সাধারন বীমা কি এবং এর শ্রেণীবিভাগ

সাধারণ বীমা কি

বীমা বলতে বোঝায় দু- পক্ষের মধ্যে এমন এক ধরনের চুক্তি যার ফলে এক পক্ষ ( বীমাকারী ) সামান্য চাঁদার বিনিময়ে অপর পক্ষকে ( বীমাগ্রহীতা ) নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোন সম্ভাব্য ক্ষতিপূরণের প্রতিশ্রুতি দেন। বীমা অনেক ধরনের হয়ে থাকে জীবন বীমা, স্বাস্থ্য বীমা, দাঁতের বীমা, ভ্রমণ বীমা, সাধারন বীমা ইত্যাদি।

সাধারণ বীমা

source

সাধারণ বীমা কি? (General Insurance)

সাধারন বীমা কি বলতে যে বীমাচুক্তির মাধ্যমে বীমাগ্রহীতা নির্দিষ্ট পরিমাণ মাশুল প্রদানের বিনিময় বীমাকারীর কাছ থেকে দুর্ঘটনাজনিত কারনে সম্পত্তির ক্ষতিপূরণ পেয়ে থাকে, তাকে সাধারন বীমাচুক্তি বলা হয়। মূলত অগ্নিকান্ড, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, চুরি ইত্যাদি জন্য বীমা করা হয়। ১৯৭১ সালে ভারতে সাধারন বীমা ব্যবসা রাষ্ট্রায়ত্ত করা হয়েছে

আরো পড়ুন। বর্তমান আর্থিক বাজারঃ স্টক মার্কেটে শেয়ার কীভাবে কেনা বেচা হয়

সাধারণ বীমা

source

সাধারণ বীমা করা কেন দরকার? (Why do we need General Insurance?)

সাধারণ বীমা করা কেন দরকার?

source

সাধারণ বীমার একটি অংশ হল মোটরগাড়ি বীমা। আপনার গাড়ির কোনরকম ক্ষতি হলে আপনাকে মেরামতির সঠিক অর্থ দিয়ে আপনার গাড়িকে ঠিক করাতে হবে।
তবে গাড়ির জন্য আপনার যদি বীমা পলিসি করা থাকে তবে টাকার অংকের সেই পরিমাণটি আপনি বীমা পলিসি থেকে পারেন। তবে মনে রাখবেন, একটি বীমা পলিসি তার পূর্বনির্ধারিত শর্ত অনুযায়ী কেবল অর্থ প্রদান করবে

আরো পড়ুন। আর্থিক স্টক মার্কেট এ ন্যাশনাল স্টক ও বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জের ভূমিকা

সাধারন বীমার শ্রেণীবিভাগ (Types of General Insurances)

ভারতে বিভিন্ন প্রকারের সাধারন বীমা রয়েছে-

সাধারন বীমার শ্রেণীবিভাগsource

1. নৌ- বীমাঃ

যে চুক্তির মাধ্যমে বীমাকারী কর্তৃক সমুদ্রযাত্রা সম্পর্কিত যে কোন বিপদ থেকে ক্ষতির দরুন ক্ষতিপূরণের প্রতিশ্রুতি বীমাগ্রহীতাকে প্রদান করে, তা হল নৌ- বীমা চুক্তি।

অগ্নি বীমাঃ

source

2. অগ্নি বীমাঃ

আগুনে পুড়ে সম্পত্তি ক্ষতি হলে তা পূরণের জন্য যে বীমাচুক্তি করা হয়, তা অগ্নি বীমা।

আরো পড়ুন। অর্থনৈতিক উন্নয়ন কাকে বলে ও উদাহরণস্বরূপ

দুর্ঘটনাজনিত বীমাঃ

source

3. দুর্ঘটনাজনিত বীমাঃ

আকস্মিক ঘটনার ফলে সম্পত্তির ক্ষতিগ্রস্ত হলে সেই ক্ষতিপূরণের জন্য যে বীমা চুক্তি সম্পাদিত হয়, তাকে দুর্ঘটনাজনিত বীমা বলে। এই বীমা বিভিন্ন প্রকারে হয়, যেমন-

• মোটরগাড়ি বীমাঃ

মোটরগাড়ি ও গাড়ি সংক্রান্ত ক্ষতিপূরণ জন্য যে বিমা চুক্তি করা হয় , তাকে মোটর গাড়ি বিমা বলে। ১৯৫৬ সালে মোটরগাড়ি বীমাকরণের জন্য গাড়ির মালিকদের বাধ্যতামূলক নির্দেশ দেওয়া হয়েছে

• অপহরণ বীমাঃ

কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান সম্পত্তি চুরি বা ডাকতিজনিত ক্ষয়ক্ষতি পূরণের জন্য যে বিমাচুক্তি করা হয়, তাকে অপহরণ বিমা।

• তৃতীয় পক্ষ বীমাঃ

যে বিমা চুক্তির সাহায্যে আঘাত বা মৃত্যু জনিত কারনে ঝুঁকিসহ তৃতীয় পক্ষের প্রান ও সম্পত্তি হানির ক্ষয়ক্ষতির পূরণের ব্যবস্থা করা হয়, তাকে তৃতীয় পক্ষ বিমা বলে। সুতরাং তৃতীয় পক্ষের প্রাণ ও সম্পত্তি হানির দরুন যে দায় উদ্ভূত হয়, তারা এর অন্তর্গত

আরো পড়ুন। বর্তমান আর্থিক বাজারের ভূমিকা ও শ্রেণীবিভাগ

সাধারন বীমার ধরন

source

সাধারন বীমার ধরন (Parts of General Insurances)

এখানে দুই ধরণের গুরুত্বপূর্ণ বীমা রইল –

মেয়াদী জীবন বীমা

source

মেয়াদী জীবন বীমা –

এটি এমন একটি বীমা যা সব বীমা চেয়ে ভাল এবং খাঁটি। এতে আপনি খুব কম প্রিমিয়ামে যথেষ্ট উচ্চ মূল্যের কভার পাবেন যা কম খরচে আরো বেশি প্রাপ্তির একটি ফর্ম। এটা কেবল আপনাকে জীবন বীমা কভার দেয় না এবং এতে প্রদত্ত প্রিমিয়াম বা প্রিমিয়ামের কোন অংশ বিনিয়োগ নেই। এটি একটি নির্দিষ্ট বীমা পলিসি। হোল্ডারের মৃত্যুর পর তার পরিবারের সদস্যকে দেওয়া হয় এবং যদি পলিসিটির মেয়াদ শেষ হয়ে যায় এবং পলিসি হোল্ডার জীবিত থাকে তবে তাকে কোনও অর্থ প্রদান করা হয় না।

এর উদ্দেশ্য শুধু আপনার পরিবারকে সতর্ক করতে হবে বীমা সংস্থাগুলি প্রদত্ত নিয়ম এবং শর্ত অনুযায়ী, নির্দিষ্ট সময়ের জন্য এটির পেমেন্ট করতে হয় এবং যদি কোন কারণে পেমেন্ট এর পরিমাণ জমা না হয় তবে বীমাটি শূন্য হয়ে যায়।

আরো পড়ুন। বাজার অর্থনীতির বৈশিষ্ট্যঃ মুক্ত বাজারে অর্থনীতির বৈশিষ্ট্য

হোল লাইফ জীবন বীমা

source

হোল লাইফ জীবন বীমা

হোল লাইফ ইন্স্যুরেন্স পলিসি বীমা ধারককে তার পুরো জীবনকালের জন্য বীমা পরিকল্পনা দেয়। পলিসি হোল্ডারা তার মৃত্যু পর্যন্ত একটি নিয়মিত প্রিমিয়াম প্রদান করে এবং তার মৃত্যুর পরবর্তীকালে তার পরিবারকে সব টাকা প্রদান করা হয়। এই ধরনের বীমা বৈশিষ্ট্য হল- যেমন বয়স বৃদ্ধি হয়, তেমনি প্রিমিয়াম বৃদ্ধি হয় কারণ বয়স বাড়ার পাশাপাশি ব্যক্তিটি অসুস্থ হয় ও মৃত্যু হওয়ার সম্ভাবনা বেশি হয়।

এই ধরনের বীমা পলিসি থেকে কোন ব্যক্তি তার উত্তরাধিকারীদের জন্য ভাল সম্পত্তি তৈরি করতে পারে। এই বীমা নীতির জন্য ১০০ বছর মেয়াদ (মেয়াদকালীন সময়) এবং যদি কোনও পলিসি হোল্ডার তার চেয়ে বেশি জীবিত থাকে তবে সেই পরিকল্পনাটি পরবর্তীতে এন্ডোভমেন্ট নীতি পরিবর্তন হয়। যদি আপনার পুরো লাইফের জন্য বীমা লাগে, তাহলে তার জন্য এটি বীমাটি ভাল থাকবে কিন্তু এতে সারা জীবন জুড়ে প্রিমিয়াম ভরতে হবে।

সাধারণ বীমার গুরুত্ব (Importance of General Insurance)

গাড়ির ক্ষতি ব্যয় এড়াতে

source

1. গাড়ির ক্ষতি ব্যয় এড়াতে

আপনি যদি নিজের গাড়ীর বীমা করে থাকেন তবে আপনার গাড়ির ক্ষতি হওয়া সম্পর্কে চিন্তার দরকার নেই। আপনার ক্ষতির জন্য আপনার বীমা সংস্থায় ক্ষতি হওয়া টাকার পরিমাণ দাবি করতে পারেন

আরো পড়ুন। ৫ টি জিনিস যা ভারতের অর্থনৈতিক অবস্থা সম্পর্কে ধারণা দেবে

হাসপাতালের বিল টাকা মেটাতে

source

2. হাসপাতালের বিল টাকা মেটাতে

আপনি যদি স্বাস্থ্য বীমা করে থাকেন তবে সাধারণ বীমা আপনার হাসপাতালের বিলগুলির পরিমান দিতে পারে। বীমার অর্থ পর্যাপ্ত পরিমাণে না হলে আপনি অতিরিক্ত স্বাস্থ্য বীমা পলিসি গ্রহণ করতে পারেন।

ব্যবসা সুরক্ষিত করা

source

3. ব্যবসা সুরক্ষিত করা

আপনার ব্যবসার জন্য আপনি যদি সাধারণ বীমা করে থাকেন তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে এটি আপনাকে বিশাল আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে বাঁচাতে পারে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

Q. সাধারণ বীমা কত ধরনের হয়?
A. স্বাস্থ্য বীমা, মোটর বীমা, ভ্রমন বীমা, গৃহ বীমা, অগ্নি বীমা। বাণিজ্যিক দিক থেকে – সম্পত্তির বীমা, নৌ বীমা, ইঞ্জিনিয়ারিং বীমা।

Q. জীবন বীমা ও সাধারণ বীমার মধ্যে পার্থক্য কোথায়?
A. জীবন বীমা এমন একটি চুক্তি যা আপনার জীবন ঝুঁকি নিশ্চিত করে এবং বিনিয়োগের ক্ষেত্রের মতো কাজ করে। সাধারণ বীমা ক্ষতিপূরণের একটি চুক্তি যা আপনার ক্ষতিগুলি ভালো করার প্রতিশ্রুতি দেয়।

Q. বীমা সংক্রান্ত নীতিগুলি কী কী?
A. পরম ভাল বিশ্বাস/Utmost Good Faith, বীমাযোগ্য স্বার্থ/Insurable Interest, অব্যবহিত কারণ/Proximate Cause, ক্ষতিপূরণ/Indemnity, প্রতিস্থাপনের/Subrogation, অবদান/Contribution. ক্ষতি কমানো/Loss Minimization।

Q. ভারতে কতগুলি সাধারণ বীমা সংস্থা রয়েছে?
A. ভারতে সাধারণ বীমা ব্যবসায় ৩০ টি সাধারণ বীমা সংস্থাগুলির সমন্বয়ে স্বাস্থ্য বীমা, মোটর বীমা, গৃহ বীমা, ভ্রমণ বীমা, অগ্নি বীমা ইত্যাদির মতো বীমা সরবরাহ করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here