বাংলার আর্থিক অবস্থাঃ পশ্চিম বাংলার আর্থিক অবস্থা

পশ্চিমবঙ্গের অবস্থানঃ

পশ্চিমবঙ্গ অর্থনীতির দিক থেকে ষষ্ঠ বৃহত্তম রাজ্য। ১৯৮০ দশকের পর থেকে খাদ্য উৎপাদনে রাজ্যটি অগ্রসর হয়েছে। এই রাজ্যটি জনসংখ্যা ভারতের জনসংখ্যার মাত্র পনেরো শতাংশ। ২০১৪ সালে জিডিপি পরিমাণ ছিল ১৩৮ বিলিয়ন ডলার। ২০১৬ সালে জিডিপি পরিমাণ দাঁড়ায় ১৪০ বিলিয়ন ডলার। স্বাধীনতার প্রথম দশকে রাজ্যগুলির মধ্যে এই রাজ্যটি সর্ববৃহৎ অর্থনীতি ছিল। ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলনের ফলে বাংলার আর্থিক অবস্থা পতন ঘটে।
পশ্চিমবঙ্গ শিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত বড় ও মাঝারি শিল্পের জন্য ১২ টি উন্নয়ন কেন্দ্রস্থল রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের প্রধান শিল্প কেন্দ্রিক অঞ্চলগুলি হল কলকাতা, হলদিয়া, খড়গপুর, আসানসোল ও দুর্গাপুর।

পশ্চিমবঙ্গের অবস্থানঃ

সূত্র :- goibibo . com

পশ্চিমবঙ্গের অবস্থানঃ-

পশ্চিমবঙ্গ পূর্ব ভারতে অবস্থিত এবং বঙ্গোপসাগর রাজ্যের দক্ষিণে অবস্থিত। পশ্চিমবঙ্গ বাংলাদেশ, নেপাল এবং ভুটান এর সঙ্গে আন্তর্জাতিক সীমানা ভাগ করা।
পশ্চিমবঙ্গ ভারতবর্ষের দ্বিতীয় বৃহত্তম চা উৎপাদক রাজ্য। এটি বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় দার্জিলিং চায়ের আবাসস্থল।
পশ্চিমবঙ্গ খনিজ ও কৃষি, উদ্যান ও মৎস্য জন্য উপযুক্ত কৃষি -জলবায়ুগত অবস্থার প্রচুর প্রাকৃতিক সম্পদ আছে। এটি ঝাড়খন্ড, বিহার ও ওড়িশার মত খনিজ সমৃদ্ধ রাজ্যগুলির কাছে অবস্থিত। এটি রেলওয়ে, সড়কপথ, বন্দর এবং বিমানবন্দরের পরিপ্রেক্ষিতে বাকি ভারতে অসাধারণ সংযোগ সরবরাহ করে।

সম্পর্কিত নিবন্ধ চেক করুন :- 

বাংলার আর্থিক অবস্থা

সূত্র :- deepsky . co

বাংলার আর্থিক অবস্থা

ভারতীয় জনগণের একটি আলোচিত এবং বিতর্কিত বিষয় হল পশ্চিম বাংলার অর্থনৈতিক পতন। স্বাধীনতার আগে সম্ভবত এটি সর্বাধিক উন্নত অঞ্চল ছিল কিন্তু অর্থনৈতিক অবস্থার পরিবর্তন দেখা যায় ১৯৪৭ সালে পর থেকে।
বাংলার বিভাজন এই অঞ্চলের অর্থনীতিতে প্রথম আঘাত হানে। ১৭৭ সালে কমিউনিস্টরা ক্ষমতায় আসার পর সাধারণত পশ্চিম বাংলার আর্থিক অবস্থার পতন ঘটে।
১৯৮১ সালে বাংলার ভারতে শিল্প উৎপাদন ৯.৮ শতাংশ ছিল। দুই দশকে এই চিত্রটি অর্ধেকে পরিণত হল ৫ শতাংশে। ১৯৮৬ সালে কলকাতার বিমান বন্দরে ভারতের আমদানি ও রপ্তানির পরিমাণ ছিল প্রায় ১০ শতাংশ। তবে বর্তমানে বাংলার আর্থিক অবস্থা উন্নতির জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হছে।

পশ্চিম বাংলার আর্থিক অবস্থা উন্নতির জন্য সরকার কর্তৃক কয়েকটি উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। উদ্যোগগুলি নীচে তালিকাভুক্ত করা হল –

1. রাজ্য সরকার পশ্চিমবঙ্গ তথ্য প্রযুক্তি এবং ইলেকট্রনিক্স নীতি ২০১৮ সালে চালু করেছে যা আইটি, আইটিইএস, আইসিটি এবং ইএসডিএম সেক্টরে ভারতের অন্যতম নেতৃস্থানীয় রাজ্য হিসাবে পশ্চিমবঙ্গকে বিবেচনা করেছে।

2. ২০১৮ সালের আগস্ট মাসে রাজ্য সরকার আইটি, আইটিইএস, আইসিটিতে বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য সিলিকন ভ্যালি আইটি হাব প্রকল্প চালু করেছে এবং নতুন প্রযুক্তি ও নতুনত্বের জন্য অত্যাধুনিক ইকোসিস্টেম তৈরি করেছে।

3. উদ্যোক্তাদের আকৃষ্ট করতে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কস অ্যান্ড গ্রোথ সেন্টারে বিকাশ ও আধুনিকায়নের জন্য ২০১৮ – ২০১৯ সালের রাজস্ব বাজেটে ১২৩ কোটি টাকা বাড়ানো হয়েছে।

4. রাজ্য টেক্সটাইল নীতি ২০১৩ – ২০১৮ লক্ষ্য করে ২০১২ – ২০১৫ আর্থিক বাজার ২০২২ – ২০২৩ নাগাদ রাজস্ব জিডিপির 10 শতাংশে সেক্টরের অবদান বৃদ্ধি পাবে।

5. রেল উন্নয়ন লিমিটেড ( আরভিএনএল ) নোয়াপাড়া থেকে দক্ষিণেশ্বর পর্যন্ত ৪.৩৮ কিমি প্রশস্ত মেট্রো রেল নির্মাণের কাজ শুরু করবে। ২০১৯ মে মাসের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

6. পশ্চিমবঙ্গ দেশের আইটি রপ্তানিতে ২০৩০ সাল নাগাদ তার শেয়ার বাড়াতে চায়। রাজ্যটির আইটি সেক্টরের মোট রপ্তানির পরিমাণ কমেছে। ২০১৬ -২০১৭ সালে 19,000 কোটি টাকা।

আশা করা যাচ্ছে, ভবিষ্যতে পশ্চিম বাংলার আর্থিক অবস্থা উন্নতির পথে অগ্রসর হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here