পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা যেভাবে করবেন

পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা

পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা

সূত্র :- health-total . com

পাইলস বা অর্শ এমন একটি রোগ যা পুরুষ এবং মহিলাদেরকে প্রভাবিত করে। এই অবস্থায় মলদ্বারের রক্তনালীর উপর উপর অতিরিক্ত চাপের কারণে এই রোগটি দেখা যায়। এই রোগের ব্যথা খুব অসহ্য। মলদ্বারের চারপাশে শিরাগুলির প্রদাহের কারণে পাইলস বিকাশ ঘটে। অভ্যন্তরীণ এবং বাইরের দুটি ধরণের পাইল রয়েছে। অভ্যন্তরীণ অর্শ্বরোগে শিরাগুলির ফোলা দেখা যায় না তবে অনুভূত হয়, তবে বহিরাগত অর্শ্বরোগে এই ফোলা মলদ্বারের ঠিক বাইরে দেখা যায়। পাইলস হলে মলদ্বারে যন্ত্রণা, রক্তক্ষরণ এবং ব্যথাসহ লক্ষণ দেখা যায়। তবে পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা নিরাময় করা সম্ভব।

পাইলসের উপসর্গগুলি দেখলে সহজে বোঝা যায়। মলদ্বারে অতিরিক্ত ব্যথা এবং পরবর্তী রক্তপাতের সময় জ্বালা এর একটি কমন লক্ষণ। এর ফলে মলদ্বার ফুলে যায়। পাইলস পাইলস আয়ুর্বেদিক ঔষধ গ্রহণে মুক্তি পাওয়া যায়।

আরও পড়ুনঃ ঘরোয়া পদ্ধতিতে পদ্ধতিতে আলসার চিকিৎসা

পাইলস কি?

পাইলস কি

সূত্র :- chennailasergastro . com 

পাইলস হল মলদ্বারে চারপাশের ত্বকের পাইলস হ’ল মলদ্বারের চারপাশের ত্বকের নিচে শিরাগুলির গুচ্ছ, যা দুটি শ্রেণিতে শ্রেণিবদ্ধ করা যেতে পারে। প্রথম, মলদ্বারের ভিতরে এবং দ্বিতীয় মলদ্বারের বাইরে।

সাধারণত লোকেরা মলের সঙ্গে রক্ত পড়াকে পাইলস ভেবে নেয়। যদিও বাস্তব হল অর্শ বা পাইলস আক্রান্ত ৩০ শতাংশ রোগীদের মলের সঙ্গে রক্ত পড়ে এবং বাকি ৭০ শতাংশ রোগীদের জ্বালা, চুলকানি এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো লক্ষণ রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ দিনের বেলায় ঘুম কমানোর উপায় জেনে রাখুন

পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা :-

  1. ত্রিফলা চূর্ণঃ

ত্রিফলা চূর্ণঃ

কোষ্ঠকাঠিন্য হল পাইলসের প্রধান কারণ। তাই কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে ত্রিফলা গুঁড়ো নিয়মিত গ্রহণ করা উচিত। পাশাপাশি এটি পাইলস রোগের বর্ধন রোধ করে। নিয়মিত ঘুমাতে যাওয়ার আগে উষ্ণ গরম জলে ৪ গ্রাম ত্রিফলা গুঁড়ো মিশিয়ে খেলে উপকার পাবেন। পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা এটি ম্যাজিকের মতো কাজ করে।

আরও পড়ুনঃ রইল ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য স্বাস্থ্য টিপস

  1. হিং :-

হিং

হিং পাইলস রোগীদের ডায়েটে নিয়মিত যোগ করা উচিত। এটি নিয়মিত শাকসবজির মধ্যে খাওয়া যাবে অথবা আপনি জলে মিশিয়ে খেতে পারেন। হিং একটি ভারতীয় মশলা যা রান্নার পাশাপাশি হজমশক্তি উন্নত করে এবং পাইলস নিরাময়ে সহায়তা করে।

  1. ফাইবার সমৃদ্ধ খাবারঃ

ফাইবার সমৃদ্ধ খাবারঃ

ভাল হজমের জন্য একটি ফাইবার সমৃদ্ধ খাবারে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ডায়েটে আঁশযুক্ত খাবার যেমন পুরো শস্য, তাজা ফল এবং সবুজ শাকসব্জি অন্তর্ভুক্ত করুন। এছাড়াও ফলের রসের পরিবর্তে ফল খান। খাবারে সালাদ হিসাবে মূলা গ্রহণ করুন। মূলা পাইলসের সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়।

আরও পড়ুনঃ ঘরোয়া পদ্ধতিতে পেটে ব্যথা কমানোর উপায়

  1. প্রচুর পরিমাণে জল খানঃ

প্রচুর পরিমাণে জল খানঃ

পাইলসে এর চিকিৎসায় একটি ভালো কৌশল হল জল খাওয়া বাড়ানো। স্বাস্থ্যকর ডায়েটের পাশাপাশি পর্যাপ্ত পরিমাণে জল পান ক্রারা মাধ্যমে অন্ত্রের গতিবেগ উন্নতি করা সম্ভব হয়। প্রচুর পরিমাণে জল পান করে কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে এবং পাইলসের সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া যায়। যেকোনো সমস্যা প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ করা ভালো। তাই নিয়মিত জল খাওয়ার মাধ্যমে আমরা এই সমস্যা প্রতিরোধ করতে পারি।

সারকথাঃ

নিয়মিত ৮-১০ গ্লাস জল খেলে জল পান করলে হজম শক্তি উন্নতি হয়।

  1. ছোট জিরাঃ

ছোট জিরাঃ

ছোট জিরা পেটের সমস্যার জন্য খুব উপকারি। জিরা ভেজে মিছরি সঙ্গে মিশিয়ে খেলে উপকার পাবেন। অথবা এক চামচ জলে আধ চা চামচ জিরার গুঁড়া মিশিয়ে পান করুন।

আরও পড়ুনঃ টনসিলের চিকিৎসা: টনসিলের লক্ষণ এবং ঘরোয়া চিকিৎসা

  1. সালাদঃ

সালাদঃ

অর্শ বা পাইলস রোগীদের নিয়মিত খাবার পর সালাদ খেতে পরামর্শ দেওয়া হয়। যেমন শসা, গাজর। গাজরে অ্যান্টি- অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি- ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা পাইলস নিরাময়ের জন্য উপকারি এগুলির মধ্যে ভিটামিন সি এবং কেও রয়েছে যা শিরা স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে সহায়তা করে।

আরও পড়ুনঃ ভিটামিন ই ক্যাপসুল: ত্বকের জন্য ভিটামিন ই ক্যাপসুল

পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসায় এই সমস্ত উপাদানগুলি পাইলস প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে। তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে উপাদানগুলি গ্রহণ করে দেখতে পারেন।

সারকথাঃ

পাইলস প্রতিরোধে অলিভ অয়েল খাওয়া উপকারি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here