হাই ব্লাড প্রেসার লক্ষণ । নেগেটিভ প্রভাব । প্রতিরোধ

হাইপারটেনশন

High blood pressure ( ব্লাড প্রেসার ) । Hypertension in Bengali

ব্লাড প্রেসার শরীরের একটি ধমনিক প্রবাহ। হৃদয় রক্ত ​​পাম্প করে এবং এটি সারা শরীর জুড়ে বহন করে। রক্ত প্রবাহের সময় ধমনীতে যে চাপ সৃষ্টি করে, তাকে বিপি অথবা রক্তচাপ বলে। প্রতিনিয়ত ব্লাড প্রেসারে ভুগে থাকেন অসংখ্য মানুষ। ব্লাড প্রেসার এখন মারাত্মক সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমাদের আজকের আর্টিকেলে হাই ব্লাড প্রেসারের নিয়ে। হাই ব্লাড প্রেসার হলে আপনাদের শরীরে কি নেগেটিভ প্রভাব পড়তে পারে জেনে নিন।

Read more: ব্লাড সুগার 

প্রতি পাঁচজন ব্যক্তির মধ্যে একজনের হাই ব্লাড প্রেসার থাকে। হাই ব্লাড প্রেসার খুবই কমন হলেও, সঠিকভাবে চিকিৎসা না করলে এটি আপনার জীবন ঝুঁকি বয়ে আনতে পারে।

হাই ব্লাড প্রেসার কি

হাই ব্লাড প্রেসার কি । What is high blood pressure 

যখন কোনও সমস্যার কারণে হৃদয় দুর্বল হয়ে যায় তখন রক্ত চলাচলে অসুবিধার সৃষ্টি হয়। তখন হৃৎপিণ্ডের স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি মাত্রায় চাপের প্রয়োজন হয়, একে উচ্চরক্ত চাপ অথবা হাই ব্লাড প্রেসার বলা হয়।

Read more: ডায়াবেটিসের লক্ষণ

হাই ব্লাড প্রেসারের কারণ

হাই ব্লাড প্রেসারের কারণ । Causes of high blood pressure

উচ্চ রক্তচাপ আপনার শরীরে তখনই ঘটে যখন দেহে রক্তচাপ বেড়ে যায়। সারা দিন ধরে উচ্চ রক্তচাপ ওঠানামা করে। এটি আপনার দৈনিক জীবনধারার উপর নির্ভর করে। হাই ব্লাড প্রেসারের কিছু কারণ রয়েছে যেমন –

  1. স্থূলতা হাই ব্লাড প্রেসারের একটি অন্যতম কারণ। স্থূল ব্যক্তির মধ্যে বিপি সাধারণ মানুষের তুলনায় বাড়ার ঝুঁকি বেশি।
  2. সুগার, হার্টের রোগ, কিডনিজনিত রোগে আক্রান্ত এবং যাদের রক্তের ধমনী দুর্বল তাদের রক্তচাপ বেশি হয়ে যায়।
  3. ভারসাম্যহীন ডায়েট।
  4. বেশি পরিমাণে নোনতা খাবার খাওয়ার জন্য ব্লাড প্রেসার হাই থাকে।
  5. যে ব্যক্তিরা বেশি ধূমপান করেন এবং সেবন করেন।

Read more: থাইরয়েড রোগের লক্ষণ ও ঝুঁকি

হাই ব্লাড প্রেসারের লক্ষণ

হাই ব্লাড প্রেসারের লক্ষণ । Symptoms of high blood pressure

বেশিরভাগ মানুষের উচ্চ রক্তচাপের কোনও লক্ষণ দেখা যায় না। তবে কিছু লোকের মধ্যে মাথাব্যথা, বুকে ব্যথা শ্বাস নিতে অসুবিধা, হঠাৎ অসাড়তা, অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার মতো উপসর্গ দেখা যায়।

  1. তীব্র মাথা ব্যথা হাই ব্লাড প্রেসারের লক্ষণ হতে পারে।
  2. উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণগুলি একজন ব্যক্তিকে ক্লান্ত এবং উচ্চ চাপ অনুভব করায়।
  3. উচ্চ রক্তচাপ ব্যক্তি শ্বাস নিতে অসুবিধা বোধ করেন।
  4. রোগীর বুকে ব্যথা হয় এবং ভারী লাগে।
  5. উচ্চ রক্তচাপের রোগীর পা হঠাৎ অসাড় হয়ে যায়।’
  6. উচ্চ রক্তচাপের রোগীর দৃষ্টি ঝাপসা করে।
  7. উচ্চ রক্তচাপের রোগী প্রায়শই খুব দুর্বল বোধ করেন।
  8. বেশি উত্তেজিত হয়ে গেলে জ্ঞান হারিয়ে যাওয়ার মতো সমস্যা হতে পারে।

Key point

হাই ব্লাড প্রেসার ব্যক্তির হার্ট এবং চোখের উপর সবচেয়ে বেশি ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে।

 

 

হাই ব্লাড প্রেসারের কারণ

হাই ব্লাড প্রেসারের নেগেটিভ প্রভাব । Negative effects of high blood pressure

হাই ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে না রাখলে এটি আপনার হেলেথের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

  • হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়:

হাই ব্লাড প্রেসার রক্ত জমাট বাঁধার কারণ হতে পারে। এটি হৃদয় বা মস্তিষ্কে রক্ত প্রবাহকে আটকাতে পারে, ফলে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

  • বুকে ব্যথা অনুভবঃ

যখন হৃদপিণ্ডের প্রয়োজন মতো রক্ত না পায়, তখন বুকে ব্যথা অনুভব হয়। ব্লাড প্রেসার ব্যক্তির দৈনিক ক্রিয়াকালাপের উপর বুকে ব্যথা বাড়তে পারে।

  • দৃষ্টিশক্তির সমস্যাঃ

চোখ ছোট রক্তনালীতে পূর্ণ যা উচ্চ রক্তচাপ দ্বারা সহজেই ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। যেমন ঝাপসা দেখা। তাই চিকিৎসা না করালে দৃষ্টিশক্তি ধীরে ধীরে হ্রাস পেতে পারে।

  • কিডনির ক্ষতি করতে পারেঃ

উচ্চ রক্তচাপ কিডনি চারপাশের ধমনীতে ক্ষতি করতে পারে। এটি তাদের কাজ করার ক্ষমতাকে হ্রাস করতে পারে এবং কিডনির ক্ষতি করতে পারে।

Read more: সাইনাস থেকে মুক্তির উপায়

হাই ব্লাড প্রেসার প্রতিরোধের উপায়

হাই ব্লাড প্রেসার প্রতিরোধের উপায় । Ways to prevent high blood pressure

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আনতে হলে একজন ব্যক্তিকে নিয়ম করে প্রেসার মাপাতে হবে এবং পাশাপাশি ডাক্তারের পরামর্শ ঔষধ গ্রহণ করতে হবে। তাহলে জীবনে ঝুঁকি কম করা সম্ভব। এছাড়াও হাই ব্লাড প্রেসার প্রতিরোধ করতে একজন ব্যক্তিকে তার লাইফস্টাইলে কিছু পরিবর্তন আনতে হবে। যেমন-

  1. স্থূলত্ব নিয়ন্ত্রণ করা, নিয়মিত অনুশীলন করা, গভীর ঘুম, চাপমুক্ত থাকা এবং সঠিক ডায়েট গ্রহণের মাধ্যমে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।
  2. অ্যালকোহল, ধূমপান অতিরিক্ত মাত্রায় সেবন করা বন্ধ করতে হবে। আপনি যদি সুগারের রোগী হন, তাহলে সুগার নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।
  3. ৩০ বছরের বয়সের পরের প্রত্যেক ব্যক্তিকে বছরে কমপক্ষে একবার রক্তচাপ পরীক্ষা করতে হবে।
  4. হাই ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে আনতে হলে আপনাকে খাবারের উপর নজর দিতে হবে। খাবারে লবণের পরিমাণ কম হওয়া উচিত। উচ্চ পরিমাণে পটাসিয়াম গ্রহণের করতে হবে। ফ্যাট যুক্ত খাবার কমাতে হবে।

Read more: কিডনি রোগের প্রতিকার

হাই ব্লাড প্রেসারের ঘরোয়া চিকিৎসা

হাই ব্লাড প্রেসারের ঘরোয়া চিকিৎসা । Home Remedies for High Blood Pressure

হাই ব্লাড প্রেসারের ব্যক্তিরা চিকিৎসার পাশাপাশি এই ঘরোয়া ট্রিটমেন্টগুলি ট্রাই করে দেখতে পারেন।

  • রসুন (Garlic)

রসুন

রসুন হাই ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ করতে কার্যকারী। সকালে খালি পেটে এক কোয়া করে রসুন খেলে প্রেসার অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসে।

  • তুলসি এবং নিম (Tulsi and Neem) 

তুলসি এবং নিম

তুলসি ও নিমের জল হাই ব্লাড প্রেসারের জন্য ভালো। পাঁচটি তুলসী পাতা এবং দুটি নিম পাতা পিষে নিন। এক গ্লাস জলে এটি মিশিয়ে সকালে খালি পেটে খেলে উপকার পাবেন।

  • মেথি (Fenugreek)

মেথি

মেথির জল উচ্চরক্ত চাপ কমাতে সহায়ক। নিয়মিত নির্দিষ্ট পরিমাণ মেথির জল ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারে।

  •  টমেটো (Tomato)

 টমেটো (Tomato)

উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসার জন্য টমেটো খান। টমেটো উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। প্রতিদিন একটি করে টমেটো খান।

  • বেদানা (Pomegranate)

বেদানা (Pomegranate)

প্রতিদিন একটি করে বেদনার বা বেদানার রস খেলে হাই ব্লাড প্রেসার কমে যায়।

  • উচ্ছে (Bitter gourd) 

উচ্ছে (Bitter gourd) 

উচ্ছে উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের জন্য খুব উপকারী। এটি উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণগুলি নিরাময় করে।

  • গোলমরিচ (Black Pepper) 

গোলমরিচ (Black Pepper) 

যখন রক্তচাপ বেড়ে যায়, তখন এক চা চামচ কালো মরিচের গুঁড়া আধা গ্লাস হালকা গরম জলে মিশিয়ে নিন। প্রতি দুই ঘন্টা পর এটি পান করুন। এটি উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণগুলি চিকিৎসা করতে সাহায্য করে।

  • আমলা (Amla)  

আমলা (Amla)  

এক চামচ আমলার রস এবং মধু মিশিয়ে খেলে হাই ব্লাড প্রেসারের রোগীদের জন্য উপকারি।

Read more: মাইগ্রেনের সমস্যা

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

Q. স্বাভাবিক ব্লাড প্রেসার রেট কত? 

A.  ১২০/৮০।

Q. হাই ব্লাড প্রেসার কাকে? 

A. স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি মাত্রায় রক্তচাপ হলে তাকে হাই ব্লাড প্রেসার বলে।

Q. হাই ব্লাড প্রেসারের কারণ কি? 

A. ভারসাম্যহীন ডায়েট, ধূমপান, স্থূলতা, ধমনী দুর্বলের কারণে হয়।

Q. হাই ব্লাড প্রেসারের লক্ষণ কি? 

A. তীব্র মাথা ব্যথা, শ্বাস নিতে অসুবিধা, বুকে ব্যথা, ঝাপসা দৃষ্টি ইত্যাদি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here