে দেখলেন তো কাঠ বাদাম খাওয়া স্বাস্থ্যের পক্ষে কতটা জরুরী । তাহলে নিয়মিত খাবারের তালিকায় নিউট্রিশনে ভরপুর কাঠ বাদাম আজ থেকেই যোগ করুন।

সারকথাঃ

কাঠ বাদামে রয়েছে ভিতামিন ”সি” যা ত্বক সুন্দর রাখতে অতুলনীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here