জেনে রাখুন ইক্যুইটি শেয়ার কত প্রকার এবং কি কি

ইক্যুইটি শেয়ার কত প্রকার

ইক্যুইটি  শেয়ার কত প্রকার

সূত্র :- i.ytimg . com

ইক্যুইটি শেয়ার সমস্ত শেয়ারগুলির মধ্যে জনপ্রিয়। সাধারণত আমরা যারা শেয়ারের কথা বলি, সেটা ইক্যুইটি শেয়ার নয়। ইক্যুইটি শেয়ার কোন কোম্পানির জন্য অর্থনৈতিকের মূল উৎস। যেখানে বিনিয়োগকারীদের সম্পদ এবং লাভের উপর অধিকার থাকে। বিভিন্ন ধরনের ইক্যুইটি শেয়ার রয়েছে যেমন অথরাইজইড, বোনাস, ইস্যু, রাইট, বোনাস, পরিশোধিত, সুইট শেয়ার ইত্যাদি।

সাধারণত, কোম্পানির মালিক বা প্রবর্তকদের কাছ থেকে মূলধনের প্রথম উৎস হিসাবে ইক্যুইটি অর্থনৈতিক সাথে একটি কোম্পানি শুরু হয়। নির্দিষ্ট প্রবৃদ্ধির পরে, আরও বৃদ্ধির জন্য আরও মূলধনের প্রয়োজন হয়। কোম্পানিটি তখন বন্ধু, আত্মীয়, বিনিয়োগকারী পুঁজিপতি, মিউচুয়াল ফান্ড থেকে বিনিয়োগকারী খোঁজে এবং বিনিয়োগকারীদের শেয়ার ইস্যু করে থাকে।

আজকের এই নিবন্ধে ইক্যুইটি শেয়ার কি এবং রইল ইকুইটি শেয়ার কত প্রকার সেই সম্পর্কিত তথ্য।

ইক্যুইটি শেয়ার কি?

ইক্যুইটি শেয়ার বলা হয় যার মধ্যে কোনও ডিভিশনে নির্ধারিত হয় না এবং যার মধ্যে বিনিয়োগকারী অর্থ শেয়ারদাতাদের মালিকনা বলে গণ্য হয়। ধরুন যে কোনও কোম্পানী ১০০ টি শেয়ার বাজারে বিক্রি করে দিয়েছে এবং অন্য কোন বিনিয়োগকারী ২0 টি শেয়ার কিনে নিয়েছে তার মানে হ’ল বিনিয়োগকারী এখন ২০ শতাংশ শেয়ারের মালিক।

কোম্পানী আপনার সব ঋণ এবং ঋণের সুদ এবং প্রফেসর শেয়ারহোল্ডারদের অনাদায়ী টাকা পরিশোধের পরে ইক্যুইটি শেয়ার হোল্ডারদের সাথে মুনাফা দান করে মূলধন ফেরত দেয়! ইক্যুইটি শেয়ার হোল্ডারদের মধ্যেও কোম্পানির ক্ষেত্রে কোনও অধিকার নেই যা হ’ল ডেমোক্র্যাটিক হ্যায়! যার কাছে আরো শেয়ার থাকে সে বোর্ডের পরিচালক হতে পারে।

ইক্যুইটি শেয়ার কত প্রকার

সূত্র :- efinancemanagement . com

ইক্যুইটি শেয়ার কত প্রকার

অনুমোদিত শেয়ার ক্যাপিটাল

এটি সর্বোচ্চ পরিমাণ মূলধন যা একটি কোম্পানী ইস্যু করতে পারে। কোম্পানি সময়ে সময়ে এটি বৃদ্ধি করতে পারেন। এর জন্য আমাদের কিছু আনুষ্ঠানিকতা মেনে চলতে হবে যা আইনি সংস্থার কিছু ফি দিতে হবে।

সাবস্ক্রাইব শেয়ার ক্যাপিটাল

সাবস্ক্রাইব শেয়ার ক্যাপিটাল

সূত্র :- wisdomcapital . in

এটি ইক্যুইটি মূলধনের অংশ যা বিনিয়োগকারী স্বীকার করে এবং সম্মত হয়।

ইস্যু শেয়ার মূলধন

এটি সেই সংস্থার অনুমোদিত অংশ যা কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের প্রস্তাব দেয়।

পরিশোধিত মূলধন

পরিশোধিত মূলধন

সূত্র :- erisingapore . com

এটি সাবস্ক্রাইবকৃত মূলধনের অংশ, যা বিনিয়োগকারীদের প্রদান করে। সাধারণত, সমস্ত সংস্থা এক শটে সম্পূর্ণ অর্থ গ্রহণ করে এবং তাই জারি করে, সাবস্ক্রাইব করা এবং প্রদত্ত মূলধন এক হয়ে যায়। ধারণাগতভাবে, পরিশোধিত মূলধনটি এমন পরিমাণ অর্থ যা কোনও সংস্থার ব্যবসায়ে আসলে বিনিয়োগ করে।

ইক্যুইটি শেয়ারের বিভিন্ন মূল্যঃ

ইক্যুইটি শেয়ারের বিভিন্ন মূল্যঃ

সূত্র :- image.slidesharecdn . com

ইক্যুইটি শেয়ার কত প্রকার তা তো আমরা উপরের আলোচনায় জেনে নিলাম। এবার আপনাদের জানাব ইক্যুইটি শেয়ারের বিভিন্ন মূল্য সম্পর্কিত তথ্য।

মুখ্য মূল্য অথবা ফেস ভ্যালুঃ

ফেস ভ্যালু হল শেয়ারের মূল্য যা আমরা একাউন্ট বুকসে রেকর্ড করে রাখি।

ইস্যু মূল্যে বা ইস্যু প্রাইসঃ

এটি হল সেই মূল্য যা কোম্পানি বিনিয়োগকারীকে অফার করে থাকে। নতুন কোম্পানিগুলির ক্ষেত্রে মুখ্য মূল্য এবং ইস্যুর মূল্য একই হয়ে থাকে।

সিকিউরিটি প্রিমিয়ামঃ

যখন মুখ্য মূল্যের চেয়ে বেশি দামে কোন শেয়ার ইস্যু করা হয়, ওই অতিরিক্ত মূল্যকে প্রিমিয়াম বলা হয়।

বুক ভ্যালুঃ

পরিশোধিত শেয়ারের সঙ্গে রিজার্ভ অ্যান্ড সারপ্লাস যোগ করে যেই ভ্যালু আসে তার সঙ্গে কোম্পানির মোট ইক্যুইটি শেয়ার বাদ দেওয়ার পরই বুক ভ্যালু গণনা করা হয়

বাজার মূল্যঃ

স্টক এক্সচেঞ্জের তালিকাভুক্ত কোম্পানির ক্ষেত্রে শেয়ারের বাজার মূল্য দামেই বর্তমান বাজারে বিক্রি করা হয়। এটিকে স্টক মার্কেট ভ্যালুও বলা হয়ে থাকে।

আশা করি আজকের এই নিবন্ধে ইক্যুইটি শেয়ার সম্পর্কে আপাদের ছোট ধারণা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here