লবণের উপকারিতা ও অপকারিতা জেনে রাখুন

লবণের উপকারিতা

লবণ রান্নার সুপরিচিত একটি উপাদান। খাবার পাতে হোক বা রান্নায় লবণ খাবারের স্বাদ বদলে দেয়। এটি কাঁচা খেলে যেমন অপকার ঠিক তেমনি এটি একদম না খেলেও ক্ষতি। লবণ খাওয়ার উপকার ও অপকার দুটিই রয়েছে। লিভার, কিডনি, হার্টের মতো শরীরের কিছু গুরুত্বপূর্ণ অংশের কার্যকালাপ লবণের উপর নির্ভর করে। তাই আপনাদের জন্য আজ আমি এই প্রবন্ধে লবণের উপকারিতা ও অপকারিতা নিয়ে আলোচনা করব। আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক লবণের ভালো ও মন্দ দিক –

লবণের উপকারিতা

লবণের উপকারিতা

  1. ওজন কমায়ঃ

আপনি কি খুব মোটা ? আপনার ওজন হ্রাস করতে চান। তাহলে অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে স্বাস্থ্যবান রাখতে লবন একটি শ্রেষ্ঠ উপাদান হতে পারে। ওজন অতিরিক্ত হলে রোগ ব্যাধি বেশি হওয়ার সম্ভবনা থাকে। ওজন হ্রাস করা লবণের উপকারিতা এর মধ্যে অন্যতম।

  1. লো ব্লাড প্রেসার হাই করতেঃ

লবণ ব্লাড প্রেসার হাই করতে উপযোগী। তাই যাদের ব্লাড প্রেসার কম, তারা খাবার পাতে এক চিমটে লবণ খেতে পারেন।

নোটসঃ

মাত্রাতিরিক্ত খাওয়া কিছুই ভালো না। তাই পরিমাণ মতো খাওয়ার অভ্যাস করুন।

বডির স্ক্রাবঃ

  1. বডির স্ক্রাবঃ

ত্বকের মরা কোষ দূর করে ত্বককে কোমল ও মসৃণ করে তুলতে লবণের উপকারিতা ভূমিকা অপরিহার্য। লবণ বডি স্ক্রাব হিসাবে খুব ভালো একটি উপাদান।

ব্যবহারের প্রণালীঃ

পরিমাণ মতো লবণ, অ্যালোভেরা জেল এবং নারকেল তেল এবং কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে বডি স্ক্রাব বানিয়ে নিন। এবার ত্বকে স্নানের আগে ধীরে ধীরে মাসাজ করলে চামড়ার মরা কোষগুলি উঠে যাবে।

  1. মুখের ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে এবং মাড়ির ব্যথা উপশমঃ

লবণ মুখের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া সঙ্গে লড়াই করতে পারে। নিয়মিত লবণ জলের গার্গল করলে মুখের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস হয় এবং মাড়ির ব্যথা , দাঁতের ব্যথা উপশম হয়।

মস্তিষ্ক সক্রিয় রাখেঃ

  1. মস্তিষ্ক সক্রিয় রাখেঃ

লবণে রয়েছে সোডিয়াম যা মস্তিষ্ক সক্রিয় রাখতে সাহায্য করে। সোডিয়াম শরীরের জল প্রবাহকে নিয়ন্ত্রণ করে, যা স্নায়ুতন্ত্রকে সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে। সোডিয়াম আমাদের দেহের গুরুত্বপূর্ণ ইলেক্ট্রোলাইট। শরীরে সোডিয়ামের অভাব থাকলে মানুষ ভুল বকতে থাকে।

  1. লবণ খাবার হজম করতে সহায়তা করেঃ

খাবার হজম করতে সাধারণত হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড প্রয়োজন হয়। আর এই অ্যাসিড ক্লোরিন এবং হাইড্রোজেন উপাদানের সমন্বয়ে উৎপন্ন হয়। এই উপাদান দুটি লবণে উপস্থিত।

সম্পর্কিত নিবন্ধ চেক করুন :- 

লবণের অপকারিতাঃ

লবণের অপকারিতাঃ

  1. শরীর ডিহাইড্রেশন রাখেঃ

শরীরকে হাইড্রেট রাখা খুব জরুরী। কিন্তু খবার পাতে অতিরিক্ত পরিমাণ লবণ শরীরকে ডিহাইড্রেশন করে তোলে। তাই আপনার খাদ্য থেকে এই উপাদানটি অপসারণ করা ভালো।

  1. উচ্চ রক্তচাপঃ

অতিরিক্ত পরিমাণ লবণ খাওয়ার ফলে রক্ত চাপ বেড়ে যেতে পারে। ব্লাড প্রেসার রোগীদের লবণ না খাওয়াই উত্তম।

ওজন হ্রাসঃ

  1. ওজন হ্রাসঃ

খাবার পাতে লবণ দ্রুত চর্বি হ্রাস করতে সহায়ক। তাই অতিরিক্ত লবণ খেলে ওজন আরও কমে যেতে পারে। তাই যাদের ওজন কম তাদের লবণ না খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

  1. হাড়ের ক্ষতি হতে পারেঃ

অতিরিক্ত লবণ গ্রহণ করলে হাড় থেকে ক্যালসিয়াম ক্ষয় হতে পারে। যা অস্টিওপরোসিসের সমস্যা হতে পারে। যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক। তাই লবণ খাওয়া পরিত্যাগ করলে আপনার দীর্ঘায়ু হতে পারে। যাদের হার্টের অসুখ রয়েছে বিশেষত বয়স্কদের লবণ খাওয়া পুরোপুরি বন্ধ করতে হবে।

  1. স্ট্রোক হওয়ার প্রবণতাঃ

বাইরের খাবার যেমন জাঙ্ক ফুড বা স্ট্রিট ফুডগুলিতে বেশি করে লবণের পরিমাণ থাকে। এই ধরনের খাবার আমাদের মারাত্মক ক্ষতি করে দিতে পারে। কিন্তু আমরা এই ধরনের খাবার খেতে পছন্দ করে থাকি। যার ফলে হার্টের রোগ এবং স্ট্রোকের প্রবণতা থাকে।

গবেষণায় দেখা যায়, বিশ্বজুড়ে স্ট্রোক আক্রান্ত মৃত্যুর সংখ্যা ৭০ শতাংশ। তাই দৈনিক খাবারের লবণে এর পরিমাণ কমানো না হলে স্ট্রোক আক্রান্ত মৃত্যুর সংখ্যা দিনের পর দিন বেড়েই চলবে।

কিডনির সমস্যাঃ

  1. কিডনির সমস্যাঃ

অত্যাধিক পরিমাণ লবণ খাওয়ার জন্য হৃদ চাপ বেড়ে যায়। যার ফলে কিডনি থেকে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম নিঃসৃত হয় এবং কিডনিতে পাথর সৃষ্টি হয়। কিডনির সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য লবণ খাওয়া বন্ধ করা মাস্ট।

  1. ডায়াবেটিস হওয়ার সমস্যাঃ

লবণের কারনে ব্লাড প্রেসার বেড়ে যায়। যার ফলে ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভবনা থাকে।

সারকথাঃ

লবণের উপকারিতা পেতে হলে সরাসরি কাঁচা লবণ খাওয়া থেকে রান্নায় লবণ খাওয়া উত্তম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here