ত্বক, চুল ও স্বাস্থ্যের জন্য নিম পাতার উপকারিতা

নিম পাতার পুষ্টিগুণের উপকারিতা

নিম পাতা শতাব্দী প্রাচীন থেকে সৌন্দর্য প্রতিকার। নিম গাছটি আয়ুর্বেদে প্রকৃতির ফার্মেসি হিসাবে পরিচিত। গাছটি প্রধানত ভারতীয় উপমহাদেশে বৃদ্ধি পায় কিন্তু এখন সারা বিশ্বে একই রকম আবহাওয়ায় চাষ করা হচ্ছে। কারণ নিম পাতার উপকারিতা রয়েছে। স্বাস্থ্যের পাশাপাশি ত্বক এবং চুলের জন্য বহুমুখী উপকারিতা পাওয়া যায়।

Read more: নিমপাতার গুণাগুণ

নিম পাতা

নিম পাতা (Neem leaves) 

নিম হল একপ্রকার চিরসবুজ বৃক্ষ, যা ভারতের আয়ুর্বেদিক ঔষধ হিসাবে বিবেচিত হয়।  নিমের নির্যাস দীর্ঘদিন ধরে হাঁপানি, কোষ্ঠকাঠিন্য, কাশি, ডায়াবেটিস, গ্যাস্ট্রিক আলসার, বদহজম সহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য-সংক্রান্ত কাজে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

আয়ুর্বেদ জগতে, নিম একটি জনপ্রিয় ঔষধি, যা প্রায় 5000 বছর আগের ঐতিহ্যগত প্রতিকারের অংশ। নিম পাতা এন্টি-ভাইরাল এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বিরোধী- যার কারণে এটি সংক্রমণ এবং ত্বকের যেকোনো সমস্যায় কাজ করে।

Read more: মেথি শাকের উপকারিতা

নিম

নিম কি জন্য ব্যবহার করা হয় (What Is Neem Used For)?

নিম অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল, পোকামাকড়, দাঁতের চিকিৎসা ম্যালেরিয়া, ডায়াবেটিস, কৃমি এবং কার্ডিওভাসকুলার এবং চর্মরোগের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হয়।

নিম পাতায় কি কি পুষ্টিগুণ রয়েছে

নিম পাতায় কি কি পুষ্টিগুণ রয়েছে (nutritional value of neem leaves)

  • প্রোটিন
  • ক্যালসিয়াম
  • ভিটামিন সি
  • কার্বোহাইড্রেট
  • ফাইবার
  • নাইট্রোজেন
  • ফসফরাস
  • পটাসিয়াম

Read more: কালমেঘ পাতার উপকারিতা

নিম পাতার উপকারিতা

নিম পাতার পুষ্টিগুণের উপকারিতা (Nutritional benefits of neem leaves) 

  • প্রোটিন – শরীরের ত্বক, চুল, নখ, হাড় বিকাশে প্রোটিন প্রয়োজন।  
  • ক্যালসিয়াম – শরীরের হাড় এবং দাঁত মজবুত করতে সহায়তা করে।
  • ভিটামিন সি – হাড় ও দাঁত মজবুত রাখে এবং ঠাণ্ডার হাত থেকে রক্ষা করে ও ত্বকের জন্য উপকারী।
  • কার্বোহাইড্রেট – কার্বোহাইড্রেটগুলি আমাদের দেহে গ্লুকোজ হিসাবে দ্রুত রক্ত প্রবাহে প্রবেশ করে।
  • ফাইবার – ফাইবার হজম স্বাস্থ্য এবং নিয়মিত অন্ত্রের জন্য প্রয়োজনীয় উপাদান।
  • ফসফরাস – ফসফরাস একটি খনিজ যা দেহকে বিভিন্ন ধরণের প্রয়োজনীয় কাজগুলি সম্পাদন করা প্রয়োজন।
  • পটাসিয়াম – রক্তচাপ সঠিকভাবে বজায় থাকে এবং এটি পেশী শক্তিশালী করে।

Read more: পেঁপে গাছের পাতার রসের উপকারিতা

নিম পাতার উপকারিতা (Benefits of neem leaves) 

নিম বিভিন্ন উপায়ে উপকারী হতে পারে। শুধু স্বাস্থ্য নয় ত্বক এবং চুলের পক্ষেও নিম পাতার উপকারিতা রয়েছে।

স্বাস্থ্যের পক্ষে নিম পাতার উপকারিতা

  • স্বাস্থ্যের পক্ষে নিম পাতার উপকারিতা (Health benefits of neem leaves)

১. ডায়াবেটিসের চিকিৎসাঃ

বলা হয়ে থাকে যে, নিম পাতা খেলে চিনির মাত্রা কমায়। সেদিক থেকে নিমপাতা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য একটি চমৎকার ঔষধ। এক গবেষণায় দেখা যায়, এই গাছের পাতাগুলি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী। যদি নিয়মমাফিক এই পাতা রস খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ আনা যেতে পারে। তবে মাত্রাতিরিক্ত নয়।

২. রক্ত পরিশোধনঃ

কথায় আছে, নিমে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। অতএব, যদি এর পাতা খাওয়া হয়, তাহলে শরীরের রক্ত ​​বিশুদ্ধ হয় এবং শরীরের নোংরা ব্যাকটেরিয়াও নির্মূল হয়।

৩.কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণঃ 

নিমপাতায় ঔষধি গুণ রয়েছে। নিমপাতার রস এবং অ্যালোভেরা রস মিশিয়ে খালি পেতে পান করলে সুগার নিয়ন্ত্রণে করা সম্ভব। এছাড়াও নিম একটি রক্ত শোধক উপাদান এটি কোলেস্টেরল কম করতে সহায়তা করে।

৪. খালি পেটে নিম পাতা খাওয়ার উপকারিতাঃ

খালি পেটে নিম পাতা খাওয়ার উপকারিতা রয়েছে। তবে সারা বছর নিম পাতা খাওয়া ঠিক নয়। যাদের কৃমির সমস্যা রয়েছে তারা যদি কিছুদিন খালি পেটে নিম পাতা খেতে পারে। এছাড়াও লিভার ভালো থাকে।

দাঁতের সমস্যা:

৫.দাঁতের সমস্যা:

নিম দাঁতের ক্ষয় দূর করে এবং মাড়ির প্রদাহের চিকিৎসায় উন্নতি করে। নিমের নির্যাস মাউথওয়াশ এবং টুথপেস্টে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয় কারণ নিমের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য পেরিওডন্টাল রোগ এবং দুর্গন্ধের (হ্যালিটোসিস) চিকিৎসায় সাহায্য করে। নিমের ডাল ফুলে যাওয়া মাড়ির চিকিৎসা করতে পারে এবং নিয়মিত ব্রাশ করলে দাঁত সাদা হয়।

৬. ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করতে সাহায্য করেঃ

নিমে ঔষধি উপকারিতা রয়েছে কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলির মধ্যে একটি হল এটি ক্যান্সার কোষকে ধ্বংস করতে সাহায্য করে। নিমের নির্যাস ক্যান্সার কোষের বিস্তার রোধেও সাহায্য করতে পারে। বিশেষ করে, নিম প্রস্টেট ক্যান্সার, জরায়ুর ক্যান্সার, স্তন ক্যান্সার এবং কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধের জন্য উপকারী হতে পারে।

আপনি যদি প্রতিদিন নিম খেয়ে থাকেন, তাহলে এটি শরীরে ক্যান্সারযুক্ত কোষের সংখ্যা একটি নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে রাখে, যাতে সেগুলি আপনার সিস্টেমের বিরুদ্ধে না জড়াতে পারে।

৭. অন্ত্রের কৃমি মেরে ফেলেঃ

দীর্ঘদিন ধরে নিম পাতা কৃমিনাশক খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কৃমিনাশক খাদ্য হিসেবে নিমের প্রধান সুবিধা হল যে এটি শুধু পরজীবীকেই মেরে ফেলে না, বরং পরজীবীদের ফেলে যাওয়া বিষাক্ত পদার্থও দূর করে।

৮. আলসারঃ

একটি গবেষণা অনুসারে, নিমের ছালের নির্যাস গ্যাস্ট্রিক হাইপারাসিডিটি এবং আলসারের উপর ইতিবাচক প্রভাব দেখাতে পারে। নিমের ছালের নির্যাস আলসারের ওষুধ হিসেবে কাজ করতে পারে। নিমের অ্যান্টি -আলসার বৈশিষ্ট্য রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়, যা আলসার প্রতিরোধে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে। যদি কারও আলসারের সমস্যা থাকে, তাহলে ভালো হয় যে ব্যক্তি প্রথমে চিকিৎসা পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা নিন। এছাড়াও, ডাক্তারের পরামর্শের পরেই নিম গ্রহণ করুন।

ত্বকের পক্ষে নিম পাতার উপকারিতা

ত্বকের পক্ষে নিম পাতার উপকারিতা (Skin benefits of neem leaves)

১. ব্রণের চিকিৎসায়ঃ

অয়েলি স্কিন এবং ব্রণযুক্ত ত্বকের জন্য নিম পাতা একটি নিরাপদ উপাদান। যেহেতু নিম, ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করে, তাই ব্রণ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া থেকে মুক্ত রাখতে সাহায্য করে এবং এইভাবে ব্রণ কমাতে সাহায্য করে।

নিম পাতা থেকে নিষ্কাশিত নিম তেল মুখের অতিরিক্ত অয়েল দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন। এটিকে ফেস অয়েল হিসেবে ব্যবহার করার জন্য নিম তেলের মধ্যে অলিভ অথবা জোজোবা অয়েল মিশিয়ে নিন এবং রাতে ঘুমানোর আগে আপ্লাই করুন।

২. ত্বকের জ্বালাভাব দূর করেঃ

আপনার যদি সংবেদনশীল ত্বক থাকে এবং সহজেই ত্বকের জ্বালা হয়, তাহলে আপনাকে আপনার সৌন্দর্যের তাকের জন্য কিছু বাড়িতে তৈরি নিম ফেস প্যাক ব্যবহার করতে হবে।

নিম পাতায় প্রদাহবিরোধী বৈশিষ্ট্য, ফ্যাটি অ্যাসিড এবং গ্লিসারাইডের উচ্চ উপাদান রয়েছে যা জ্বালা এবং চুলকানি ত্বককে প্রশমিত করতে সহায়তা করে। শুধু তাই নয়, এগুলো একজিমার মতো ত্বকের গুরুতর সমস্যাও সারিয়ে তুলতে পারে।

ত্বকের দাগছোপ কমায়ঃ

৩. ত্বকের দাগছোপ কমায়ঃ

নিম পাতা শুধু ব্রণ দূর করে না বরং ত্বকের দাগছোপ দূর করতে সহায়তা করে। সপ্তাহে একদিন মুখে নিম পাতার পেস্ট লাগালে ত্বকের দাগ এবং ব্রণের দাগ দূর করতে পারবেন এবং দাগহীন ত্বক পেতে পারেন। একটেবিল চামচ নিম পাতার গুঁড়ো, লেবুর রস এবং এক চিমটি হলুদ মিশিয়ে সপ্তাহে একবার আক্রান্ত স্থানে লাগান। শুকিয়ে এলে পরিষ্কার করে ময়শ্চারাইজ ব্যবহার করুন।

৪. অ্যান্টি-এজেনিংঃ

নিম পাতাগুলি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ময়শ্চারাইজিং ট্রাইগ্লিসারাইড এবং ভিটামিন ই-তে পরিপূর্ণ, যা অ্যান্টি-এজিংয়ের কাজ করে। এগুলি বলিরেখা কম করে এবং আপনার ত্বককে ইয়ং লুক দেয়। কোলাজেন বাড়ানো এবং ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বৃদ্ধির পাশাপাশি, তারা সূর্যের সংস্পর্শ এবং অতিবেগুনী বিকিরণের কারণে ত্বককে বার্ধক্যজনিত লক্ষণ থেকে রক্ষা করে।

নিমের পেস্ট এবং চন্দনের গুঁড়ো দিয়ে একটি নিম ফেস প্যাক প্রস্তুত করুন এবং সপ্তাহে দুবার ব্যবহার করুন তারুণ্য এবং উজ্জ্বল ত্বক বজায় রাখতে।

নিম প্রয়োজনীয় পুষ্টি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। তা ছাড়া, এটি ভিটামিন ই এবং প্রদাহ বিরোধী উপাদানগুলিরও একটি ভাল উৎস।

চুলের জন্য নিম পাতার উপকারিতা

চুলের জন্য নিম পাতার উপকারিতা (Hair benefits of neem leaves)

১. খুশকির চিকিৎসাঃ

খুশকি দূর করতে অনেকেই নিম পাতার উপর ভরসা রাখেন। কারণ মাথার স্ক্যাল্প সংক্রমণ এবং খুশকির জন্য একটি প্রাকৃতিক প্রতিকার। নিমে অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা খুশকি দূর করতে সহায়তা করে এবং আপনার মাথার ত্বককে ময়শ্চারাইজড এবং সুস্থ রাখে।

খুশকি দূর করতে কয়েকটি নিম পাতা জলে ফুটিয়ে নিন। জল ঠাণ্ডা হয়ে গেলে শ্যাম্পু করার আগে জল দিয়ে স্ক্যাল্প পরিষ্কার করে নিন। ১০ মিনিট মাসাজ করে অ্যান্টি-ড্যান্ড্রাফ শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। সপ্তাহে দুদিন আপ্লাই করলে উপকার পাবেন।

চুল পাকা রোধ করেঃ

২. চুল পাকা রোধ করেঃ

বর্তমানে অল্পবয়সীদের চুল পাকার প্রবণতা সবচেয়ে বেশি। আপনারও যদি তেমন সমস্যা থেকে থাকে তাহলে নিম পাতার সাহায্য নিতে পারেন। হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, সূর্যের ক্ষতি এবং মানসিক চাপের কারণে  অকালে পেকে যাওয়া চুল নিম পাতায় থাকা উচ্চ মাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রোধ করে।

পাকা চুল রোধ করতে নিম পাতার গুঁড়ো আধা কাপ দইয়ে সঙ্গে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি প্যাক হিসাবে চুলে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে নিন।

৩. চুলের বৃদ্ধিঃ

নিম পাতার অনেক উপকারের মধ্যে রয়েছে চুলের ফলিকলকে শক্তিশালী করা এবং একই সাথে চুল পড়া কমানো। এর ফল হল সুন্দর, মজবুত এবং স্বাস্থ্যকর চুল। নিমের তেল ঘন লম্বা চুল ফিরে পেতে কাজ করে। নিম পাতার পেস্ট এবং  নারকেল তেল দিয়ে তৈরি চুলের মাস্ক সপ্তাহে একদিন ট্রাই করে দেখুন। এটি চুল পড়া কমাতে এবং চুল পুনরায় বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে।

 

Frequently asked questions

Q. প্রতিদিন নিমের রস পান করা উচিত? 

A. হ্যাঁ. প্রকৃতপক্ষে, প্রতিদিন নিমের রস পান করা ত্বক এবং চুল উভয়ের জন্যই অত্যন্ত উপকারী। এটি টক্সিন, ব্যাকটেরিয়া এবং ব্রণ থেকে মুক্তি দেয়, ত্বক পরিষ্কার করে এবং পিগমেন্টেশন এবং ব্ল্যাকহেডসেও কার্যকর।

Q. কাদের নিম খাওয়া উচিত নয়? 

A. শিশুদের বা গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা উচিত নয়।

Q. নিম কি রক্তচাপ কমায়?

A. নিম পাতার অ্যান্টিহিস্টামিন প্রভাব রক্তনালীগুলিকে প্রসারিত করতে পারে। এই কারণে এই পাতাগুলি রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করতে পারে। এক মাসের জন্য নিমের নির্যাস বা ক্যাপসুল গ্রহণ করলে উচ্চ কোলেস্টেরলের মাত্রাও কমতে পারে।

Leave A Reply

Please enter your comment!
Please enter your name here