ত্বকের যত্নে সরিষার তেল ব্যবহারের আশ্চর্যজনক উপকারিতা

ত্বকের যত্নে সরিষার তেলের উপকারিতাঃ

সরিষার বীজ থেকে সরিষার তেল পাওয়া যায়। শুধু রান্নাতেই নয়, ত্বকের যত্নে সরিষার তেল এর গুনের বর্ণনা দিয়ে শেষ করা যাবে না। এই তেলটি আপনার ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্য সহায়ক। এটি ত্বকের ইনফেকশনের সঙ্গে লড়াই করে, শুষ্ক ত্বক তরতাজা করে তোলে পাশাপাশি স্ক্রিনের সমস্ত রকম সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়। সরিষার তেল সৌন্দর্যের গোপন ঔষধ।

রূপটানে রয়েছে সরিষার তেলের অপরিহার্য ভূমিকা। ত্বকের পাশাপাশি চুলের যত্নে এটি কার্যকর। এই তেল ওমেগা আলফা ৩, ওমেগা আলফা ৬ ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন ই ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ উৎস। এর জন্য সরিষার তেলকে আয়ুর্বেদিক তেল হিসাবে গণ্য করা হয়ে থাকে। চলুন জেনে নিই ত্বকের যত্নে সরিষার তেল ব্যবহারের উপকারিতা।

গুরুত্বপূর্ণ নোটসঃ
সরিষার তেল ব্যবহারের আগে আপনাকে সচেতন হতে হবে। আপনি যে সরিষার তেলটি ত্বকে ব্যবহার করবেন ওটা খাটি তো? কারণ ভেজাল তেল ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি করে দিতে পারে।

ত্বকের যত্নে সরিষার তেলের উপকারিতাঃ

সূত্র :- https://www.betrendsetter . com/proven-benefits-of-mustard-oil-for-hair-and-skin/

ত্বকের যত্নে সরিষার তেলের উপকারিতাঃ

1. রোদে পোড়া ত্বকে ঔজ্জ্বল্যতা আনেঃ

সরিষার তেলে উপস্থিত অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, আলট্রাভায়োলেট রশ্মির হাত থেকে ত্বককে সুরক্ষা দেয়। পাশাপাশি রোদে পোড়া ত্বকে ঔজ্জ্বল্যতা ফিরিয়ে আনে।

টোটকাঃ-

১ চামচ সরিষার তেল ও নারকেল তেল মিশিয়ে ১০- ১৫ মিনিট ত্বকে মাসাজ করুন। এবার একটি ভেজা টিস্যু দিয়ে মুখটি মুছে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে আপনার রোদে পোড়া ত্বকে ঔজ্জ্বল্যতা ফিরে আসবে।

2. সান্সক্রিমের কাজ করেঃ

এই তেলে রয়েছে ভিটামিন সি, যা সূর্যের সুরক্ষার এজেন্ট হিসাবে কাজ করে। ত্বককে দূষিত পদার্থের হাত থেকে রক্ষা করে এবং স্ক্রিন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

টোটকাঃ-

সান্সক্রিম লোশানের পরিবর্তে এই তেল ব্যবহার করতে পারেন। নিয়মিত অ্যাপ্লাই করলে সূর্যের ইউ ভি রশ্মির হাত থেকে স্ক্রিনকে বাঁচানো সম্ভব।

ত্বকের কালো দাগ রিমুভ করতেঃ

সূত্র :- awesomecares . com

3. ত্বকের কালো দাগ রিমুভ করতেঃ

ত্বকের কালো দাগকে কি চিরতরে বিদায় জানাতে চান? তালে নিঃসন্দেহে ব্যবহার করতে পারেন এই অয়েলটি।

টোটকাঃ-

কয়েক ফোঁটা মধু ও কিছুটা চন্দনের গুড়ো নিয়ে সরিষার তেলে সঙ্গে মিশিয়ে একটি পেস্ট রেডি করে নিন। এবার পেস্টটি হালকা করে পুরো মুখে লাগিয়ে মাসাজ করে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে নিন। সপ্তাহে ২- ৩ বার ব্যবহারে ভালো ফল অব্যশই পাবেন।

সুপারিশ নিবন্ধন :- 

4. ত্বকের র‍্যাশ প্রতিরোধ করেঃ

ত্বকের যত্নে সরিষার তেল শুধুমাত্র অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল বা অ্যান্টি ফ্যাঙ্গাল নয়, এটি অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরিও হতে পারে। নিয়মিত এই তেল মাসাজ করলে ত্বকে রক্ত সঞ্চালনের পাশাপাশি ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখে।

টোটকাঃ-

নিয়মিত স্নানের আগে এই তেলটি বডিতে মাসাজ করুন।

ত্বকের বলিরেখা দূর করেঃ

5. ত্বকের বলিরেখা দূর করেঃ

সরিষার তেলে ওমেগা আলফা ৩ এবং ৬ ফ্যাটি অ্যাসিড মুখের ত্বককে টানটান রাখতে সাহায্য করে। পাশাপাশি বলিরেখা পড়তে বাঁধা দেয়।

টোটকাঃ-

রোজ স্নানের আগে ত্বকে সরিষার তেল বডি মাসাজ হিসাবে ব্যবহার করুন। আপনার ত্বক সতেজ থাকবে।

6. ব্রণ চিকিৎসাঃ

সরিষার তেলের মধ্যে রয়েছে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড যা ব্রণ নিরাময় করার ক্ষমতা রাখে। এই তেলে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি সমৃদ্ধ। যা পিম্পেলে প্রতিরোধ করার সঙ্গে লড়াই করে।

টোটকাঃ

একটি প্যানে নারকেল তেল ও সরিষার বীজ নিয়ে গরম করুন। এবার মিশ্রণটি ঠাণ্ডা করে একটি পাত্রে ঢেলে রাখুন।
প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে এই তেলটি মুখে মাসাজ করুন। কিছু সপ্তাহের মধ্যেই অসাধারণ ফল দেখতে পাবেন। এবং আপনি গর্বের সাথে ব্রণকে বিদায় জানাতে পারবেন।

 ঠোঁটের যত্নে সরিষার তেলের উপকারিতাঃ

সূত্র :- wellordie . com

 

7. ঠোঁটের যত্নে সরিষার তেলের উপকারিতাঃ

শীতকালে ঠোঁট ফাটা একটি বড় সমস্যা। লিপবামে এই সমস্যার থেকে হালকা মুক্তি পেলেও ঠোঁটে কিন্তু সেই রুক্ষতা দেখাই যায়। শুষ্ক ঠোঁটে এই তেল চমৎকার কাজ করে।

টোটকাঃ-

শুষ্ক ঠোঁটেকে বিদায় জানাতে প্রতিদিন রাতে শোবার আগে নাভিতে ২-৩ ফোঁটা সরিষার তেল মাসাজ করে নেবেন।

আশা রাখছি, ত্বকের যত্নে সরিষার তেল নিবন্ধনে টোটকাগুলি ভালো ফল দেবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here