আপনার জানা উচিত থাইরয়েডে কি খাওয়া বারণ

থাইরয়েডে কি খাওয়া বারণ

থাইরয়েড শব্দটা আজকাল বেশি পরিচিত। ছোট থেকে বড় কেউই এই সমস্যা থেকে বাদ পরে না। সাধারণত আয়োডিনের অভাবে এই রোগটি হয়ে থাকে। পুরুষদের তুলানায় বেশিরভাগ মহিলারা থাইরয়েডের সমস্যায় ভোগেন। থাইরয়েড হল ঘাড়ের সামনে ছোট প্রজাপতির আকারে একটি গ্রন্থি। যা হরমোন নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি মেটাবলিক প্রক্রিয়াকে সচল রাখে। ক্লান্তি, আলসেমি, ঘুম ঘুম ভাব, ত্বক খসখসে হয়ে যাওয়া, ক্ষুধা নষ্ট হওয়া, পা ফুলে যাওয়া, মোটা হয়ে যাওয়া, চুল পড়া, খিটখিটে হয়ে যাওয়া, ব্লাড প্রেসার বেড়ে যাওয়া, পিরিয়ডের সমস্যা হওয়া ইত্যাদি থাইরয়েডয়ের লক্ষণ।

থাইরয়েড কমার একমাত্র পথ হল ঔষধ। কিন্তু কিছু খাবার আছে যেগুলো এই সমস্যার মাত্রা আরও বাড়িয়ে তোলে। যার ফলে নিয়ন্ত্রণে আনা মুশকিল হয়ে দাঁড়ায়। এই সমস্ত খাবারগুলি আমরা এড়িয়ে চললে থাইরয়েডের সমস্যা কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব। কিন্তু থাইরয়েডে কি খাওয়া বারণ জানেন কি ? তাই আজ আমরা এই নিবন্ধটিতে আলোচনা করব থাইরয়েড সমস্যায় কোন খাবারগুলি খাওয়া একদম উচিত না।

থাইরয়েডে কি খাওয়া বারণ

থাইরয়েডে কি খাওয়া বারণ

  1. মিষ্টিযুক্ত খাবারঃ-

যারা থাইরয়েডের সমস্যায় ভুগছেন তাদের মিষ্টিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলতে জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। বাইরের আইসক্রিম, কুকি, বাদাম, চিনিযুক্ত খাবার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

দুগ্ধজাত খাবারঃ

  1. দুগ্ধজাত খাবারঃ

দুধ জাতীয় খাবারগুলি হল দুগ্ধজাত খাবার। দুগ্ধজাত জাতীয় খাবার থাইরয়েডের মাত্রা বাড়িয়ে তোলে। থাইরয়েডে আক্রান্ত রোগীদের দুগ্ধজাত খাবার থেকে দূরে থাকাই ভালো। যেসমস্ত খাবারে দুগ্ধ রয়েছে সেগুলি হল-

  • দুধ
  • পনির
  • চিজ
  • মাখন
  • ক্রিম

সম্পর্কিত নিবন্ধ চেক করুন :- 

  1. সয়া জাতীয় খাবারঃ

থাইরয়েড রোগীদের ডায়েট চার্ট থেকে সয়া জাতীয় খাবার একবারেই বাদ দেওয়া উচিত। সয়া জাতীয় খাবারগুলি দেহের হরমোনের ভারসাম্য বজায় রাখতে বাঁধা দেয় গবেষণায় দেখা গেছে, সয়া জাতীয় খাবার খাওয়ার ফলে দেহের একই হরমোন পরিবর্তিত হয়েছে। তাই থাইরয়েড আক্রান্ত রোগীদের এই জাতীয় খাবার খেলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি রয়েছে। সয়া জাতীয় খাবারগুলি হল –

  • টফু
  • সয়াদুধ
  • সয়া সস
  • সয়াবিনের
  • উদ্ভিজ্জ তেল ( সয়াবিন তেল )

ফ্যাট জাতীয় খাবারঃ

  1. ফ্যাট জাতীয় খাবারঃ

থাইরয়েডে কি খাওয়া বারণ আলোচনায় ফ্যাট জাতীয় খাবারের কথা এড়িয়ে যাওয়া যায় না। ইউনিভার্সিটি মেডিক্যাল সেন্টার এর মতে ফ্যাট জাতীয় খাবার দেহের ইনফ্লামেশন বাড়িয়ে তোলে। থাইরয়েড রোগীদের খাদ্য তালিকায় ফ্যাট জাতীয় খাদ্য তাদের ওজন আরও বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। তাই এই সমস্ত খাবার একদমই না। ফ্যাট জাতীয় খাবারের তালিকাগুলি হল –

  • চর্বিযুক্ত রেড মিট
  • দুধ
  • বাদাম
  • প্রোসেসেড খাবার
  1. রিচ গ্রেইনঃ

রিচ গ্রেইন সমৃদ্ধ ময়দা জাতীয় খাবার। এতে উচ্চ গ্লাইসেমিক উপাদান আছে যা রক্তে হরমোন লেভেলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। তাই থাইরয়েডে রোগীদের ডায়েট চার্ট রিচ গ্রেইন জাতীয় খাবার না রাখাই ভালো।

কফিঃ

  1. কফিঃ

অধিকাংশ সময় দেখা যায় অনেকেই কফির সঙ্গে থাইরয়েড ঔষধ খেয়ে থাকে। এতে রক্তে থাইরয়েডের স্তর অনিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়ে। তাই এটি এড়িয়ে চলাই শ্রেষ্ঠ।

থাইরয়েডে কি খাওয়া বারণ নিবন্ধে এই খাবারগুলি এড়িয়ে চললে আশা করি, আপনি থাইরয়েডের সমস্যা থেকে কিছুটা মুক্তি পাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here