জানলে অবাক হবেন ঘরোয়া টোটকায় খুশকি দূর করার উপায়

খুশকি কি

খুশকি সমস্যা প্রতিটি মানুষের লাইফে একটি সাধারন সমস্যা। বিশেষত শীতকালে কম বেশি সবাই এই সমস্যার মুখোমুখি হন। যার ফলে অতিরিক্ত চুল পড়ার সমস্যায় ভুগতে হয়। পাশাপাশি ত্বকের বারোটা বাজে। মাথায় রোমকূপে ময়লা জমে খুশকি হয়। এই সমস্যা নিয়ন্ত্রণে আনা অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। সপ্তাহে ৩-৪ বার শ্যাম্পু করার পরেও এই সমস্যা থেকে রেহাই মেলে না। বড় চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায় এই খুশকি। তাই আপনাদের চিন্তায় একটু লাগাম দিতে হাজির কিছু টোটকা নিয়ে। ঘরে বসেই কিছু পদ্ধতির মাধ্যমে আপনি স্ক্যাল্পে থেকে চিরতরে খুশকি দূর করতে পারেন আর তার জন্য আপনাকে করতে হবে একটু পরিশ্রম। আসুন দেখে নিন ঘরোয়া পদ্ধতিতে খুশকি দূর করার উপায় –

খুশকি কি

সূত্র :- naturalenergyhub . com

খুশকি কি?

মেলাসেজিয়া নামক ছত্রাক স্ক্যাল্পে বৃদ্ধি পায়, তখন স্ক্যাল্পে খুশকির প্রবণতা বাড়ে। স্ক্যাল্পে ময়লা জমার ফলে খুশকি সহজে রিমুভ হতে চায় না।
সাধারণত দুই ধরনের খুশকি দেখা যায়। একরকম খুশকি ড্রাই স্ক্যাল্পে জন্য হয়ে থাকে এবং আরেক ধরনের খুশকি অয়েলি স্ক্যাল্পে জন্য হয়ে থাকে।

খুশকি দূর করার উপায়

অল্প কিছু উপকরণ দিয়ে ঘরোয়া পদ্ধতিতে খুশকি সমস্যা থেকে মুক্তি উপায় খুঁজে পাওয়া যায়। ঘরোয়া পদ্ধতিতে খুশকি দূর করার উপায় গুলি হল –

লেবুর রসঃ

লেবুর রসঃ

সূত্র :- edisoninst . com

আমরা সকলেই জেনে থাকি লেবুর রস খুশকি রিমুভ করতে উপকারি। কিন্তু কিছুদিন অ্যাপ্লাই করার পর আবার খুশকি ফিরে আসে। যার দরুন আমরা হাল ছেড়ে দিই। লেবুর রসে সত্যিই খুশকি কমে যায় কিন্তু এটি ব্যবহার করার পদ্ধতি রয়েছে। তাই হাল না ছেড়ে সঠিক পদ্ধতিতে অ্যাপ্লাই করুন আজই। তার জন্য আপনাকে যা করতে হবে-

একটি অর্ধেক লেবুর রস বের করে চুলের গোড়ায় মেখে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন।
এবার স্নানের সময় জলের মধ্যে একটি লেবুর রস মিশিয়ে নিন। মাথা পরিষ্কার করার সময় এই মিশ্রিত জল দিয়ে স্ক্যাল্প পরিষ্কার করবেন। ১০-১৫ দিন নিয়মিত পদ্ধতিটি অনুকরণ করলে আশা করি, খুশকির সমস্যায় রেহাই পাবেন।

নিম ও অলিভ অয়েলঃ

নিম ত্বকের পক্ষে পাশাপাশি চুলেরও যত্ন নয়। খুশকি দূর করার উপায় এটি অন্যতম উপাদান। নিম, সঙ্গে অলিভ অয়েল স্ক্যাল্পের খুশকি চিরতরে দূর করে। তার জন্য করনীয় বিষয়টি হল –

পদ্ধতি ১ /- ৪-৫ টি শুকনো নিম পাতার গুঁড়ো করে ৪ চা চামচ অলিভ অয়েলে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। পেস্টটি স্ক্যাল্পে অ্যাপ্লাই করে ১ ঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু করে কন্ডিশনার লাগিয়ে নিন।
পদ্ধতি২ /- নিমপাতা আধ ঘণ্টা সেদ্ধ করে পেস্ট বানিয়ে নিন। এবার পেস্টটি স্ক্যাল্পে ৩০ মিনিট লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন।

সারকথাঃ
নিমপাতায় অ্যান্টি ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা খুশকির চিকিৎসায় প্রয়োগ করা হয়।

ভিনিগারঃ

আপেল সাইডার ভিনিগার স্ক্যাল্পে জীবাণু সঙ্গে লড়াই করে এবং খুশকির চিকিৎসায় সহায়তা করে।

১/২ কাপ আপেল সাইডার ভিনিগার নিয়ে একটি কলা চটকে ভালো করে পেস্ট করে নিন। এবার মিশ্রণটি চুলে প্রয়োগ করুন। পাশাপাশি মাথার ত্বকে মাসাজ করুন কিছুক্ষণ। ১৫-২০ মিনিট রেখে ঠাণ্ডা জলে চুল ধুয়ে নিন।

সারকথাঃ
কলায় উপস্থিত ভিটামিন বি, যা চুলের ভরপুরপুষ্টি যোগায় ।

কমলালেবুর খোসাঃ

কমলালেবুর খোসাঃ

খুশকি দূর করার উপায় নিবন্ধটিতে আরও একটি ম্যাজিক টোটকা হল কমলালেবুর খোসা। কমলালেবুর খোসায় অ্যাসিডযুক্ত উপাদান রয়েছে যা স্ক্যাল্পের অতিরিক্ত অয়েল দূর করে পাশাপাশি খুশকির প্রবণতা রোধ করে। বাড়িতে কমলালেবুর খোসার হেয়ার প্যাক বানিয়ে নিতে পারেন। তার জন্য আপনাকে করতে হবে –

কয়েকটি কমলালেবুর খোসা ও ৪-৫ চা চামচ লেবুর রস ব্লেন্ড করে একটি হেয়ার প্যাক বানিয়ে নিন।
প্যাকটি স্ক্যাল্পে লাগিয়ে মিনিট ৩০ বাদে শ্যাম্পু করে নেবেন।

দই ও লেবুর রসঃ

দই চুলের পুষ্টি জোগায় পাশাপাশি খুশকি নির্মূল করতে এটি অপরিহার্য উপাদান।

১ কাপ দইয়ে অর্ধেক লেবুর রস মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি স্ক্যাল্পে লাগিয়ে রাখুন। ১০ থেকে ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। শ্যাম্পু করতে ভুলবেন না।

খুশকি দূর করার উপায় নিবন্ধে থাকল অতিরিক্ত টোটকা –

নিয়মিত স্ক্যাল্প পরিষ্কার রাখুন।
রোদে অনেকক্ষণ ধরে চুল খুলে রাখবেন না।
নিয়মিত চুল আঁচড়ান।
রসুন ও পেঁয়াজের রস খুশকি প্রতিরোধ করে।
কেমিক্যালযুক্ত প্রোডাক্ট এড়িয়ে চলুন।
চুল অয়েলি হতে দেবেন না।
সপ্তাহে ২ – ৩ বার শ্যাম্পু করবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here