বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় শৈশব, কর্মজীবন, সাহিত্যে জীবন

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
সূত্রঃ– www.instagram.com/p/BzNSHknnEJc/

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় একজন বিখ্যাত বাঙালি কবি, লেখক এবং সাংবাদিক ছিলেন। ভারতের জাতীয় সংগীত বন্দে মাতরম তার লেখা বহু বছর আগে। বাংলা ভাষায় রচিত এই গানটি এখনও মানুষের মধ্যে দেশপ্রেমকে সতেজ করে তোলে। আমাদের দেশের মহান লেখকদের মধ্যে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সেরা স্থান অর্জন করেছেন।

বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে বাংলা গদ্য এবং উপন্যাস বিকাশের জন্য তিনি অমরত্ব লাভ করেছেন। তাকে প্রথম আধুনিক বাংলা ঔপন্যাসিক হিসেবে মানা হয়। তিনি নিজের ছদ্মনাম হিসাবে কমলাকান্ত নামটি বেছে নেন। আজকের এই নিবন্ধে আমরা মহান ব্যক্তি বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সম্পর্কে আলোচনা করব। এবং আপনাদেরকে জানাব তাঁর শৈশব, পরিবার এবং কর্মজীবনের কাহিনী। চলুন তাহলে আজকের এই নিবন্ধ থেকে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জীবনী জেনে নিই।

আরও পড়ুনঃ নেতাজির জীবন কাহিনীঃসুভাষ চন্দ্র বসুর জন্ম কাহিনী

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম পরিচয় এবং পারিবারিক জীবনঃ

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম পরিচয় এবং পারিবারিক জীবনঃ
সূত্রঃ– www.instagram.com/p/BV028nwAzeL/

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম বাংলার নৈহাটি শহরের নিকটবর্তী স্থল কাঁঠালপাড়া গ্রামে। ১৮৩৮ খ্রিস্টাব্দের ২৭ শে জুন তিনি জন্মগ্রহণ করেন এক বাঙালি ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তাঁর পিতা ছিলেন যাদবচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এবং মা দুর্গাসুন্দরী দেবী। তাঁর বাবা মেদিনীপুরের একজন ডেপুটি কালেক্টর ছিলেন।

তিনি মাত্র ১১ বছর বয়সে বিয়ে করেছিলেন। তাঁর স্ত্রী বয়স তখন পাঁচ বছর। তিনি যখন বাইশ বছর বয়সী ছিলেন তখন তাঁর স্ত্রী মারা যান। ১৮৬০ সালে তিনি হালি শহরে আবার আবার বিবাহ করেছিলেন। তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী ছিলেন রাজলক্ষী দেবী।

আরও পড়ুনঃ ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের জীবনী কাহিনী জেনে নিন

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ছাত্র জীবনঃ

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ছাত্র জীবনঃ
সূত্রঃ– www.instagram.com/p/BzMzgqEldPP/

বঙ্কিমচন্দ্র শৈশব থেকেই পড়া-লেখায় আগ্রহী ছিলেন। শৈশবে কয়েকবছর তিনি বাড়িতেই পাঠশালার গুরুমশাইয়ের কাছে পড়াশুনো করেছেন। কয়েকবছর লেখাপড়ার পর তিনি মেদিনীপুর জেলার ইংরেজি স্কুলে ভর্তি হন। বঙ্কিমচন্দ্র ইংরেজি ভাষার চেয়ে সংস্কৃতের প্রতি বেশি আগ্রহী ছিলেন। লেখাপড়ার পাশাপাশি বঙ্কিমচন্দ্র খেলাধুলায়ও আগ্রহী ছিলেন। স্কুলে তিনি মেধাবী ছাত্র বলে পরিচিত ছিলেন।

স্কুল জীবন শেষ হলে তিনি ১৮৪৯ সালে হুগলির মহসিন কলেজে ভর্তি হন এবং সেখানে সাত বছর পড়াশুনো করেন। সেখানে পড়াকালীন তিনি জুনিয়র স্কলারশিপ পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেন এবং বৃত্তি লাভ করেন।

তারপরে তিনি প্রেসিডেন্সি কলেজে যান, সেখান থেকে তিনি ১৮৫৭ সালে আর্টস থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। তখন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাত্র দু’জন ব্যক্তি স্নাতকের চূড়ান্ত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল, যার মধ্যে একজন ছিলেন বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়।

আরও পড়ুনঃ সৌরভ গাঙ্গুলির জীবনীঃ কেমন ছিল ক্রিকেটের দাদার জীবন?

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের কর্মজীবনঃ

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের কর্মজীবনঃ
সূত্রঃ– www.instagram.com/p/BzOBPihBQjF

পড়াশোনা শেষ করার পরে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সরকারী চাকরী পেয়েছিলেন এবং বাবার মতো তাঁকেও বাংলার একটি জেলার ডেপুটি কালেক্টর করা হয়। কিছুদিন বাদে তাঁর কর্ম দক্ষতা দেখে ব্রিটিশ সরকার বঙ্কিমচন্দ্রকে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট পদে নিযুক্ত করে। প্রায় তিরিশ বছর তিনি ব্রিটিশদের অধিনে কাজ করেন এবং ১৮৯১ সালে সরকারী চাকুরী থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

তিনি ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মতো সাহিত্যে লেখার অনুরাগী ছিলেন। তাঁর প্রথম প্রকাশিত লেখাটি ছিল একটি উপন্যাস ছিল ‘Rajmohan’s Wife’ যা তিনি ইংরেজি ভাষায় লেখেন। তবে যেহেতু এটি ইংরেজী ভাষায় লেখা হয়েছিল, এটি অনেক বেশি প্রশংসা অর্জন করতে ব্যর্থ হয়েছিল এবং তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে যদি তিনি লেখেন তবে তাকে বাংলা ভাষায় লিখতে হবে।

আরও পড়ুনঃ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী জীবন কাহিনী

ব্রিটিশদের সাথে কাজ করতে গিয়ে, তাদের কার্যকলাপ খুব কাছ থেকে তিনি লক্ষ্য করেছেন। সরকারী চাকরিতে থাকাকালীন তিনি ১৮৫৭ সালর বিপ্লবের প্রত্যক্ষ সাক্ষী ছিলেন।এগুলি তাঁর মধ্যে বিপ্লবের আগুন ভরিয়ে দিচ্ছিল। ১৮৫৭ সালে বিপ্লবের পরে ভারতের শাসন ব্যবস্থা পুরোপুরি পরিবর্তিত হয়েছিল। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির পরাজয়ের পরে ভারত দেশের প্রশাসন ব্যবস্থা ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হাতে ছিল না তবে রানী ভিক্টোরিয়ার হাতে এসেছিল। সরকারী চাকরিতে থাকায় তারা সরাসরি কোনও গণআন্দোলনে অংশ নিতে পারেনি। তাই সাহিত্যের মাধ্যমে তিনি স্বাধীনতা আন্দোলনের পক্ষে জাগ্রত করার অঙ্গীকার করেছিলেন।

সারকথাঃ

এই বিখ্যাত কবি ও লেখক তাঁর সরকারী চাকরীর দিনগুলিতে প্রায়শই ব্রিটিশ শাসনের সাথে বিরোধে ছিলেন।

মহান সাহিত্যিক বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ঃ

মহান সাহিত্যিক বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ঃ
সূত্রঃ– www.instagram.com/p/BzNjTHeBgIt/

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় প্রথমে প্রকাশনের কাজ শুরু করে। প্রথমে তিনি সাপ্তাহিক পত্রিকা “”সংবা প্রভাকর” পত্রিকায় লিখতেন। বঙ্কিমচন্দ্র লেখার শখ ছিল। তাই তিনি কবিতা লিখে তাঁর সাহিত্য যাত্রাও শুরু করেছিলেন। তবে পরে যখন তাঁর লেখার দক্ষতা বিকাশ লাভ করলেন, তখন তিনি কথাসাহিত্য, গল্প, উপন্যাস লেখার দিকে আগ্রহ বাড়ালেন।

তাঁর প্রথম উপন্যাস ছিল ‘Rajmohan’s Wife’, ইংরেজি ভাষার কারনে তেমন সফল হয়নি। কারণ সেই সময় ভারতে ইংরেজী বোঝে এমন লোক খুব কম ছিল। এর পরে, বঙ্কিমচন্দ্র ভেবেছিলেন যে তাঁর কথা সাধারণ মানুষের কাছে ছড়িয়ে দিতে হলে তাকে সেখানে আঞ্চলিক ভাষায় লিখতে হবে।

১৮৬৫ সালে, বঙ্কিমচন্দ্র বাংলা ভাষায় তাঁর প্রথম উপন্যাস লিখেছিলেন যার নাম ছিল “দুর্গেশনন্দিনী”। এবং প্রকাশ করেছিলেন। এটি প্রেমকাহিনী অবলম্বনে একটি বাংলা উপন্যাস ছিল। এটির পর ‘কাপালকুণ্ডলা’ একটি বিখ্যাত উপন্যাস যা তাঁর প্রথম বড় প্রকাশনা ছিল। এই উপন্যাসটি তাকে লেখক হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করেছিল।

১৮৬৯ সালে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় মৃণালিনী নামে একটি উপন্যাস রচনা করেছিলেন, যা তাঁর অন্যান্য উপন্যাস থেকে পৃথক ছিল। এটি ঐতিহাসিক প্রসঙ্গে লেখা ছিল। পরে তিনি বঙ্গদর্শন নামে তাঁর মাসিক সাহিত্য পত্রিকা প্রকাশ শুরু করেন। পত্রিকাটি প্রচারের ৪ বছরের মধ্যে বাইরে চলে যায়।

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
সূত্রঃ– www.instagram.com/p/BSnX6YtAXNz/

১৮৭৭ সালে বঙ্কিমচন্দ্র “চন্দ্রশেখর” নামে একটি উপন্যাস রচনা করেছিলেন এবং প্রকাশ করেছিলেন। এই উপন্যাসটি বঙ্কিমচন্দ্রের বাকী রচনার চেয়ে আলাদা ছিল, যেখানে তিনি লিখেছিলেন ভিন্ন স্টাইলে। একই বছরে তিনি ‘রজনী’ প্রকাশ করেছিলেন যাকে বঙ্কিমচন্দ্রের আত্মজীবনী বলা হয়।

১৮৮২ সালে বঙ্কিমচন্দ্র “আনন্দমঠ” উপন্যাস লিখেছিলেন যা হিন্দু জাতি এবং ব্রিটিশ রাষ্ট্রকে ঘিরে লেখা একটি রাজনৈতিক উপন্যাস। বইটি ছিল বন্দে মাতরম গানের উৎস যা পরবর্তীকালে ভারতের জাতীয় সংগীতে পরিণত হয়েছিল। এগুলি ছাড়াও তিনি লোকসাহিত্যে রচনা করেছিলেন, যেমন- লোক রহস্য, দেবী চৌধুরানী, বিবিধ প্রবন্ধ, কমলাকান্ত, সীতারাম, মুচিরাম গুড়ের জীবনচরিত, কৃষ্ণ চরিত্র,ধর্ম্মতত্ত্ব ইত্যাদি।

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সব উপন্যাসের মধ্যে “আনন্দমঠ” উপন্যাস সবচেয়ে বেশি পরিচিত কারণ প্রথমবারের জন্য রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বন্দে মাতরম গানটি গ্রহণ করা হয়েছিল যা পরে ১৯৩৭ সালে জাতীয় সংগীত হয়ে ওঠে।

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় তাঁর সাহিত্যকর্মের দ্বারা বহু মানুষকে প্রভাবিত করেছেন। অনেক মুক্তিযোদ্ধা তার রচনা থেকে স্বাধীনতা সংগ্রামে অনুপ্রেরণা গ্রহণ করতেন। বঙ্কিমচন্দ্র তাঁর বিখ্যাত কাজ এবং ধারণাগুলি নিয়ে বহু বিশিষ্ট ভারতীয় ব্যক্তিত্বকে অনুপ্রাণিত করেছিলেন। ১৯০৬ সালে বিপিনচন্দ্র পাল “বন্দে মাতরম” নামে একটি দেশভক্তি পত্রিকা শুরু করেছিলেন। একইভাবে লালা লাজপত রায় রায় একই নামে একটি জার্নাল প্রকাশ করেছিলেন। এগুলিই মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে দেশ প্রেমকে আরও বাড়িয়ে তুলেছিল।

আরও পড়ুনঃ জিয়াউল ফারুক অপূর্ব শৈশব, ক্যারিয়ার, ব্যক্তিগত জীবন

মহাপ্রয়াণঃ

মহাপ্রয়াণঃ
সূত্রঃ- www.instagram.com/p/BzNZ1-lgJQZ/

১৮৯৪ খ্রিস্টাব্দ ৮ এপ্রিল এই মহাপুরুষের মহাপ্রয়াণ ঘটে। তাঁর মৃত্যু দেশের জন্য একটি বড় ক্ষতি ছিল। তিনি সরাসরি স্বাধীনতার লড়াইয়ে প্রবেশ না করলেও তাঁর লেখা রচনা, কবিতা প্রতিটি মুক্তিযোদ্ধার মধ্যেই দেশের স্বাধীনতার লড়াইয়ের জাগরণ ঘটিয়েছে।

আরও পড়ুনঃ নুসরাত জাহান শৈশব, ক্যারিয়ার, ব্যক্তিগত জীবন

বঙ্কিমচন্দ্র বাংলা ভাষায় আধুনিক সাহিত্য শুরু করেছিলেন। এবং তাঁর লেখার মধ্যে দিয়ে দেশের স্বাধীনতার জন্য লড়াই করে গেছে। এই মহান ব্যক্তি আজ জীবিত না থাকলেও তাঁর লেখার মধ্যে দিয়ে দেশের প্রতিটি মানুষের মধ্যে তিনি অমর রয়েছে।

সারকথাঃ

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় প্রতিটি মুক্তিযোদ্ধার মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতার জন্য লড়াই করে গেছেন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম কত সালে?

উঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম ১৮৩৮ খ্রিস্টাব্দের ২৭ শে জুন।

প্রঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের বাবার নাম কি?

উঃ বাবার নাম যাদবচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়।

প্রঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মায়ের নাম কি?

উঃ মায়ের নাম দুর্গাসুন্দরী দেবী।

প্রঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রীর নাম কি?

উঃ স্ত্রীর নাম রাজলক্ষী দেবী।

প্রঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?

উঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের নৈহাটি শহরের নিকটবর্তী স্থল কাঁঠালপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

প্রঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু দিবস কবে?

উঃ ১৮৯৪ খ্রিস্টাব্দ ৮ এপ্রিল মাসে মারা যান।

প্রঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের প্রথম উপন্যাস কি?

উঃ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের প্রথম উপন্যাস ‘Rajmohan’s Wife’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here