খিলাফত আন্দোলন ইতিহাস ও ফলাফল

খিলাফত আন্দোলন (১৯১৫-১৯২৪)

খিলাফত আন্দোলন

বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে দেশে অনেক সামাজিক এবং রাজনৈতিক পরিবর্তন দেখা দিয়েছিল। সেই পরিবর্তনের মধ্যে কয়েকটি ঘটনা ভারতের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতিতে নয়, আন্তর্জাতিক ইস্যু দ্বারা প্রভাবিত হয়। যেমন একটি খিলাফত আন্দোলন। এই খিলাফত আন্দোলন তৎকালীন ভারতের মুসলমানদের মধ্যে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছিল। কিছু আন্তর্জাতিক ঘটনাও এই শ্রেণীর দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল, যা ভারতের স্বাধীনতায় সমানভাবে অবদান রেখেছিল। খিলাফত আন্দোলনটি ছিল ব্রিটিশ শাসনের শৃঙ্খলা ভাঙার ভারতের প্রচেষ্টাগুলির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আন্দোলন। খিলাফত আন্দোলন ১৯১৯ থেকে ১৯২৪ সাল পর্যন্ত চলে।

খিলাফত আন্দোলনের ইতিহাস (History of Khilafat movement)

খিলাফত আন্দোলন (১৯১৫-১৯২৪) (1)

১৮৭৬ সাল থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত অটোমান সাম্রাজ্যের শাসক ছিলেন দ্বিতীয় আবদুল হামিদ। খলিফা হওয়ায় অটোমান সাম্রাজ্য বিশ্বজুড়ে সুন্নি মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত ধর্মীয় এবং প্রাথমিক ছিল। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে এই দেশটি কেন্দ্রীয় শক্তিগুলিকে সমর্থন করেছিল তবে পরাজিত হয়েছিল এবং ১৯১৯ সালে ভার্সাই চুক্তি অনুসারে অটোমান রাষ্ট্রের সীমানা হ্রাস পেয়েছিল।

অটোমান সম্রাট দ্বিতীয় আবদুল হামিদ সাম্রাজ্যকে পশ্চিমা হামলা এবং বয়কট থেকে রক্ষা করতে এবং ঘরে বসে পশ্চিমা গণতান্ত্রিক বিরোধী দলকে শেষ করে দেওয়ার জন্য তার বাড়িতে একটি  প্যান-ইসলামি কর্মসূচি চালু করেছিলেন। উনিশ শতকের শেষের দিকে তিনি জামালউদ্দিন আফগানি নামে একজন রাষ্ট্রদূত ভারতে প্রেরণ করেছিলেন। অটোমান শাসকের কারণে ভারতীয় মুসলমানদের মধ্যে ধর্মীয় আবেগ এবং সহানুভূতি তৈরি হয়েছিল।

বিপুল সংখ্যক খলিফার পক্ষে মুসলমানদের সচেতনতা বাড়াতে এবং মুসলিমদের অংশগ্রহণ বিকাশের জন্য মুসলিম ধর্মীয় নেতারা  কাজ শুরু করেন। মুসলিম ধর্মীয় নেতা মাওলানা মাহমুদ হাসান অটোমান সাম্রাজ্যের সমর্থন নিয়ে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে একটি জাতীয় স্বাধীনতা যুদ্ধের আয়োজন করার চেষ্টা করেছিলেন।

আরও পড়ুন | ভারতের স্বাধীনতা দিবস এর কাহিনী

খিলাফত আন্দোলনের ঘটনা (Events of the Khilafat movement)

খিলাফত আন্দোলনের ঘটনা

যদিও মুসলিম বিশ্বের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড এবং খিলাফতের পক্ষে জনপ্রিয় উদ্বেগ প্রকাশ পেয়েছিল, সর্বাধিক বিশিষ্ট কার্যক্রম ভারতে ঘটেছিল। অক্সফোর্ডের বিশিষ্ট শিক্ষিত মুসলিম সাংবাদিক মুহাম্মদ আলি জওহর ব্রিটিশদের বিরোধিতা ও খিলাফতকে সমর্থন করার জন্য চার বছর কারাগারে কাটিয়েছিলেন।

তুরস্কের স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরুতে, মুসলিম ধর্মীয় নেতারা ইউরোপীয় শক্তি রক্ষায় অনিচ্ছুক খলিফার জন্য ভয় পেয়েছিলেন। ব্রিটিশরা ভারতে কিছু মুসলমানকে তুরস্কের সহযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য নিযুক্ত করার সম্ভাবনাটি অভিশপ্ত হয়েছিল। এর প্রতিষ্ঠাতা ও অনুসারীদের পক্ষে খেলাফত কোন ধর্মীয় আন্দোলন ছিল না বরং তুরস্কের সহযোদ্ধাদের সাথে সংহতি প্রকাশ করেছিল।

মুহাম্মদ আলি এবং তার ভাই মাওলানা শওকত আলী, আবুল কালাম আজাদ এবং অন্যান্য মুসলিম নেতাকে খেলাফত কমিটি গঠনের জন্য যুক্ত করা হয়েছিল। সংগঠনটি ভারতের লখনৌতে অবস্থিত। তাদের লক্ষ্য ছিল মুসলমানদের মধ্যে রাজনৈতিক ঐক্য গড়ে তোলা এবং খেলাফতকে রক্ষায় তাদের প্রভাবকে কাজে লাগানো।

১৯২০ সালে খিলাফত নেতাদের এবং ভারতের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল এবং জাতীয়তাবাদী আন্দোলন ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেসের মধ্যে একটি জোট গঠিত হয়েছিল। কংগ্রেস নেতা মহাত্মা গান্ধী এবং খিলাফত নেতারা খিলাফত আন্দোলন ও স্বরাজের পক্ষে লড়াইয়ের জন্য একসাথে কাজ করার এবং লড়াইয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ব্রিটিশদের উপর চাপ বাড়াতে চাইলে খিলাফত বাদীরা অসহযোগ আন্দোলনের একটি বড় অংশে পরিণত হয়েছিল।

খিলাফত আন্দোলন সমর্থনের জন্য গান্ধীজীর অনেক সহায়তা হয়েছিল এবং কংগ্রেস সংগ্রামের সময় হিন্দু-মুসলিম ঐক্য নিশ্চিত করেছিল। ডাঃ আনসারী, মাওলানা আজাদ ও হাকিম আজমল খানের মতো খিলাফত নেতারাও ব্যক্তিগতভাবে গান্ধীর ঘনিষ্ঠ হন। এই নেতারা মুসলমানদের জন্য স্বাধীন শিক্ষা এবং সামাজিক পুনর্জাগরণ প্রচারের জন্য ১৯২০ সালে জামিয়া মিল্লিয়া ইসলামিয়া প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

অসহযোগ অভিযানটি এর আগে ব্যাপক প্রতিবাদ, আক্রমণ এবং নাগরিক কাজ সমগ্র ভারত জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছিল বলে সফল হয়েছিল। হিন্দু ও মুসলমানরা সম্মিলিতভাবে প্রতিবাদ করেছিল, যা বেশিরভাগ শান্তিপূর্ণ ছিল। একইভাবে খিলাফত আন্দোলন  একাগ্রভাবে ভারত জুড়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন। সময়ের সাথে সাথে এই খিলাফত আন্দোলন বাংলা, উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ এবং পাঞ্জাবে পৌঁছেছিল।

Key point

১৯১৯ সালে ১৭ ই অক্টোবর সর্বভারতীয় খেলাফত দিবস পালিত হয়, হিন্দুরাও মুসলমানদের সমর্থন করেছিলেন।

আরও পড়ুন |  সিপাহী বিদ্রোহ এর কারণ ও ফলাফল

খিলাফত আন্দোলনের গুরুত্ব (Importance of the Khilafat movement)

খিলাফত আন্দোলনের গুরুত্ব

খিলাফত আন্দোলন এবং অসহযোগ আন্দোলন হ’ল ভারতে ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে অনুষ্ঠিত প্রথম আন্দোলন যেখানে হিন্দু ও মুসলমানরা ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে একত্র হয়ে দাঁড়িয়েছিল। যার মধ্যে সত্যগ্রহ এবং অহিংসকে গান্ধীজি অবদান রেখেছিলেন।  ১৯২১ সালের শেষের দিকে সরকারও এই আন্দোলনকে দমন করার চেষ্টা করেছিল, যার জন্য নেতাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

আরও পড়ুন |  আন্তর্জাতিক নারী দিবস কেন পালন করা হয়

খিলাফত আন্দোলন শেষ পর্যায় (Last phase of the Khilafat movement)

খিলাফত আন্দোলন শেষ পর্যায়

১৯২২ সালের মার্চ মাসে গান্ধীজি অসহযোগ আন্দোলন স্থগিত করে এবং তাঁকে গ্রেপ্তার করা হলে খিলাফত আন্দোলনও দুর্বল হয়ে পড়ে। ১৯২৪ সালে খিলাফত  আন্দোলন অবসানের সঙ্গে সমাপ্তি হয়। ১৯১৯ থেকে ১৯২২ সাল পর্যন্ত, যেখানে খিলাফত আন্দোলনের সমাপ্তি পরে হিন্দু- মুসলিম ঐক্যের হওয়া বইছিল। পরিবেশটি পুরোপুরি পরিবর্তিত হয়েছিল। ১৯২২ সালে পরে, খিলাফত আন্দোলন ও অসহযোগ আন্দোলনের নেতাদের মধ্যে মতপার্থক্য বাড়তে শুরু করে।  হিন্দু- মসুলিম ঐক্য, উগ্রবাদ বাড়ছিল, এবং এই পরিবর্তনটি দেশের স্বাধীনতা ও বিভক্তির এক গুরুত্বপূর্ণ মোড় হিসাবে পরিণত হয়েছিল।

আরও পড়ুন |  ভীমরাও রামজি আম্বেদকর জয়ন্তী দিবস

খিলাফত আন্দোলনের ফলাফল (Khilafat movement consequences)

খিলাফত আন্দোলনের ফলাফল

১৯১৯ থেকে ১৯২৪ সাল পর্যন্ত ভারতবর্ষের মধ্যে জাতীয়তাবাদ জাগ্রত হয়েছিল। এমনকি অটোমান সাম্রাজ্য ভেঙে যাওয়ার পরেও এর মূল লক্ষ্য ছিল সুলতান খলিফাকে ক্ষমতায় রাখা। এইভাবে, মুসলিমরা  ১৯১৪ সালে  যুদ্ধের পরে অটোমান সীমানা ফিরিয়ে একটি চুক্তি করতে চেয়েছিল, যখন কেন্দ্রের সাথে তুর্কিদের জোট পরাজিত হয়েছিল।

খিলাফত আন্দোলনের প্রভাব প্যান-ইসলামি উপর কম ছিল তবে জাতীয়তাবাদী আন্দোলনে এর ব্যাপক প্রভাব পড়ে।  খিলাফত আন্দোলনের নেতারা পশ্চিমা শিক্ষাবিদ মুসলমান ও উলামাদের সাথে ধর্মীয় প্রতীক হিসাবে রাজনৈতিক চুক্তি করে খিলাফত তৈরি করেছিলেন।

আরও পড়ুন |  বুদ্ধপূর্ণিমা | গৌতম বুদ্ধের জন্মবার্ষিকী

ভারতবর্ষের মুসলমানদের মধ্যে খিলাফত আন্দলনে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে ক্ষোভের জন্ম দেয় যিনি ১৯১৪ সালে অটোমনে আক্রমণের ঘোষণায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন। খিলাফত নেতারা যারা যুদ্ধের সময় কারাবন্দী ছিলেন তারা ইতিমধ্যে স্বাধীনতা সংগ্রামের অংশ নিয়েছিলেন। ১৯১৬ সালে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস এবং মুসলিম লীগের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি করেছিল।

Key point

গান্ধীজী তার অসহযোগ আন্দোলনে খিলাফত  খিলাফত আন্দোলনকেও সহায়তা করেছিলেন।

আসলে খিলাফত আন্দোলনের উদ্দেশ্যে ছিল ভারতীয় মুসলমানদের দ্বারা ব্রিটিশ সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করা যাতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পরে অটোম্যান সুলতান খলিফাকে বজায় রাখা হয়। কিন্তু খিলাফত আন্দোলন শুরু হওয়ার কিছু সময় পরেই অবসান ঘটে।

আরও পড়ুন | গুড ফ্রাইডে পালন | Wishes, Messages, SMS, Quotes

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রঃ খিলাফত আন্দোলন কত সাল পর্যন্ত চলে?

উঃ খিলাফত আন্দোলন ১৯১৫ থেকে ১৯২৪ সাল পর্যন্ত চলে।

প্রঃ খিলাফত আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী নেতাদের নাম কি?

উঃ মুহাম্মদ আলি এবং তার ভাই মাওলানা শওকত আলী, আবুল কালাম আজাদ এবং অন্যান্য মুসলিম নেতারা অংশগ্রহণ করেছিলেন।

প্রঃ ভার্সাই চুক্তি কবে স্বাক্ষরিত হয়?

উঃ প্রথম ভার্সাই চুক্তি স্বাক্ষরিত ১৭৮০ সালে এবং দ্বিতীয় ভার্সাই চুক্তি ১৯১৯ সালে স্বাক্ষরিত হয়েছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here