মাইগ্রেনের সমস্যাঃমাইগ্রেনের সমস্যা থেকে মুক্তির উপায়

মাইগ্রেনের সমস্যা কি

মাইগ্রেনের সমস্যা বর্তমানে বেশি দেখা যাচ্ছে। পুরুষদের তুলনায় মহিলারা এই সমস্যায় বেশি ভুক্তভোগী। মাইগ্রেন হল একধরনের তীব্র মাথা ব্যথা। ইদানীং ৩০ শতাংশ মানুষ এই রোগে আক্রমণ। মাইগ্রেন জেনেটিক রোগ, যা পরিবারে বংশপরম্পরায় প্রবাহিত হতে দেখা যায়। আবার সব মাথা ব্যথা মাইগ্রেনের ব্যথা নয়। মাইগ্রেনের ব্যথা সাধারণত মাথার দুপাশে হয় অথবা অনেক সময় একপাশে হয়। সাধারণ মাথা ব্যথা এবং মাইগ্রেনের ব্যথার মধ্যে পার্থক্য রয়েছে।

২০ বছর বয়স থেকে ৩০ বছর বয়সে মাইগ্রেনের সমস্যা শুরু হতে দেখা যায়। কিন্তু কীভাবে বুঝবেন আপনার মাইগ্রেনের সমস্যা রয়েছে বা কীভাবে এই রোগটি থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব? এর জন্য আজকের নিবন্ধটিতে আমরা আপনাদের জানাব মাইগ্রেন সমস্যার বিস্তারিত তথ্য এবং তার থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়।

মাইগ্রেনের সমস্যা কি

সূত্র :- nuccawellnesschicago . com

মাইগ্রেনের সমস্যা কি?

মাইগ্রেন একধরণের মাথা ব্যথা, যা মাথার একপাশ থেকে শুরু হয়ে মাথার চারপাশে ছড়িয়ে যায়। আবার কারও কারও দুপাশে মাথা ব্যথা দেখা যায়। এটি একটি স্নায়বিক অবস্থা যা একাধিক উপসর্গ হতে পারে।

মস্তিষ্কের বহিঃস্তরে যে ধমনিগুলি রয়েছে তা মাইগ্রেন ব্যথার শুরুতে স্ফীত হয়ে যায়। যার ফলে প্রচণ্ড মাথা ব্যথা শুরু হয়।

সারকথাঃ

মাইগ্রেন একটি প্রাইমারি মাথাব্যথা, যা নিয়মিত চিকিৎসার মাধ্যমে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

মাইগ্রেনের সমস্যা কেন হয়?

মাইগ্রেনের সমস্যা কেন হয়

সূত্র :- med.stanford . edu

মাইগ্রেন কেন হয় তার সঠিক তথ্য পাওয়া সম্ভব হয়নি, তবুও ডাক্তারের ধারণা মতে, কয়েকটি কারণে মাইগ্রেনের সমস্যা দেখা যায়। যদিও এটা বংশপরম্পরায় রোগ।

  • মাত্রা অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার, মশলা এবং নোনা খাবার খাওয়া।
  • দীর্ঘক্ষণ ধরে কম্পিউটার সামনে বসে কাজ করা।
  • দীর্ঘ সময় ধরে সূর্যের নীচে থাকা।
  • মাত্রাতিরিক্ত কফি, পনির খাওয়া।
  • অত্যধিক পরিমাণে মানসিক চাপ।
  • হরমোনাল পরিবর্তনের জন্য।
  • ঘুম নিদর্শন পরিবর্তন।
  • অতিরিক্ত মদ এবং ধূমপান করা।
  • প্রবল দুশ্চিন্তার কারনে।
  • দীর্ঘক্ষণ বসে টিভি দেখা এবং মোবাইলে কথা বলা।

মাইগ্রেনের সমস্যার লক্ষণঃ

মাইগ্রেনের সমস্যার কয়েকটি লক্ষণ রয়েছে, যা দেখলে বোঝা সম্ভব মাইগ্রেনের সমস্যা। মাথা ব্যথা শুরু হওয়ার আগে মাইগ্রেনের এই লক্ষণগুলি এক বা দুইদিন আগে দেখা যেতে পারে।

  • কাজে মনোযোগ নষ্ট হতে পারে।
  • বমি বমি ভাব।
  • বিষণ্ণতা ভাব।
  • বার বার খিদে পাওয়া।
  • বিরক্তবোধ হওয়া।
  • শব্দ এবং আলোর প্রতি বিরক্তবোধ।
  • অতিরিক্ত হাই তোলা।
  • মাথা ঘোরা বা দুর্বল বোধ।
  • মাথার সামনে, পিছনে অথবা ডানদিকে ব্যথা।
  • ঘাড় শক্ত হয়ে যাওয়া।
  • ক্লান্তি ভাব।
  • কোষ্ঠকাঠিন্য।

এই সমস্ত লক্ষণগুলি দেখা গেলে ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

ঘরোয়া পদ্ধতিতে মাইগ্রেনের চিকিৎসাঃ

ঘরোয়া পদ্ধতিতে মাইগ্রেনের চিকিৎসাঃ

সূত্র :- a360-wp-uploads.s3.amazonaws . com

কিছু ঘরোয়া উপায়ে মাইগ্রেনের সমস্যা কম করা যেতে পারে।

  • বাদাম স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভালো। নিয়মিত কাঠ বাদাম জলে ভিজিয়ে রাতে ৪-৫ টি করে খান এবং আপনি চাইলে বাদাম ভেজানো জলও খেতে পারেন।
    এক কাপ জলে এক টেবিল চামচ ধনে বীজের গুঁড়ো নিয়ে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সকাল বেলা এই জলটি পান করবেন। অসুস্থতা ভাব কমে যাবে।
  • এক মুঠো দূর্বা ঘাস নিন। এবার ঘাসটি ভালো করে ব্লেন্ড করুন যতক্ষণ না পর্যন্ত ঘাস থেকে রস বেরায়। এবার দূর্বা ঘাসের রসটি ছেঁকে নিয়ে তার মধ্যে যষ্টি মধুর গুঁড়ো নিয়ে রসটি ভালোভাবে মিশ্রিত করুন। এবার এই রসটি নিয়মিত একমাস বিকালে পান করুন ।
  • ডাক্তারের চিকিৎসার পাশাপাশি এই ঘরোয়া উপকরণগুলি অনুসরণ করলে মাথাব্যথা থেকে অনেকটা রেহাই পাবেন।
মাইগ্রেন থেকে রেহাই পাওয়ার কিছু টিপসঃ

কয়েকটি নিয়ম অবলম্বন করলে মাইগ্রেনের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। মাইগ্রেন থেকে দূরে থাকতে নীচে দেওয়া সতর্কতাগুলি মেনে চলার চেষ্টা করুন-

  • যাদের মাইগ্রেনের সমস্যা নেই তারা চা এবং কফি অল্প পরিমাণে খান এবং যাদের মাইগ্রেনের সমস্যা রয়েছে তারা চা এবং কফি খাওয়া বন্ধ করুন।
    বেশি মানসিক চাপ নেবেন না।
  • নিয়মিত সময় করে ঘুমান এবং নিয়মিত সাত- আত ঘণ্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন।
  • নিয়মিত সকালে ফ্রেশ মনে হাঁটাচলা করবেন।
  • মশলাযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন।
  • তীব্র ঠাণ্ডা বা কড়া রোদে থাকবেন না।
  • বেশি সময় ধরে কম্পিউটারে কাজ করবেন না।
  • দীর্ঘক্ষণ টিভি দেখা বন্ধ করুন।
  • মাথাব্যথা হলে প্রচুর জল খান এবং বিশ্রাম করুন।
  • রোদে বেরানোর সময় সানগ্লাস পড়বেন।
  • ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন “ডি” যুক্ত খাবার খাবেন।
  • বেশি করে আপেল, কলা, বাদাম, গম জাতীয় খাবার খান।
  • সবুজ শাক সবজি খান।
  • ঠিকমতো ঔষধ খান।

মাইগ্রনের সমস্যার লক্ষণ এবং তার চিকিৎসা জানা হয়ে গেলেও এবার একটু সতর্কতা মেনে চলুন এবং ডাক্তারের পরামর্শ মতো চললেই নিজে সুস্থ হয়ে উঠতে পারবেন।

সারকথাঃ

নিয়মিত চিকিৎসা মাইগ্রেনের সমস্যা থেকে মুক্তির উপায়।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ
  • মাইগ্রেন সমস্যা থেকে কি মুক্তি পাওয়া সম্ভব?
  • সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে সম্ভব।
  • শুধু ঘরোয়া উপায়ে কি মাইগ্রেনের সমস্যা কমানো যাবে?
  • চিকিৎসার পাশাপাশি ঘরোয়া টোটকাগুলি অনুসরণ করলে উপকৃত হবেন।
  • যাদের মাইগ্রেনের সমস্যা তাদের কি কফি খাওয়া একদমই বারণ?
  • মাইগ্রেন অধিকারী ব্যক্তিদের চা ও কফির থেকে দূরে থাকাই ভালো।
  • মাইগ্রেনের সমস্যা হলে কি বমি বমি ভাব পায়?
  • মাইগ্রেনের সমস্যায় মাথাব্যথার সঙ্গে বমি বমি ভাব পায়।
  • মাইগ্রেনের হলে মশলাযুক্ত খাবার খাওয়া কি একদমই বারণ?
  • মশলাযুক্ত খাবার যতটা পারবেন না খাওয়ার ট্রাই করবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here