বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফিঃ ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি জীবনী

বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি ( BIOGRAPHY )

 

জন্ম তারিখ ১৯৮৮ সাল, ৫ ই নভেম্বর

(বয়স ৩০)

জাতি হিন্দু
রাশি বৃশ্চিক
ডাকনাম চিকু
জন্ম স্থান দিল্লি
পেশা ভারতের ক্রিকেটার ব্যাটসম্যান এবং

বর্তমান অধিনায়ক

উচ্চতা ৫ ফুট ৯ ইঞ্চি
শখ ক্রিকেট, মিউজিক, ভ্রমণ, ওয়ার্ক আউট,

পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানো

বিরাট কোহলি পরিবার

পিতা প্রেম কোহলি
মাতা সরোজ কোহলি
স্ত্রী অনুষ্কা শর্মা কোহলি
ভাই বিকাশ কোহলি
বোন ভাবনা কোহলি

পুরস্কার প্রাপ্ত

২০১২ সাল আইসিসি ওয়ান ডে ইন্টারন্যাশনাল

প্লেয়ার অফ দ্য ইয়ার

২০১২ সাল প্রিয় খেলোয়াড়ের জন্য

পিপলস চয়েস অ্যাওয়ার্ডস

২০১৩ সাল ক্রিকেটের জন্য

অর্জুন পুরস্কার

২০১৭ সাল পদ্মশ্রী পুরস্কার
২০১৭ সাল আইসিসি ওয়ার্ল্ড ক্রিকেটার

অফ দ্য ইয়ার

২০১৭ সাল আইসিসি ওয়ার্ল্ড

টেস্ট XI (অধিনায়ক)

শৈশব জীবনে এবং শিক্ষা জীবনের বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি

শৈশব জীবনে এবং শিক্ষা জীবনের বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি

১৯৮৮ সালের ৫ ই নভেম্বর দিল্লি শহরে জন্মগ্রহণ করেছিলে ভারতের ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি। বাবা প্রেম কোহলি একজন আইনজীবী ছিলেন। মা সরোজ কোহলি একজন গৃহবধূ। তার দুই ভাইবোন। ভাই বিকাশ কোহলি, বোন ভাবনা কোহলি। কোহলি তার বাবা খুব প্রিয় ছিলেন। শিশু বয়স থেকেই তার খেলাধুলোর দিকে ঝোঁক ছিল বেশি। মাত্র তিন বছর বয়স থেকে ক্রিকেটের ব্যাট হাতে নিয়ে বাবাকে বোলিং করতে বলতেন।

বিরাট কোহলি বিশাল ভারতি পাবলিক স্কুল স্যাভিয়ের কনভেন্টে পড়াশুনো করেছিলেন। কিন্তু শিক্ষাগত জীবনে সঙ্গে তার ক্রিকেটের প্রতি আগ্রহ দিন দিন বাড়তে থাকে। পড়ার যুবকদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলতেন এবং অলিগলি মানুষেরা তার ক্রিকেটের প্রতিভা দেখে আকৃষ্ট হয়েছিলেন। তাই কোহলির বাবা তাঁর প্রতিভা নষ্ট যাতে না হয়ে যায় তার জন্য তাকে ৯ বছর বয়েসেই দিল্লির ক্রিকেট কোচিং অ্যাকাডেমিতে পাঠাতেন। ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে বিরাট কোহলি রাজ কুমার শর্মা অধীনে ক্রিকেট শেখেন ছিলেন এবং সুমিত দোগারা অ্যাকাডেমিতে ম্যাচ সুযোগ পেয়েছিলেন।

খেলোয়াড় জীবনে বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি

খেলোয়াড় জীবনে বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি

২০০২ সালে বিরাট কোহলি দিল্লির অধীনে ১৫ টি দলে জন্য খেলেছিলেন। ২০০২-২০০৩ সালে লি উমিগ্রার ট্রফি টুর্নামেন্টে শীর্ষস্থান দখল করেন “ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ” সিরিজ লাভ করেন। আর সেই পুরস্কার তাকে ভারতীর টিমের সেরা বোলার আশিস নেহারা দিয়েছিলেন।

বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি

২০০৪ সালে বিজয় মার্চেন্ট ট্রফি খেলার জন্য দিল্লির অধীনে ১৭ টি দলের মধ্যে নির্বাচিত হয়। এবং দুই ম্যাচে গড়ে ৪৭০ রান করে নজর কেড়ে ছিলেন। পরের বছরও কোহলি তার দুর্দান্ত পারফরমেন্স পুনরাবৃত্তি এবং ২০০৪-২০০৫ সালে বিজয় মার্চেন্ট ট্রফি জেতার জন্য দিল্লিকে সহায়তা করেছিলেন।

তার ধারাবাহিক পারফরমেন্স ২০০৬ সালে ইংল্যান্ড সফরে ভারতের অধীনে ১৯ স্কোয়াডে খেলার জন্য স্থান অর্জন করে নিয়েছিলেন। সেই দিনটি ছিল তার স্বপ্ন পূরণের দিন। ইন্ডিয়ার জার্সিতে প্রথম বারের মতো ইংল্যান্ড সফরে খেলতে শুরু করেন। সব ঠিকঠাক ভাবেই চলছিল কিন্তু ২০০৬ সালে ১৮ ই ডিসেম্বর তার বাবা প্রেম কোহলি ব্রেন স্ট্রোকে অকাল মৃত্যু ঘটে। তার বাবার দুনিয়া ছেড়ে চলে যাওয়ার খবর তা তিনি মেনে নিতে পারেন নি। কারণ বিরাটের জীবনে আদর্শ ছিলেন তার বাবা। তিনি তার বাবাকে খুব ভালোবাসতেন এবং তার ক্রিকেট জীবনে সাফল্যের পিছনে একমাত্র তার সেই প্রিয় মানুষটির অবদান ছিল। তাই সেই সময়টা বিরাট কোহলি মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছিলেন।

বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি

বাবার মারা যাওয়ার পর তার কাঁধে আরও দায়িত্ব থাকায় বেশি গুরুত্ব সহকারে খেলতে শুরু করেন। ২০০৮ সালে, মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত ২০০৮ আইসিসি আন্ডার -১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে তিনি ভারতীয় দলের নেতৃত্বের নেতৃত্ব দেন। এর পর তিনি ভারতীয় প্রিমিয়ার লিগ ফ্র্যাঞ্চাইজি, রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের একটি যৌথ চুক্তিতে ৩০০০০ ডলারে কিনেছিলেন।

২০০৮ সালে শ্রীলঙ্কার সফরের জন্য ভারতীয় ওডিআই স্কোয়াডের জন্য তাকে নির্বাচিত করা হয়। সফরের সময় নিয়মিত ওপেনার শচীন তেন্ডুলকার ও সেহবাগ উভয়েই আহত হন সফরকালে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভারত প্রথম ওডিআই সিরিজ জয় করে ৩-২ জিতেছে।

২০০৯ সালে তার পারফরমেন্স ধারাবাহিকভাবে চলতে থাকে। ২০০৯ সালের আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৭৯ রান করার পর তিনি তার প্রথম ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ পুরস্কার পান। পরে একই বছরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওডিআই সিরিজেই তিনি ১১১ বলে ১০৭ রানের জুটি গড়েন।

২০১১ সালের ডিসেম্বরে অস্ট্রেলিয়ার ভারত সফরকালে টেস্ট ক্রিকেটে তিনি তার চিহ্ন তৈরি করেছিলেন। ভারত টেস্ট সিরিজে ৪-০ ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিল তবে সিরিজটিতে ভারতের সর্বোচ্চ রান-রানার ভিরাট কোহলি ছিলেন। অ্যাডিলেডে চতুর্থ ও চূড়ান্ত ম্যাচের প্রথম ইনিংসে তিনি তার প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করেছিলেন; ইনিংসে ১১৬ রান করেন তিনি।

বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি

২০১২ সালের এশিয়া কাপে কোহলি অধিনায়ক নিযুক্ত হন । পাকিস্তানের বিপক্ষে চূড়ান্ত গ্রুপ পর্যায়ে তিনি ১৮৩ রান করেন এবং ওডিআই-তে পাকিস্তানের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর করেন এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রায়ান লারার ১৫৬ রানের দীর্ঘ রেকর্ডটি ভেঙে দেন। তার দুর্দান্ত পারফরম্যান্স সত্ত্বেও ভারত টুর্নামেন্টের ফাইনালে অগ্রগতি অর্জন করতে পারেনি।

ওডিআইতে তার পারফরম্যান্সের জন্য ভাল পরিচিত হলেও কোহলিও একজন দক্ষ টেস্ট খেলোয়াড়। ২০১৪ সালে তিনি ভারতীয় টেস্ট দলে অধিনায়ক হন। একই বছরে অস্ট্রেলিয়ার সফরে তিনি চার টেস্টে মোট ৬২২ রান সংগ্রহ করেছেন- অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট সিরিজের কোনও ব্যাটসম্যানের দ্বারা।

২০১৫ সালে তার ক্যারিয়ারের অস্থায়ী হতাশা দেখা দেয় যখন তিনি কোন বড় স্কোর করতে পারেননি। তবে, খুব শীঘ্রই তিনি তার ফর্মটি ফিরে পান এবং একই বছরে দক্ষিণ আফ্রিকার সফরকালে টি ২০ ক্রিকেটে ১০০০ রান করার জন্য বিশ্বের দ্রুততম ব্যাটসম্যান হয়ে ওঠে।

২০১৬ সালে দুর্দান্ত ফর্ম ছিল। তার দুর্দান্ত ব্যাটিং পারফরম্যান্স ভারতকে অনুষ্ঠিত টি ২০ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পৌঁছেছে।

বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি ব্যক্তিগত জীবনঃ

বিরাট কোহলি বায়োগ্রাফি - ব্যক্তিগত জীবনঃ

বিরাট কোহলি বলিউড অভিনেত্রী অনুষ্কা শর্মা সঙ্গে কিছুদিন প্রেমের সম্পর্কে আবদ্ধ ছিল এবং কয়েকদিন পর বিচ্ছেদ হয়ে যায়। তবে পরে ২০১৭ সালে ১১ ডিসেম্বর তাদের দুইজন বাগদান সম্পন্ন হয়।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ
  • বিরাট কোহলি আয় কত?
  • $ ৬৩ মিলিয়ন ডলার।
  • বিরাট কোহলির জন্মদিন কবে?
  • ৫ ই নভেম্বর।
  • বিরাট কোহলি এবং অনুষ্কা শর্মার বিয়ে কবে হয়েছে?
  • ২০১৭ সালের ১১ ই ডিসেম্বর।
  • বিরাট কোহলির উচ্চতা কত?
  • ৫ ফুট ৯ ইঞ্চ।
  • বিরাট কোহলির বয়স কত?
  • ৩০ বছর ।
  • বিরাট কোহলির কি গাড়ি প্রিয়?
  • বিরাট গাড়ির শখ চিরদিনের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here