কাজী নজরুল ইসলাম শৈশব, শিক্ষা, কর্ম, বৈবাহিক জীবন

kaji nuzrul islam

kaji nuzrul islam

সূত্রঃ- i . ytimg . com

কাজী নজরুল ইসলাম বাংলাদেশের জাতীয় কবি যিনি বিশেষত দেশজুড়ে বিদ্রোহী কবি হিসাবে পরিচিত।  তিনি  বাংলাদেশের একজন বিখ্যাত কবি, সংগীতজ্ঞ ও দার্শনিক। বিখ্যাত কবি কাজী নজরুল ইসলামের লেখাগুলি সেইসময় বিপ্লবের জন্য কাজে এসেছিল। এবং তাঁর বিপ্লবী প্রয়াস তাঁকে বাংলাদেশের জাতীয় কবি হতে সহায়তা করেছিল।  তিনি ফ্যাসিবাদ এবং যে কোনও ধরণের নিপীড়নের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছিলেন এবং দ্রুত ভারতীয় উপমহাদেশে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন।

আজকের নিবন্ধে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম এর শৈশব থেকে কর্মজীবনের কথা আপনাদের কাছে শেয়ার করে নেব। চলুন আজকে এই পেজে জেনে নিই কাজী নজরুল ইসলামের জীবনের কাহিনী।

কাজী নজরুল ইসলামের জীবনীঃ 

কাজী নজরুল ইসলাম শৈশব জীবন এবং পরিবার (Kazi Nazrul Islam’s Early life and Family):

kazi najrul

সূত্রঃ- learn . culturalindia . net

১৮৯৯ সাল ২৪ মে জন্মগ্রহণ করেছিলেন বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এই বিখ্যাত কবি। তার পিতার ছিলেন কাজী ফকির আহমদ এবং মা ছিলেন জাহেদা খাতুন।

তার পিতা ছিলেন সেখানকার মসজিদ ইমাম এবং মা ছিলেন গৃহবধূ। তাঁর পিতার অকাল মৃত্যুর পরে, তাঁর প্রথম জীবনে তিনি যে কষ্টের মুখোমুখি হয়েছিল তার কারণে গ্রামবাসীরা তাঁকে ‘দুখু মিয়া’ ডাকনাম দিয়েছিলেন। তিনি যখন দশ বছর বয়সে ছিলেন, তখন তিনি তার পরিবারের যত্ন নেওয়ার পাশাপাশি তত্ত্বাবধায়ক হিসাবে স্কুলে শিক্ষকদের সহায়তা করার জন্য তাঁর বাবার জায়গায় কাজ শুরু করেছিলেন।

কাজী নজরুল ইসলামের শিক্ষা জীবন (Kazi Nazrul Islam’s Education Life):

56525097_157255065294549_506100102631295280_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/BvvdJlhlNuc/

১৯১০ সালে তিনি  রানীগঞ্জের সিয়ারসোল রাজ স্কুল এবং পরে  মাথরুন উচ্চ ইংরেজি স্কুলে পড়াশোনা করেন। কিন্তু শীঘ্রই তিনি আর্থিক সঙ্কটের কারণে পড়াশোনা ত্যাগ করেন। ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনো করার পর তিনি আবার কাজে যোগ দেন এবং রান্নার কাজ শুরু করেন। পরে আসানসোলের বেকারি ও চায়ের দোকানে চাকরি নেন তিনি।

চায়ের দোকানে কাজ করার সময় তার পরিচয় হয় আসানসোলের দারোগা রফিজউল্লাহ’র সাথে। দোকানে কাজ করার পাশাপাশি নজরুল কবিতা এবং ছড়া রচনা করতেন তা দেখে রফিজউল্লাহ মুগ্ধ হন। এবং  ১৯১৪ সালে তিনি কবি নজরুল ইসলামকে দরিরামপুর স্কুলে সপ্তম শ্রেণীতে ভর্তি করে দেন। পরবর্তীকালে ১৯১৫ সাল থেকে নজরুল আবার রানীগঞ্জে সিয়ারসোল রাজ স্কুলে চলে যান এবং সেখানে অষ্টম শ্রেণীতে ভর্তি হন। সেখানে  দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন। তিনি বাংলা, সংস্কৃত, আরবি, ফারসি সাহিত্য এবং হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত অধ্যয়ন করেন।

কাজী নজরুল ইসলামের কর্মজীবন (Kazi Nazrul Islam’s Career Life):

61128919_393350304725538_952025235078012167_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/Bx4KrwOFiqf/

১৯১৭ সালে তিনি সেনা হিসাবে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে যোগ দেন এবং তিন বছর ব্যাটালিয়ন কোয়ার্টার মাস্টার  পদে উন্নীত হন। ১৯১৯ সালে সেনাবাহিনীতে কর্মরত অবস্থায় তার “বাউণ্ডুলের আত্মকাহিনী” সওগাত পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এছাড়াও সেইসময় তিনি আরও গল্প লিখেছিলেন হেনা, ব্যথার দান, মেহের নেগার, ঘুমের ঘোরে”।

১৯২০ সালে কবি কাজী নজরুল ইসলাম সেনাবাহিনী কর্ম ত্যাগ করেন এবং কলকাতায় ফিরে কলেজ স্ট্রীটে বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য সমিতির যোগদান করেন। যেখানে তিনি তার প্রথম কবিতা লেখেন ‘বাঁধন-হারা’। ১৯২২ সালে৩ তিনি বিদ্রোহী শিরোনাম কবিতা লিখেছিলেন যা “বিজলি” ম্যাগাজিনে প্রকাশিত হয়েছিল। কবিতাটি এক বিদ্রোহী সংবেদনশীলতার বর্ণনা দিয়েছে এবং  সমাজের বিভিন্ন শ্রেণির লোকের কাছ থেকে প্রশংসা পেয়েছিল।

১৯২১ সালে অক্টোবর মাসে বোলপুরের শান্তিনিকেতনে কাজী নজরুল ইসলামের সঙ্গে  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দেখা হয় এবং তখন থেকে প্রায় কুড়ি বছর এই দুই কবির মধ্যে যোগাযোগ অক্ষুণ্ণ থাকে। তারা দুজনে একে অপরকে গভীর শ্রদ্ধা করতেন এবং ভালোবাসতেন।

১৯২২ সালে তার রাজনৈতিক কবিতা “আনন্দময়ীর আগমনে” ধূমকেতু পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এর ফলে ম্যাগাজিনের অফিসে পুলিশি অভিযানের সময় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। ১৯২৩ সালে ডিসেম্বর মাসে মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত কারাবন্দী থাকাকালীন প্রচুর সংখ্যক কবিতা ও গান রচনা করেছিলেন।

59825813_563469587508660_4624388

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/Bx12pvJn-GP/

অবশেষে, তিনি “খিলাফত” আন্দোলন এবং ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সমালোচক হয়েছিলেন ব্রিটিশ সাম্রাজ্য থেকে রাজনৈতিক স্বাধীনতা না নেওয়ার জন্য।  তিনি জনগণকে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছিলেন এবং  ‘শ্রমিক প্রজা স্বরাজ দল’ সংগঠিত করেছিলেন।

১৯২৬ সাল থেকে তিনি সমাজের দুর্বল অংশের জন্য কবিতা এবং গান রচনা করেছিলেন। পরবর্তীকালে তার রচনাগুলি বিদ্রোহ থেকে ধর্মে রূপান্তরিত হয়েছিল। ১৯৩৩ সালে তিনি ‘আধুনিক বিশ্ব সাহিত্য’ শীর্ষক রচনা সংকলন প্রকাশ করেছিলেন, যার বিভিন্ন থিম এবং শৈলী ছিল। তিনি ১০ খণ্ডে শাস্ত্রীয় রাগ, কীর্তন এবং দেশাত্মবোধক গানের উপর ভিত্তি করে ৮০০ টি গান লিখেছিলেন।

অন্যান্য কিংবদন্তিদের সম্পর্কে জানতে নীচে ক্লিক করুনঃ

১৯৩৪ সালে তিনি ভারতীয় থিয়েটার এবং ফিল্মে যোগদান করেন। গিরিশচন্দ্রের গল্প জীবনীর উপরে “ভক্ত ধ্রুব” নামে একটি ছবি প্রকাশ করেন। ১৯৩৯ সালে তিনি কলকাতা বেতারের জন্য কাজ শুরু করেন এবং ‘হারমনি’ এবং ‘নবরাগ-মালিকা’ এর মতো সংগীত প্রযোজনা করেন। ১৯৪০ সালে, তিনি এ.কে. প্রতিষ্ঠিত ‘নবযুগ’-এর প্রধান সম্পাদক হিসাবে কাজ শুরু করেন।

তাঁর সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য রচনাগুলি ছিল তাঁর বোধন, শাত-ইল-আরব,খেয়া-পারের তরণী এবং বাদল প্রাতের শরাব প্রভৃতি বিদ্রোহী কবিতাগুলি যা সর্বত্র সমালোচিত প্রশংসা পেয়েছিল।

১৯২৬ সালে তিনি দারিদ্র্য শিরোনাম একটি বিখ্যাত কবিতা লিখেছিলেন যা জনসাধারণের কাছ থেকে প্রশংসা পেয়েছিল। ১৯২৮ সালে তিনি ‘মাস্টার ভয়েস গ্রামোফোন সংস্থা’ এর গীতিকার, সুরকার এবং সংগীত পরিচালক হয়েছিলেন। ইন্ডাস্ট্রিতে তাঁর অন্যতম বৃহত্তম কাজ ছিল ‘সিরাজ-উদ-দৌলা’ নামে একটি বায়োপিক নাটকের জন্য গান রচনা এবং পরিচালনা করা।

কাজী নজরুল ইসলামের বৈবাহিক জীবন (Kazi Nazrul Islam’s Marital life):

32686052_170050273662321_7588499538860572672_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/BjJtKrwHowY/

১৯২১ সালে তিনি দৌলতপুরে একজন প্রখ্যাত মুসলিম গ্রন্থ প্রকাশক আলী আকবর খানের শালি নার্গিসের সাথে বাগদান করেন। বিয়ের দিন, আলী আকবর খানের একটি অযৌক্তিক অবস্থা শুনে তিনি অনুষ্ঠান থেকে দূরে চলে যান।

১৯১২ সালে কুমিল্লা শহর সফরে তিনি এক তরুণ হিন্দু মহিলা প্রমিলা দেবীর সঙ্গে দেখা হয়। তারা প্রেমে পড়ে এবং পরে ১৯২৪ সালে দুইজনে বিয়ে করেন। প্রমিলা দেবী এবং কাজী নজরুল ইসলামের সন্তানের ছিলেন  কৃষ্ণ মুহাম্মদ, অরিন্দম খালেদ, কাজী সব্যসাচী এবং কাজী অনিরুদ্ধ|

পুরস্কার ও সম্মান (Awards and honors):

kaji nazrul islam

সূত্রঃ- dailyasianage . com/library/1558552781_9 . jpg

  • ১৯৪৫ সালে তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা সাহিত্যে কাজের জন্য জগত্তারিণী স্বর্ণপদক লাভ করেন।
  • ১৯৬০ সালে তৃতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা পদ্মভূষণে পুরষ্কার পেয়েছিলেন।
  • তিনি বাংলাদেশের সরকার কাছ থেকে “জাতীয় কবি” উপাধি এবং ‘একুশ পদক’ পুরস্কার লাভ করেন।

মহাপ্রয়াণঃ

39320127_266912880595829_4870349517590888448_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/Bm-v9HcDqba/

১৯৫২ সালে কাজী নজরুল ইসলামকে রাঁচির একটি মানসিক হাসপাতালে পাঠানো হয় এবং তারপরে ভিয়েনায় চিকিত্সার জন্য স্থানান্তরিত করা হয় যেখানে তাকে পিক্‌স  নামক রোগ ধরা পড়ে। তিনি ১৯৫৩ সালে দেশে ফিরে এসেছিলেন।

১৯৭৬ সালে ২৯ আগস্ট বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম বাংলাদেশে ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে একটি মসজিদের পাশে সমাধিস্থ করা হয়।

সারকথাঃ

কাজী নজরুল ইসলাম ‘বাংলাদেশের জাতীয় কবি’।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রঃ কাজী নজরুল ইসলামের জন্ম কবে হয়?

উঃ কাজী নজরুল ইসলাম ১৮৯৯ সালে ২৪ মে মাসে জন্মগ্রহণ করেন।

প্রঃ কাজী নজরুল ইসলাম কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?

উঃ  কাজী নজরুল ইসলাম পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

প্রঃ কাজী নজরুল ইসলামের প্রথম প্রকাশিত কবিতা কি?

উঃ মুক্তি।

প্রঃ কাজী নজরুল ইসলামের প্রথম প্রকাশিত রচনা কি?

উঃ বাউণ্ডুলের আত্মকাহিনী।

প্রঃ কাজী নজরুল ইসলামের বাবার নাম কি?

উঃ কাজী নজরুল ইসলামের বাবার নাম কাজী ফকির আহমদ।

প্রঃ কাজী নজরুল ইসলামের মায়ের নাম কি?

উঃ কাজী নজরুল ইসলামের মায়ের নাম জাহেদা খাতুন।

প্রঃ কাজী নজরুল ইসলাম কবে মারা যান?

উঃ ১৯৭৬ সালে ২৯ আগস্ট মারা যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here