নবজাতক শিশুর ত্বকের যত্ন এর টিপস

শিশুর ত্বকের যত্ন

শিশুর ত্বকের যত্ন

বাচ্চাদের ত্বক খুব নরম হয়, যার জন্য তার সঠিকভাবে দেখাশুনো করা অনেক জরুরী। যখন একটি শিশু জন্ম নেয় তখন তাদের ত্বক সবচেয় সুন্দর হয়। তাই ছোট বয়স থেকে পিতামাতার উচিত প্রতিটি শিশুর ত্বকের যত্ন নেওয়া। কারণ ছোট থেকে ত্বকের যত্ন নেওয়া শুরু করলে পুরো জীবন তাদের ত্বক সুরক্ষিত থাকতে পারে।

সন্তান জন্ম দেওয়ার পর থেকেই বাবা মা খুব চিন্তিত থাকেন শিশুর ত্বকের যত্ন নিয়ে। তাই তাদের জন্য আমাদের আজকের এই নিবন্ধ। কারণ আমরা আজকের এই নিবন্ধে শিশুদের ত্বকের যত্ন কেমন ভাবে নেওয়া উচিত আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করে নেব। আসুন তাহলে জেনে শিশুর ত্বকের যত্ন নেওয়া কয়েকটি অসাধারণ টিপস।

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন, শিশুদের জন্য স্বাস্থ্যকর খাবার এ কী কী রাখা জরুরী

শিশুর ত্বকের যত্ন নেবেন যেভাবেঃ

শিশুর ত্বকের যত্ন নেবেন যেভাবেঃ

সূত্র:- thestuffofsuccess . com

নতুন পিতামাতার কাছে একটু কঠিন ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায় শিশুর ত্বকের যত্ন রাখা। কারণ শিশুদের ত্বকে আমরা কোনও কসমেটিক প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে পারি না অথবা পরীক্ষা করে দেখতে পারি না কোন পণ্যটি তার জন্য পারফেক্ট হবে। তাই তাদের যত্নে বাড়তি কড়া নজর রাখতে হবে।

  1. শিশুর ত্বক পরিষ্কার রাখাঃ

শিশুর ত্বক পরিষ্কার রাখাঃ

সব বাবা মায়েরাই তাদের বাচ্চাদের ভালোভাবে যত্ন নেয়। তবে নবজাতক শিশুদের ত্বক সাধারণত মোমের মতো নরম হয় এবং মোমের মতো সাদা স্তর থাকে। এটি জন্মের প্রথম সপ্তাহ থেকে ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেতে থাকে। এটি একটি প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া, তাই এই স্তরটি সরাতে ত্বক ঘষা বা কোন ক্রিমের প্রয়োজন নেই। তবে জন্মের প্রথম সপ্তাহ থেকে শিশুর মুখ এবং ডায়পার অংশে পরিষ্কার করার জন্য বিশেষ মনোযোগ দিতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ ত্বক এবং চুলের জন্য আমন্ড অয়েলের উপকারিতা

  1. শিশুর স্নানঃ

শিশুর স্নানঃ

সূত্র:- bloomingbath . com

প্রয়োজনের চেয়ে বেশি স্নান করালে শিশুর ত্বকে প্রাকৃতিক তেল দূর হয়ে যেতে পারে। যার ফলে ত্বক অতিরিক্ত শুষ্ক হয়ে যেতে পারে। তাই সপ্তাহে ৩-৪ বার স্নান করানোই যথেষ্ট। এছাড়া এটা লক্ষ্য রাখতে হবে স্নানের সময় হালকা সাবান এবং হালকা গরম জল ব্যবহার করা উচিত। স্নানের পর বাচ্চাদের ত্বক পরিষ্কার করার জন্য নরম তোয়ালে অথবা কাপড় ব্যবহার করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ ভেষজ চিকিৎসাঃ শুষ্ক ত্বকের জন্য ৬ টি ভেষজ চিকিৎসা

  1. পাউডার ব্যবহারঃ

পাউডার ব্যবহারঃ

সূত্র:- cdn.firstcrycdn . com

স্নানের পর বাচ্চাদের ত্বক ভালো রাখতে পাউডার ব্যবহার করতে পারেন। তবে খেয়াল রাখবেন সেটা যেন বেবি পাউডার হয়। অন্য পাউডার বাচ্চাদের ত্বকে ক্ষতি করতে পারে।

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন ঘরোয়া পদ্ধতিতে রূপচর্চা অসাধারণ টিপস

  1. ডায়পার র‍্যাশ থেকে সচেতনঃ

ডায়পার র‍্যাশ থেকে সচেতনঃ

এখন বাচ্চাদের ডায়পার পরানো হয় যা থেকে তাদের স্কিন র‍্যাশ অথবা অ্যালার্জির সমস্যা হতে পারে। ডায়পার থেকে শিশুদের র‍্যাশ হওয়ার একমাত্র কারণ দীর্ঘক্ষণ ডায়পার পরিয়ে রাখার জন্য। তাই বাবা মায়েদের এদিক থেকে একটু সচেতন হতে হবে। সময়মতো শিশুদের ডায়পার পাল্টানো প্রয়োজন। আর অবশ্যই খেয়াল রাখবেন আপনার শিশুর ডায়পার যেন ভালো মানের হয়।

  1. শিশুদের ত্বকের সমস্যাঃ

শিশুদের ত্বকের সমস্যাঃ

অনেক সময় বাচ্চাদের ত্বকে ফুসকুড়ি বা অন্য কোন সমস্যা দেখা যায়। শিশুদের ত্বকের কোন রকম সমস্যা হলে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে। ডাক্তারের পরামর্শ মতো চলতে হবে।

আরও পড়ুনঃ ছেলেদের পায়ের যত্নঃ পুরুষদের পায়ের যত্নের টিপস

  1. তেল মালিশঃ

তেল মালিশঃ

বাচ্চাদের হাড় মজবুত করার সবচেয়ে ভালো উপায় হল তেল মালিশ। এর জন্য আপনি প্রাকৃতিক তেল ব্যবহার করতে পারেন। প্রাকৃতিক তেল দিয়ে শিশুদের হালকা মালিশ করলে হাড় মজবুত হওয়ার পাশাপাশি ত্বক ময়শ্চারাইজ করে।

তেল মালিশ করার জন্য খাঁটি সরিষার তেল, নারকেল তেল, জলপাইয়ের তেল, বাদামের তেল ব্যবহার করতে পারেন। তবে খাঁটি তেল ব্যবহার করবেন। বাজারে সাধারণ তেল বাচ্চাদের ত্বকের ক্ষতি করতে পারে।

  1. সূর্যের রোদের হাত থেকে শিশুকে রক্ষা করুনঃ

সূর্যের রোদের হাত থেকে শিশুকে রক্ষা করুনঃ

শিশুদের সূর্যের রোদ থেকে ত্বকের সমস্যা হতে পারে। তাই নবজাতকে শিশুদের সূর্যের হাত থেকে দূরে সরিয়ে রাখা ভালো। বাবা মায়েদের বিশেষ নজর দেওয়া উচিত যখন শিশুকে বাইরে বের করবে। সূর্যের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য শিশুদের ফুল হাতা জামা, প্যান্ট এবং মাথায় টুপি পরিয়ে বের করানো উচিত।

আরও পড়ুনঃ চুল এবং ত্বকের যত্নে মেথি ব্যবহারের উপকারিতা

এছাড়া শিশুদের জামা কাপড় সবসময় পরিষ্কার করে রাখতে হবে এবং নরম সুতির জামাকাপড় পরাতে হবে। বেবি সাবান এবং শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে। শিশুদের ত্বকের যত্ন নেওয়া প্রত্যেক বাবা মার প্রয়োজন। তাদের ত্বক খুব নরম তাই কোন ক্ষতিকারক ক্রিম থেকে এড়িয়ে চলুন।

সারকথাঃ

শিশুদের ত্বকের সৌন্দর্য বজায় রাখার জন্য বাড়তি যত্নের প্রয়োজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here