হযরত আলী জন্মদিন কেন পালন করা হয়?

hazarat

hazarat

সুত্রঃ- lh3 . googleusercontent . com

হযরত আলী এমন এক মুসলিম ধর্মীয় গৌরবময় ব্যক্তি যাকে সমগ্র ভারতবর্ষ ও এর বাইরেও ইসলামী সম্প্রদায় উচ্চ সম্মানের সঙ্গে শ্রদ্ধা করা হয়। তিনি ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক হযরত মুহাম্মদ (সঃ) চাচাতো ভাই এবং জামাতা।  তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি মক্কা শহরের সবচেয়ে পবিত্র স্থান কাবা শহরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি খুব উদার ব্যক্তি ছিলেন। হযরত আলী তাঁর কর্ম, সাহস, বিশ্বাস এবং সংকল্পের জন্য মুসলিম সংস্কৃতিতে অত্যন্ত শ্রদ্ধার সাথে পরিচিত।

আজকের নিবন্ধে  হযরত আলী সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। এই নিবন্ধে হযরত আলীর ইতিহাস, জন্মদিন পালনের কারন এবং কীভাবে এই মহান ব্যক্তির জন্মদিন পালন করা হয় তা জানাব।

আরও পড়ুনঃ প্রেমিকার জন্মদিনের শুভেচ্ছা এসএমএস, ম্যাসেজ, স্ট্যাটাস

হযরত আলীর (Hazrat Ali)

হযরত আলী মুসলমানদের চতুর্থ খলিফা, যার পুরো নাম  আলী ইবনে আবু তালিব। বিশ্বাস করা হয় যে তিনিই প্রথম ব্যক্তি যিনি ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন। তাঁর পিতার নাম আবু তালিব ইবনে আবদুল মুত্তালিব এবং মাতার নাম ফাতিমা বিনতে আসাদ।

হযরত আলীর ইতিহাস (History of Hazrat Ali’s)

hazarat ali

সুত্রঃ- 4 . bp . blogspot . com

হযরত আলী জন্মদিন পালনের কিছু কাহিনী রয়েছে। যেমন হযরত আলীর জন্ম ইসলামিক পঞ্জিকা অনুসারে রজব মাসের ১৩ তারিখে। হজরত আলী সর্বপ্রথম হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) এর সাথে নামাজ পড়তেন। হযরত মোহাম্মদ তাকে মৃত্যুর পূর্বেও তাঁর উত্তরসূরি ঘোষণা করেছিলেন। তিনি তাঁর জীবনে বহু যুদ্ধ করেছিলেন এবং খলিফা হিসাবে তাঁর পাঁচ বছরের শাসনকালে তিনি বহু যুদ্ধ, বিদ্রোহের মুখোমুখি হয়েছিলেন এবং সমাজে বিভিন্ন কুপ্রথা কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করেছিলেন। তাঁর রাজত্বকালে তিনি জনগণকে আরও বেশি অধিকার দিয়ে সকল প্রকার কর থেকে মুক্তি দিয়েছিলেন।

খলিফার নিয়োগের সময় তিনি বহু অর্থনৈতিক সংস্কারও করেছিলেন। যেমন তৃতীয় খলিফা কিছু বিশেষ ব্যক্তিকে জনসাধারণের সম্পদ দিয়েছিলেন, হযরত আলী সেগুলি ফিরিয়ে নিয়ে সাধারণ মানুষের উন্নতির জন্য ব্যবহার করেছিলেন।

পাশাপাশি তিনি দুর্নীতিবাজ সরকারী কর্মকর্তাদের সাময়িক বরখাস্ত করলেন এবং তাঁর জায়গায় সৎ ব্যক্তিদের নিয়োগ করলেন। হযরত আলী কোষাগারটির বিশেষ যত্ন নিতেন কারন তিনি বিশ্বাস করতেন যে কোষাগার জনসাধারণের সম্পত্তি এবং এটি কেবলমাত্র জনসাধারণের মঙ্গলার্থে ব্যবহার করা উচিত, একজন ব্যক্তির ব্যক্তিগত কাজে নয়, হজরত আলীর এই ক্রিয়াকলাপের কারণে অনেক ক্ষমতাবান ও শক্তিশালী ব্যক্তি হয়ে ওঠে।

ইসলামী ক্যালেন্ডার অনুসারে, রমজান মাসের ১৯ তারিখে, যখন তিনি সকাল বেলা নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন,  সেজদা দেওয়ার সময় এক ব্যক্তি তাকে তরোয়াল দিয়ে আক্রমণ করে এবং আহত করে এবং ঘটনার দু’দিন পরে অর্থাৎ রমজানের ২১ তারিখে তাঁর মৃত্যু। তাঁর দেহ গোপনে সমাধিস্থ করা হয়েছিল এবং দীর্ঘদিন পরে লোকেরা তাঁর সমাধির বিষয়টি জানতে পারে। সমাজ ও দরিদ্রদের জন্য এই পদক্ষেপের কারণে হযরত আলী সাধারণ জনগণের মধ্যে অত্যন্ত বিখ্যাত ছিলেন। এই কারণেই প্রতিবছর রজব মাসের ১৩ তারিখে তাঁর জন্ম উৎসব পালন করা হয়।

আরও পড়ুনঃ  বাচ্চাদের জন্মদিনের উপহার দেওয়ার আইডিয়া

হযরত আলীর জন্মদিন কেন পালন করা হয় (Why Do Celebrate Hazrat Ali Birthday)

মুহাম্মাদ (সা) মৃত্যুর পর ইসলামী গোষ্ঠী দুটি ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছিল, যারা আবু বকরকে তাদের নেতা হিসাবে বেছে নিয়েছিল, তাদেরকে সুন্নি মুসলিম বলা হত এবং যারা হযরত আলীকে তাদের নেতা হিসাবে বেছে নিয়েছিল তাদেরকে শিয়া মুসলিম বলা হত।

হযরত আলী হলেন নবী হযরত মুহাম্মাদ মুস্তাফার চাচাতো ভাই ও জামাতা। শিয়া সম্প্রদায়ের লোকেরা বিশ্বাস করেন যে নবী মুহাম্মদের মৃত্যুর পরে হযরত আলীকে খলিফা নিয়োগ করা উচিত ছিল, কিন্তু এরপরেও হযরত মোহাম্মদকে উপেক্ষা করা হয়েছিল এবং তিন ব্যক্তির পরে তাকে খলিফা করা হয়েছিল।

ইসলামী বিশ্বাস অনুসারে তিনিই ইসলাম গ্রহণকারী প্রথম পুরুষ। হযরত আলী অত্যন্ত উদার ও দয়ালু ব্যক্তি ছিলেন। তাঁর সাহস, বিশ্বাস ও দৃঢ় সংকল্পের জন্য  তিনি মুসলিম জনগোষ্ঠীতে অত্যন্ত সম্মানিত ছিলেন। বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জ্ঞান থাকার জন্য তিনি প্রথম মুসলিম বিজ্ঞানী হিসাবেও বিবেচিত হন কারণ তিনি খুব সাধারণ উপায়ে মানুষের কাছে যে কোনও কিছু ব্যাখ্যা করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

হযরত আলী যখন  ইসলামী সাম্রাজ্যের চতুর্থ খলিফা হিসাবে নির্বাচিত হন, তখন তিনি জনসাধারণের সুবিধার্থে অনেক কিছু করেছিলেন। যার কারণে তাকে সাধারণ মানুষ বেশ পছন্দ করেছিলেন। এই কারণে, সমাজের উন্নয়নের জন্য করা তাঁর ধারণাগুলি এবং প্রচেষ্টার পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিবছর তাঁর সম্মানে  তাঁর জন্মবার্ষিকী বিশ্বের বহু দেশেই ধুমধামের সাথে পালন করা হয়।

আরও পড়ুনঃ  শুভ জন্মদিনের উপহারঃ জন্মদিনের উপহারের আইডিয়া

হযরত আলীর জন্মদিন উদযাপন (Hazarat Ali’s Birthday Celebration)

hazarat ali birthday

সুত্রঃ- www . 1hindi . com

হযরত আলীর জন্ম উদযাপন বিশ্বের অনেক দেশেই ধুমধামের সাথে উদযাপিত হয়। বিশেষ করে ইসলাম ধর্মের লোকেরা হযরত আলীর জন্ম মহা আড়ম্বরের সাথে উদযাপন করে থাকে। এই দিনটি ভারতে বিশেষত উত্তর প্রদেশে খুব ব্যাপকভাবে পালিত হয়। এই দিবসটি ভারতের পাশাপাশি বিশ্বের অনেক মুসলিম দেশে ইসলামী ঐতিহ্যের সঙ্গে উদযাপিত হয়।

ভারতের শিয়া সম্প্রদায়ের বৃহত্তম কেন্দ্র লখনউতে এই দিনটি উদযাপন হয়। এই দিনে লখনউতে বিভিন্ন  মসজিদগুলি সজ্জিত করা হয়। এই দিন শহরে বিভিন্ন মিছিল বের করা হয় এবং ধর্মীয় এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এই দিনে সমস্ত মুসলিম লোকেরা তাদের ঘরগুলি ভালোভাবে পরিষ্কার করে এবং সুন্দর ভাবে সাজিয়ে তোলে। সমস্ত মসজিদগুলিকেও সুন্দরভাবে সজ্জিত করা হয় এবং প্রার্থনা সভার আয়োজন করা হয়। মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকেরা তাদের বাড়িতে বিভিন্ন ধরণের সুস্বাদু খাবার তৈরি করেন এবং তাদের বন্ধুবান্ধব এবং আত্মীয়স্বজনদের তাদের বাড়িতে ভোজের জন্য আমন্ত্রণ জানায়।

এছাড়াও কিছু লোক তাদের দূরের লোকদের সাথে দেখা করতে এবং তাদের ভালবাসা প্রকাশ করতে যান এবং কিছু লোক দূর থেকে এই দিনে পরিবারের সাথে দেখা করতে ফিরে আসে। হজরত আলীর স্মরণ করে, তাদের পরিবারের জন্য দোয়া করেন এবং উৎসাহের সাথে এই দিনটি সকলে মিলে উপভোগ করেন।

আরও পড়ুনঃ শুভ জন্মদিনের শুভেচ্ছা: জন্মদিনের শুভেচ্ছা ম্যাসেজ

হযরত আলী জন্মদিনের তাৎপর্য (Significance of Hazrat Ali Birthday)

হযরত আলীর জন্মদিন উৎসবটি আমাদের সকলের জন্য খুব তাৎপর্যপূর্ণ। কারন এই দিবসটি তাঁর মতো একজন মহান ব্যক্তির জন্মবার্ষিকী উদযাপিত হয়। তাঁর মতো ব্যক্তি খুব কমই রয়েছে আমাদের বিশ্বে।  একজন দক্ষ যোদ্ধা ও ধার্মিক ব্যক্তি ছাড়াও তিনি অত্যন্ত দয়ালু ব্যক্তিও ছিলেন। তাঁর বৈশিষ্ট্য এবং কর্ম মানুষের মধ্যে প্রচার করতে তাঁর জন্মদিনটি প্রতি বছর অনেক ধুমধামের সাথে পালন করা হয়।

আরও পড়ুনঃ  জন্মদিনের কেকের ডিজাইনঃ জন্মদিনের কেকের ভিন্ন ডিজাইন

শুধু মুসলিম সম্প্রদায় নয় বিশ্বের মানুষের কাছে হযরত আলী একজন গৌরবময় ব্যক্তিত্ব। তিনি আমাদের জন্য অনেক যুদ্ধ করে গেছেন।

সারকথাঃ

হযরত আলীর জন্মবার্ষিকী পালন করার মূল উদ্দেশ্যে হল তাঁর স্মৃতি স্মরণ করা।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রঃ হযরত আলী কে ছিলেন?

উঃ হযরত আলী মুসলমানদের চতুর্থ খলিফা ছিলেন।

প্রঃ হযরত আলীর জন্মদিন কবে?

উঃ ইসলামিক পঞ্জিকা অনুসারে রজব মাসের ১৩ তারিখে হযরত আলীর জন্মদিন।

প্রঃ হযরত আলীর পিতার নাম কি?

উঃ হযরত আলীর পিতার নাম আবু তালিব ইবনে আবদুল মুত্তালিব।

প্রঃ হযরত আলীর মায়ের নাম কি?

উঃ হযরত আলীর মায়ের নাম ফাতিমা বিনতে আসাদ।

প্রঃ হযরত আলীর পুরো নাম কি?

উঃ হযরত আলীর পুরো নাম আলী ইবনে আবু তালিব।

প্রঃ হযরত আলীর জন্মদিন কীভাবে উদযাপন হয়?

উঃ এই দিন মসজিদ নামাজ ও প্রার্থনা করা হয়, ঘরবাড়ি ও মসজিদ আলোয় সাজিয়ে, ঘরে বিভিন্ন ধরণের খাবার বানানো হয় এবং পরিবারের লোকজন এবং বন্ধু বান্ধবদের সঙ্গে মিলেমিশে আনন্দের সাথে উদযাপন করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here