জেনে নিন ভারতের স্বাধীনতা দিবস এর কাহিনী

স্বাধীনতা দিবস

স্বাধীনতা দিবস

স্বাধীনতা দিবস বা ১৫ আগস্টের দিনটি প্রতিটি ভারতীয়দের কাছে একটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ দিন। এই দিনটি সকল বর্ণ, ধর্ম এবং সম্প্রদায়ের মানুষ একসঙ্গে খুব আড়ম্বরপূর্ণভাবে উদযাপন করে। স্বাধীনতা দিবস হ’ল সেই দিনটি যখন ভারতের প্রতিটি নাগরিক তাদের সম্মানিত নেতাদের এবং অতীতে ভারতের স্বাধীনতার জন্য নিজের জীবন উৎসর্গকারী সমস্ত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানায়।

ভূমিকাঃ

ভূমিকাঃ

ভারতের জাতীয় দিবসগুলির মধ্যে একটি হল আমাদের ভারতের স্বাধীনতা দিবস, এই দিনে আমাদের ভারত স্বাধীনতা লাভ করেছিল। বলা হয় এই ব্রিটিশরা ভারত ছেড়ে চলে যাওয়া ভারত স্বাধীনতা হয়েছে, তবে পাশাপাশি দেখতে গেলে ভারতের প্রতিটি নাগরিক ব্যক্তিগত ভাবে পড়তে, লিখতে, ঘুরতে স্বাধীনতা পেয়েছিল।

আরও পড়ুনঃ বাংলার চলচ্চিত্র উৎসব এর অবদান

স্বাধীনতা দিবসের ইতিহাসঃ

স্বাধীনতা দিবসের ইতিহাসঃ

ইংরেজরা ভারত দখল করার পর আমরা এই দেশের নাগরিক হয়েও নিজের দেশে ক্রীতদাস ছিলাম। অর্থ, খাদ্যশস্য, জমি সব কিছু আমাদের হলেও সবকিছুর উপর আমাদের কোনও অধিকার ছিল না। বরং ব্রিটিশরা মানুষদের উপর অত্যাচার করব এবং জোর করে নীলচাষ করতে বাধ্য করত। মানুষ সেই অন্যায়ের বিরোধিতা করলে গেলেই অত্যাচার করত। যেমন জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ড।

আরও পড়ুনঃ ছাত্রছাত্রীদের জন্য স্বামী বিবেকানন্দের রচনা

ভারতে ব্রিটিশদের আগমনঃ

সপ্তদশ শতাব্দীতে, ব্রিটিশরা ভারতে ব্যবসা করতে আসে। তখন মুঘলদের শাসন ছিল। ধীরে ধীরে ব্রিটিশরা ব্যবসায়ের অজুহাতে তাদের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করে এবং অনেক রাজার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করে যুদ্ধে হারিয়ে তাদের অঞ্চলগুলিকে নিজের অধিনে করে নেয়। অষ্টাদশ শতাব্দীর মধ্যে ইংরেজরা স্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির নামে আধিপত্য বিস্তার করে এবং পার্শ্ববর্তী অঞ্চলগুলিকে পরাধীন করেছিলেন।

ক্রীতদাসঃ

তখন ভারতের মানুষ ব্রিটিশদের ক্রীতদাস ছিল এবং ব্রিটিশরা তাদের দিয়ে বিনা পারিশ্রমিকে সমস্ত কাজ করিয়ে নিত। দীর্ঘদিন ধরে তারা মানুষের উপর রাজত্ব করেছিলেন। ব্রিটিশরা ভারতীয়দের উপর শারীরিক এবং মানসিকভাবে নির্যাতন করেছিল। এই সময়কালেও অনেক যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল, যার মধ্যে সর্বাধিক বিশিষ্ট ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। যার জন্য জোর করে ভারতীয়দের সেনাবাহিনীতে নিয়োগ করা হত। ভারতীয়দের নিজস্ব দেশে কোনও অস্তিত্ব ছিল না, ব্রিটিশরাও জালিয়ানওয়ালাবাগের মতো গণহত্যা চালিয়েছিল এবং ভারতীয়রা নিছক ক্রীতদাস হয়ে জীবনযাপন করত।

আরও পড়ুনঃ রইল ছাত্রছাত্রীদের জন্য সহজ ভাষায় শিক্ষক দিবসের রচনা

জাতীয় কংগ্রেস পার্টি প্রতিষ্ঠাঃ

জাতীয় কংগ্রেস পার্টি প্রতিষ্ঠাঃ

এই সংগ্রামের মধ্যেই ১৮৮৫ সালে ন্যাশনাল কংগ্রেস পার্টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। যার মধ্যে দাদা ভাই নওরোজি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল এবং ধীরে ধীরে লোকজন স্বাধীনতার জন্য দলে অংশ নিতে শুরু করে।

এই ধারাবাহিকতায় ইন্ডিয়ান মুসলিম লীগও প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই জাতীয় দলে প্রচুর মানুষ এগিয়ে এসেছিলেন। এবং তাদের অবদানের ফলস্বরূপ আমাদের দেশ স্বাধীনতা পেয়েছে। যার জন্য অনেক বীর গুলিবিদ্ধ হয়েছিল এবং বহু লোককে ফাঁসি দেওয়া হয়েছিল ও প্রচুর তরুণ যুবক হারিয়ে যায়।

স্বাধীনতা সংগ্রামীদের যোগদানঃ

গান্ধীজীর মতো মুক্তিযোদ্ধারা যারা স্বাধীনতা সংগ্রামে অসামান্য অবদান রেখেছিলেন তারা সবচেয়ে জনপ্রিয় ছিলেন। তিনি সবাইকে সত্য, অহিংসার শিক্ষা দিয়েছিলেন। এই অহিংসাই সবচেয়ে বড় অস্ত্র হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছিল এবং দুর্বলদের জীবনেও আশার প্রদীপ জ্বালিয়েছিল। গান্ধীজি দেশ থেকে বহু দূষিত পদক্ষেপগুলি সরিয়ে নেওয়ার জন্য একাত্মক প্রচেষ্টা করেছিলেন এবং সমস্ত বিভাগকে একত্রিত করেছিলেন, যার কারণে লড়াই সহজ হয়ে উঠেছিল। তাকে মানুষ এতোটাই ভালবাসত যে লোকেরা তাকে বাপু বলতেন।

সবাই সাইমন কমিশনের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করছিল, কিন্তু এর মধ্যে ব্রিটিশরা লাঠিচার্জ শুরু করে এবং এতে লালা লাজপত রায় মারা যান। লালা লাজপৎ রায় মারা যাওয়ার পর ভগৎ সিং, সুখ দেব, রাজগুরু একসঙ্গে বদলা নিতে গিয়ে ভুলবশত স্যান্ডার্সকে হত্যা করেছিলেন। যার ফলে তাদের ফাঁসি হয় এবং তারা হাসি মুখে ফাঁসি নেয়।

স্বাধীনতা সংগ্রামে অনেক কিংবদন্তির নাম রয়েছে সুভাষ চন্দ্র বোস, বাল গঙ্গাধর তিলক, মঙ্গল পান্ডে, রানী লক্ষ্মীবাঈ, গণেশ শঙ্কর বিদ্যার্থী, রাজেন্দ্র প্রসাদ, মৌলানা আবুল কালাম প্রমুখের অবদান অতুলনীয়।

আরও পড়ুনঃ বাচ্চাদের জন্মদিনের উপহার দেওয়ার আইডিয়া

সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা এবং ভারত বিভাগঃ

সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা এবং ভারত বিভাগঃ

দীর্ঘযুদ্ধের ব্রিটিশরা দেশ ত্যাগ করলে ভারত স্বাধীনতা লাভ ১৫ ই আগস্ট। তবে আরও সংগ্রাম হয়েছিল যা হল সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা। স্বাধীনতা অর্জনের সাথে সাথে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে, নেহেরু ও জিন্নাহ উভয়ই প্রধানমন্ত্রী হতে হয়েছিল, ফলে দেশ বিভাগ হয়েছিল। ভারত ও পাকিস্তান নামে একটি হিন্দু ও মুসলিম জাতি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল । গান্ধীর উপস্থিতি এই আক্রমণগুলিকে হ্রাস করেছিল, তবুও যারা মারা গিয়েছিল তাদের সংখ্যা লক্ষে ছিল। একদিকে ছিল স্বাধীনতার পরিবেশ এবং অন্যদিকে গণহত্যার দৃশ্য। দেশটি বিভক্ত হয়েছিল এবং পাকিস্তানকে ১৪ আগস্ট এবং ভারতে ১৫ আগস্ট হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল।

আরও পড়ুনঃ শুভ জন্মদিনের শুভেচ্ছা: জন্মদিনের শুভেচ্ছা ম্যাসেজ

স্বাধীনতার রঙিন উৎসবঃ

প্রতি বছর এই দিনে সমস্ত স্কুল, কলেজ, অফিস বন্ধ থাকে দেশের জাতীয় উৎসব হিসাবে। প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানে এবং সব জায়গার সেদিন পতকা উত্তোলন করে জাতীয় সংগীত গেয়ে এই দিনটি উদযাপন করা হয়।

আরও পড়ুনঃ হোলির শুভেচ্ছা : হোলি শুভেচ্ছার ম্যাসেজ

উপসংহারঃ

উপসংহারঃ

এই উৎসবটি আমাদের অমর বীরদের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। সবার স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের ভিন্ন ভাবে হয়ে থাকলেও উদ্দেশ্য একটাই । প্রতিবছর অত্যন্ত উত্সাহের সাথে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন অনুষ্ঠিত হয়, পতকা তোলা হয় এবং মিষ্টি বিতরণ করা হয়।

সারকথাঃ

১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবস দিনটি জাতীয় ছুটি ঘোষণা করা হয় পুরো ভারতবর্ষে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here