বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতাঃ বিকালে দৌড়ানো সত্যিই কি উপকার?

বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা

বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা

সূত্র:- hindustantimes . com

অনেকেই আলসেমির কারনে সকালে জগিং বা দৌড়াতে যেতে চান না। তারা বিকালে দৌড়ানোর অভ্যাস করতে পারেন। কিন্তু অধিকাংশ মানুষের একটি ভুল ধারণা রয়েছে, যে বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা নেই । বিকালে দৌড়ানো কি সত্যিই উপকার ? সকালে দৌড়ানোর উপকারিতা যেমন সর্বোত্তম তেমনি বিকালে দৌড়ানোও কার্যকর । বিকালে দৌড়ানোর অনেক সুবিধাও রয়েছে । আসুন তাহলে জেনে নিই বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা এবং তার সুবিধাগুলি সম্পর্কে।

বিকালে দৌড়ানোর সুবিধা

জীবনে ব্যস্ততার জন্য আমরা নিজেদের ফিট রাখতে পারি না । কাজের থেকে দেরিতে আসার কারনে অথবা দিনের অন্যান্য কাজের জন্য আমরা নিজেদের খেয়াল রাখতে ভুলে যাই । তবে সব ব্যস্ততার মধ্যে নিজে একটু ফিট থাকতে চাইলে দৌড়ানো খুব ভালো উপায়। দিনের যেকোনো সময় আপনি দৌড়াতে পারেন। এখানে বিকালে দৌড়ানোর সুবিধা দেওয়া রইল-

o দীর্ঘক্ষণ সময় –

দীর্ঘক্ষণ সময়

সকালে ব্যস্ততার বা অফিস যাওয়ার ব্যস্ততা কারনে বেশি টাইম নিয়ে দৌড়ানো যায় না । কিন্তু বিকালে বা সন্ধ্যে সময়টা দীর্ঘক্ষণ সময় ধরে দৌড়ানো যায়।

o সন্ধ্যে শীতল আবহাওয়া –

দিনের অন্যান্য সময় তুলনায় সন্ধ্যে ঠাণ্ডা বাতাসে আরামদায়ক পরিবেশে চিন্তা মুক্ত ভাবে দৌড়ানো সম্ভব । বিশেষত গরমে, যারা অস্বস্তিকর বোধ করেন অথবা যারা ত্বক নিয়ে সচেতন তাদের ক্ষেত্রে বিকালে দৌড়ানো একটি ভালো মাধ্যম।

o দলগতভাবে দৌড়ানোর সুবিধা –

দলগতভাবে দৌড়ানোর সুবিধা

সূত্র:- buttondowndash . com

বিকালে দৌড়ানো একটি সুবিধা হল দলগতভাবে দৌড়ানোর সুবিধা থাকে। কারণ আলসেমি বা ঘুমের জন্য অনেকেই সকালে দৌড়ানোর পক্ষপাতী নন । তাই বিকালে বন্ধু বান্ধবদের সঙ্গে দৌড়ানোর সুযোগ থাকে । এতে দৌড়ানোর জন্য এনার্জি বেশি পাওয়া যায়।

o প্রস্তুত হওয়ার সময় –

দিনের অন্যান্য সময়ের তুলনায় বিকালে দৌড়ানোর জন্য ঠাণ্ডা মাথায় প্রস্তুত হওয়া যায়।

বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা

1. গভীর ঘুম হয় –

গভীর ঘুম হয়

সূত্র:- media.istockphoto . com

নিয়মিত ব্যায়াম অনেক উপায়ে ঘুম উন্নতি ঘটায়। কিন্তু নিয়মিত দৌড়ানো আপনাকে আরও দ্রুত ঘুমানোর ক্ষেত্রে সহায়তা করবেই না বরং এটি গভীর ঘুম হতে সাহায্য করে এবং রাতে জেগে থাকার প্রবণতা কমিয়ে দেয় । তাই যদি আপনার রাতে জেগে থাকার বা অনিদ্রার প্রবণতা থাকে তাহলে বিকালে দৌড়ানোর অভ্যাস করুন।

সুপারিশ নিবন্ধন :-

2. চাপ থেকে বাঁচুন –

মানসিক চাপ শুধুমাত্র সকালে দৌড়ানো বা ব্যায়ামেই কমে না। বিকালে দৌড়ানো মানসিক চাপ থেকে রেহাই পাওয়া যায় । বিকালে নিয়মিত ১ ঘণ্টা দৌড়ানোর ফলে মানসিক স্ট্রেস মুক্ত হয়।

3. ডায়াবেটিস কমাতে বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা –

ডায়াবেটিস কমাতে বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা

সবার মনে একটি ভুল ধারণা থাকে যে সকালের দৌড়ানোতেই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। কিন্তু আপনি জানেন কি বিকালে দৌড়ানোও ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকার।

অনেক সময় ব্যস্ততার জন্য বাড়ির মহিলারা সকালে ওয়াকাআউটে বেরাতে পারেন না । তারা নিশ্চিন্তে বিকালে ওয়াকআউট যেতে পারেন ।

4. শরীরে এনার্জি বৃদ্ধি করে –

বিকালে দৌড়ানোর ফলে রাতে গভীর ঘুম হয়, যার ফলে পরের দিন সকালে ফ্রেশ লাগে এবং কাজে এনার্জি শক্তি বাড়ে।

5. ওজন কমানো জন্য বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা –

ওজন কমানো জন্য বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা

ওজন কমানো জন্য ব্যায়াম কতটা সহায়তা করে তা আমরা প্রায় সবাই জানি। ওজন কমানোর জন্য ব্যায়াম খুবই কার্যকারী । তাই বলে সকালে দৌড়াতে হবে তা নয়, ওজন কামানোর জন্য আপনি বিকালে দৌড়ানোর উপকারিতা অনেক । নিয়মিত ৩০ মিনিট বা এক ঘণ্টা বিকেলে দৌড়ালে ওজন হ্রাস হয়।

তাহলে দেখলেন তো বিকেলে দৌড়ানোরও উপকার অনেক। তাহলে যদি ব্যস্ততার কারনে সকালে দৌড়াতে না পারেন তাহলে অবশ্যই আজ থেকে বিকেলে দৌড়ানোর অভ্যাস গড়ে তুলুন।

সারকথাঃ
যারা অফিসে দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করে , তারা বিকেলে দৌড়ানো ফলে উপকার লাভ করে । বিকেলে দৌড়ানোর ফলে মানসিক চাপ মুক্ত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here