সিস্টার নিবেদিতা প্রাথমিক জীবন এবং কর্মজীবন

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/B3i3-EVgs7n/

Biography
নামসিস্টার নিবেদিতা (মার্গারেট এলিজাবেথ)
ডাক নামনিবেদিতা
জন্মতারিখ২৮ অক্টোবর, ১৮৬৭
জন্মস্থানআয়ারল্যান্ড
পরিবার ও আত্মীয়স্বজন
পিতাস্যামুয়েল রিচমন্ড নোবেল
মামেরি ইসাবেলা
স্বামীNot Know
পুত্রNot Know
কন্যাNot Know
শিক্ষা ও স্কুল, কলেজ
বিদ্যালয়লন্ডন চার্চ বোর্ডিং স্কুল
কলেজহ্যালিফ্যাক্স কলেজে
মৃত্যুর তারিখ১৩ অক্টোবর, ১৯১১
মৃত্যুর স্থানদার্জিলিং
অন্যান্য
আয়Not available
টুইটারNot available
ফেসবুকNot available
ইন্সটাগ্রামNot available

73026723_1190763047774193_4654561879676984846_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/B3irCnbAl3K/

সিস্টার নিবেদিতা ছিলেন একজন ব্রিটিশ-আইরিশ সমাজকর্মী, লেখক, শিক্ষক এবং স্বামী বিবেকানন্দের শিষ্য। মার্গারেট এলিজাবেথ ছিল তার আসল নাম। তিনি আয়ারল্যান্ডে তার শৈশব কাটিয়েছিলেন। জীবনের কিছু অমূল্য পাঠ (মানুষ সেবা করা মানেই ঈশ্বরের সেবা করা) শিখেছিলেন তার বাবা এবং শিক্ষকদের কাছ থেকে। তাই মানুষের সেবা করার জন্য তার মন এতটা স্থির হয়েছিল যে সে তার দেশ ছেড়ে ভারতে চলে এসেছিল এবং  সেখানে বসবাস শুরু করেন।

তার সেবা চেতনা এবং মানুষের জন্য ত্যাগের কারণে তিনি ভারতে অত্যন্ত শ্রদ্ধা ও শ্রদ্ধাশীল। গর্বিত বিদেশিদের মধ্যে সম্ভবত  সিস্টার নিবেদিতার নাম প্রথম। তিনি ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের কেবল সমর্থনই করেনি বরং নারী ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।

সিস্টার নিবেদিতার জীবনীঃ 

সিস্টার নিবেদিতার প্রাথমিক জীবনঃ

29403646_212259166175488_3320837308466331648_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/BgpHa4_g31R/

১৮৬৭ সালে ২৮ অক্টোবর আয়ারল্যান্ডে ডানগ্যানন শহরে সিস্টার নিবেদিতা জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার পিতা স্যামুয়েল রিচমন্ড নোবেল এবং মা মেরি ইসাবেলা। তার বাবা একজন ধর্মযাজক ছিলেন। নিবেদিতার বয়স যখন দশ তার বাবা মারা যান। তারপর তার দাদামশাই  তাকে লালন পালন করেন।

তার দাদামশাই স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম শীর্ষ নেতা ছিলেন। নিবেদিতা লন্ডন চার্চ বোর্ডিং স্কুলে পড়েন। তারপরে তিনি তার বোনের সাথে হ্যালিফ্যাক্স কলেজে অধ্যয়ন করেছিলেন। তিনি পদার্থবিজ্ঞান, শিল্প, সংগীত এবং সাহিত্যে নিয়ে পড়াশুনো করেন।

সিস্টার নিবেদিতা মাত্র ১৭ বছর বয়স থেকেই শিক্ষকতা পেশা গ্রহণ করেন। এবং দুবছরের জন্যে কেসউইকের একটি প্রাইভেট স্কুলে শিশুদের পড়ান। এরপর রেক্সহ্যামে, চেস্টারে এবং লন্ডনের উইম্বলডনে  শিক্ষাদান করেন। ১৮৯৫ সালে  উইম্বলডনে  নিজস্ব বিদ্যালয় স্থাপন করেছিলেন যেখানে তিনি শিক্ষার এক অনন্য পদ্ধতি গ্রহণ করেছিলেন।

তিনি ধর্মীয় প্রবণতার কারণে গির্জার অনুষ্ঠান এবং ক্রিয়াকলাপেও অংশ নিয়েছিলেন। তিনি একজন কার্যকর লেখিকাও ছিলেন এবং সময় সময় পত্রিকা ও ম্যাগাজিনে লিখতেন। ধীরে ধীরে তার নামটি লন্ডনের বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। তিনি একজন ওয়েলশ  যুবকের সঙ্গে বিবাহ ঠিক হয়ে যায় তবে  যুবকটি মারা যান।

স্বামী বিবেকানন্দের সঙ্গে পরিচয়ঃ

19984458_1707553482880970_7265311143986462720_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/BWjg5StBVo2/

 আমেরিকা থেকে ফিরে এসে লন্ডনে থাকাকালীন  ১৮৫৫ সালে তার স্বামী বিবেকানন্দের সাথে দেখা হয় এক পারিবারিক আসরে। সেখানে তিনি স্বামী বিবেকানন্দের ‘বেদনা দর্শনের’ ব্যাখ্যা  শোনেন এবং তার ধর্মব্যাখ্যা ও ব্যক্তিত্বে তিনি মুগ্ধ হয়ে যান। এই সময় তিনি স্বামী বিবেকানন্দের কাছে অনেক প্রশ্ন করেছিলেন, যার উত্তরগুলি তার মনে বিবেকানন্দের প্রতি শ্রদ্ধা ও শ্রদ্ধা জাগিয়ে তোলে। তারপর থেকে তিনি বিবেকানন্দকেই নিজের গুরু বলে মনে করেন।

এরপরে সিস্টার নিবেদিতা গৌতম বুদ্ধ এবং বিবেকানন্দের নীতিগুলি অধ্যয়ন করেছিলেন যা তাঁর জীবনে দুর্দান্ত প্রভাব ফেলেছিল। বিবেকানন্দ নিবেদিতার সেবার চেতনা এবং উৎসাহ দেখে বুঝতে পারেন যে সিস্টার নিবেদিতা ভারতের শিক্ষাগত উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারবে।

অন্যান্য কিংবদন্তিদের সম্পর্কে জানতে নীচে ক্লিক করুনঃ

ভারতে আগমনঃ

38913988_517295552055780_2097203170240364544_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/BmWBtTpnc54/

স্বামী বিবেকানন্দের অনুরোধে ১৮৮৮ সালের ২৮ জানুয়ারি  সিস্টার নিবেদিতা অর্থাৎ মার্গারেট এলিজাবেথ  পরিবার ও বন্ধুবান্ধব ছেড়ে  কলকাতায় চলে আসেন। এখানে এসে  বিবেকানন্দের কাছে  ভারতীয় সভ্যতা, সংস্কৃতি, দর্শন, মানুষ, সাহিত্য এবং ইতিহাসের এবং মহাপুরুষদের জীবনকথা শোনেন। ভারতে এসে তার রামকৃষ্ণ পরমহংসের স্ত্রী সারদা দেবীর সঙ্গে পরিচয় হয়।

ব্রহ্মচর্য  ব্রতে দীক্ষাঃ 

sister nivedita

সূত্রঃ- cloudfront . net

১৮৯৮ সালে ২৫ শে মার্চ মার্গারেট স্বামী বিবেকানন্দের তত্ত্বাবধানে ‘ব্রহ্মচর্য’ ব্রত দীক্ষা গ্রহণ করেছিলেন।  এর পরে বিবেকানন্দ তাকে নতুন নাম দেন ‘নিবেদিতা’। এইভাবে সিস্টার নিবেদিতা কোনও ভারতীয় ধর্মকে অবলম্বনকারী প্রথম পশ্চিমা মহিলা হন।

সিস্টার নিবেদিতা এবং সারদা দেবীঃ

16463961_109457189574715_4120119722840686592_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/BQRwJoAjPK-/

ভারতে আসার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই, ভাগিনী নিবেদিতা রামকৃষ্ণ পরমহংসার স্ত্রী এবং আধ্যাত্মিক অংশীদার সারদা দেবীর সাথে দেখা করলেন। সারদা দেবী তাকে আদর করে খুকি বলতেন। নিবেদিতার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তাদের মধ্যে পারস্পরিক ভালবাসা এবং শ্রদ্ধার সম্পর্ক ছিল।

 সেবা কর্মঃ

nivedita

সূত্রঃ- www . thestatesman . com

সিস্টার নিবেদিতা স্বামী বিবেকানন্দ, জোসেফাইন ম্যাকলিড সঙ্গে কাশ্মীর সহ ভারতের বহু অঞ্চল ঘুরেছিলেন এবং এই অঞ্চলের মানুষ, ইতিহাস এবং সংস্কৃতি বুঝতে পেরেছিলেন। তিনি সচেতনতা ছড়িয়ে দিতে এবং তার কাজটিতে সহায়তা করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফর করেছিলেন। ১৮৯৮ সালের মে মাসে তিনি বিবেকানন্দের সাথে হিমালয় পরিদর্শন করতে গিয়েছিলেন। পরে তিনি কাশ্মীরে গিয়ে অমরনাথও গিয়েছিলেন। ১৮৯৯ সালে তিনি স্বামী বিবেকানন্দের  সঙ্গে  আমেরিকা যান।

স্বামী বিবেকানন্দের কাছ থেকে দীক্ষা গ্রহণের পরে তিনি স্বামীজির শিষ্য হন এবং রামকৃষ্ণ মিশনের জন্য কাজ শুরু করেন। সমাজসেবায় নিযুক্ত হওয়ার পরে কলকাতায় ভয়াবহ প্লেগ চলাকালীন ভারতীয় বসতিগুলিতে প্রশংসনীয় ভাল কাজ করে একটি মডেল স্থাপন করেছিলেন। তিনি উত্তর কলকাতায় একটি বালিকা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এবং প্রাচীন হিন্দু আদর্শকে শিক্ষিতদের কাছে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য ইংরেজী ভাষায় বই লিখেছিলেন এবং বক্তৃতার মাধ্যমে সেগুলি প্রচার করেছিলেন।

ভারতীয়দের প্রতি অবদানঃ

sister n

সূত্রঃ- indiatvnews . com

সিস্টার নিবেদিতা  ভারতের স্বাধীনতার শক্তিশালী সমর্থক ছিলেন এবং অরবিন্দ ঘোষের মতো জাতীয়তাবাদীদের সাথে তাঁর ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল। ধীরে ধীরে নিবেদিতার দৃষ্টি যায়  ভারতের স্বাধীনতার দিকে। রাজনীতির সঙ্গে বিবেকানন্দের নীতি ও আদর্শের কোনও যোগসূত্র ছিল না, তাই তিনি বিবেকানন্দের মৃত্যুর পরে সংঘ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন।

তিনি কখনই সরাসরি কোনও জাতীয় আন্দোলনে অংশ নেন নি, তিনি তাঁর বক্তৃতা এবং লেখার মাধ্যমে ভারতীয় যুবকদের অনুপ্রাণিত করেছিলেন। ১৯০৫ সালে তিনি জাতীয় কংগ্রেসের বেনারস অধিবেশনে অংশ নিয়েছিলেন।

মহাপ্রয়াণঃ

25022181_390090044779803_378039744333873152_n

সূত্রঃ- www . instagram . com/p/BdEeksDl8UF/

১৯১১ সালে ১৩ অক্টোবর সিস্টার নিবেদিতা দার্জিলিংয়ের রায় ভিলাতে মারা যান। মৃত্যুর সময় তার বয়স ছিল ৪৪ বছর।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রঃ সিস্টার নিবেদিতা  কবে জন্মগ্রহণ করেন?

উঃ সিস্টার নিবেদিতা ১৮৬৭ সালে ২৮ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন।

প্রঃ সিস্টার নিবেদিতা কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?

উঃ আয়ারল্যান্ডে ডানগ্যানন শহরে জন্মগ্রহণ করেন।

প্রঃ সিস্টার নিবেদিতার বাবার নাম কি?

উঃ স্যামুয়েল রিচমন্ড নোবেল।

প্রঃ সিস্টার নিবেদিতার মায়ের নাম কি?

উঃ মেরি ইসাবেলা।

প্রঃ নিবেদিতা ব্রহ্মচর্য  দীক্ষা কবে  গ্রহণ করেন?

উঃ  ১৮৯৮ সালে ২৫ শে মার্চ নিবেদিতা ব্রহ্মচর্য  দীক্ষা গ্রহণ করেন।

প্রঃ সিস্টার নিবেদিতা কবে মারা যান?

উঃ ১৯১১ সালে ১৩ অক্টোবর মারা যান।

প্রঃ সিস্টার নিবেদিতা কোথায় মারা গিয়েছিলেন?

উঃ নিবেদিতা দার্জিলিংয়ে মারা যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here