সত্যজিৎ রায় শৈশব, শিক্ষাজীবন এবং ক্যারিয়ার জীবন

সত্যজিৎ রায়

সত্যজিৎ রায়

পুরো নামঃ সত্যজিৎ রায়

জন্মঃ ২রা মে, ১৯২১ সাল

পেশাঃ চলচ্চিত্র নির্মাতা

স্কুলঃ বালিগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়

কলেজঃ প্রেসিডেন্সি কলেজ, শান্তিনিকেতন বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়

জাতীয়তাঃ ভারতীয়

প্রথম ফিল্মঃ পথের পাঁচালী

বাবার নামঃ সুকুমার রায়

মায়ের নামঃ সুপ্রভা রায়

শহরঃ কলকাতা

মৃত্যুঃ ২৩ শে এপ্রিল, ১৯৯২ সাল

সত্যজিৎ রায়

সত্যজিৎ রায় একজন প্রখ্যাত ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতা। পাশাপাশি তিনি একজন চিত্রনাট্যকার, শিল্প নির্দেশক, সঙ্গীত পরিচালক এবং লেখক। তিনি ভারতীয় বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতাদের মধ্যে একজন। সত্যজিৎ রায়, ছোট বেলা থেকেই শিল্পী, সাহিত্যিক ও সংগীতজ্ঞদের এক বিশিষ্ট পরিবার থেকে এসে বিনোদন জগত বড় করে তোলার লক্ষণ দেখিয়েছিলেন। বিখ্যাত ফিল্ম পথের পাঁচালী দিয়ে শুরু হয় তার ক্যারিয়ার জীবন। তার পুরো জীবন তিনি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সমালোচকদের এবং দর্শকের কাছ থেকে প্রশংসা পেয়েছেন। প্রচুর পুরস্কার লাভ করে গেছেন তার জীবনে তিনি। চলচ্চিত্র ছাড়াও রায় কথাসাহিত্যিক, প্রকাশক, চিত্রকর, ক্যালিগ্রাফার, গ্রাফিক ডিজাইনার এবং চলচ্চিত্র সমালোচক হিসাবে কাজ করেছিলেন।

সত্যজিৎ রায় এমন একজন চলচ্চিত্র নির্মাতা যিনি দেশজুড়ে সবার প্রিয় একজন ব্যক্তি। আজকের নিবন্ধে আমরা এই বিখ্যাত ফিল্ম মেকারের জীবন কাহিনী কথা জানাব। আজকের এখানে সত্যজিৎ রায়ের শৈশব, শিক্ষা, কর্মজীবন এবং ব্যক্তিগত জীবনের কথা জানব।

আরও পড়ুনঃ মাদার টেরেসা শৈশব, প্রাথমিক এবং কর্মজীবন

সত্যজিৎ রায়ের শৈশব এবং শিক্ষাজীবন (Satyajit Ray’s Childhood & Early Life):

সত্যজিৎ রায়ের শৈশব এবং শিক্ষাজীবন (Satyajit Ray’s Childhood & Early Life)

১৯২১ সালে ২রা মে, কলকাতায় একটি ধনী বাঙালি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন সত্যজিৎ রায় । তার পিতার নাম সুকুমার রায়। এবং মায়ের নাম সুপ্রভা রায়। বালিগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে তিনি প্রাথমিক পড়াশুনো শেষ করে এবং পরে তিনি কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে অর্থনীতিতে বি.এ পাস করেন।

মায়ের কাছ থেকে অনেক জেদ এবং প্ররোচনার পরে তিনি অনিচ্ছায় শান্তিনিকেতন বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় পড়েন এবং সেখানে গিয়ে তিনি ভারতীয় শিল্পের প্রতি গভীর ভালোবাসা খুঁজে পান।

আরও পড়ুনঃ সত্যেন্দ্রনাথ বসু শৈশব, কর্মজীবন এবং ব্যক্তিগত জীবন

সত্যজিৎ রায়ের ক্যারিয়ার জীবন (Satyajit Ray’s Career Life):

সত্যজিৎ রায়ের ক্যারিয়ার জীবন (Satyajit Ray’s Career Life)

ব্রিটিশ পরিচালিত বিজ্ঞাপন সংস্থা থেকে তার প্রথম কাজের প্রোফাইল শুরু হয়। এর পাশাপাশি তিনি তিনি ডি কে গুপ্তের সাথে সিগনেট প্রেসে কাজ করেছিলেন এবং বিভিন্ন বইয়ের কভার ডিজাইন তৈরি করেছিলেন। এই সময়েই সিগনেট প্রেসে তিনি শিশুদের উপন্যাস, পথের পাঁচালী নিয়ে কাজ করেছিলেন যা তাকে এতটাই অনুপ্রাণিত করেছিল যে এটি পরবর্তীকালে এটি তার প্রথম চলচ্চিত্রের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

১৯৪৭ সালে তিনি চিদানন্দ দাসগুপ্তের সঙ্গে কলকাতা ফিল্ম সোসাইটি প্রতিষ্ঠা করেন। সংস্থাটি বিদেশি চলচ্চিত্র প্রদর্শন করেছিল, যার বেসিরভাগ সময় চলচ্চিত্র নির্মাতা ও লেখক হিসাবে তাঁর পরবর্তী কেরিয়ারের জন্য একটি গাইড শক্তি হয়ে ওঠে।

যখন সত্যজিৎ রায় লন্ডনে কেমার অফিসে কর্মরত ছিলেন তখন থেকে ফিল্মমেকার হওয়ার উপলব্ধি করেন। এই সময় তিনি বেশ কয়েকটি সিনেমা দেখেন, যা তাকে একজন পেশাদার চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য অনুপ্রাণিত করেছিল।

ভারতে ফিরে এসে তিনি চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য তাঁর নতুন-সন্ধানের কাজ শুরু করেছিলেন। একদল অনভিজ্ঞ স্টাফ এবং অপেশাদার অভিনেতাদের পাশাপাশি তিনি ‘পথের পাঁচালী’ থেকে চলচ্চিত্র নির্মাণের স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উদ্যোগী হয়েছিলেন। তিনি বছর ধরে কিছু সমস্যার মুখোমুখি হওয়ার পর সত্যজিৎ রায় অবশেষে ১৯৫৫ সালে ছবিটি রিলিজ করেন। সত্যজিৎ রায়ের “পথের পাঁচালী” একটি অসাধারণ ডেবিউ ছিলেন এবং সমালোচক এবং শ্রোতাদের মনে কাছে দুর্দান্তভাবে সাড়া ফেলে এবং প্রচুর প্রশংসা অর্জন করেন। দেশের বাইরেও এই ছবি বিশেষভাবে ইতিবাচক সাড়া পায়।

পথের পাঁচালি তার ক্যারিয়ার জীবনকে অনেকটাই সাফল্যের পথে এগিয়ে নিয়ে যায় এবং তার পরবর্তী ছবি ‘অপরাজিতা’ সংস্কৃত চলচ্চিত্র নির্মাতা হিসাবে তাঁর অবস্থান দৃঢ় করে তোলে। এটি ভেনিস ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে তাকে সোনার সিংহ অর্জন করার সুযোগ করে দেয়। এরপর তার কমেডি ফিল্ম ‘পরশ পাথর’ এবং জলসা ঘর’। এমন একটি ফিল্ম যা জমিদারদের সামাজিক অবক্ষয়কে চিত্রিত করে।

অপুর যে চরিত্রটি তিনি ‘পথের পাঁচালী’ তে প্রবর্তন করেছিলেন এবং অপরাজিতার মাধ্যমে এগিয়ে এসেছিলেন। অবশেষে ১৯৫৯ সালে তার মুক্তি প্রাপ্ত ছবি ‘অপুর সংসার’। এই ছবিটি চূড়ান্ত সাফল্যে পেয়েছিল এবং মুভিটি সর্বোচ্চ শীর্ষে স্থান পেয়েছে। এটি পর্যন্ত প্রদর্শিত ক্লাসিক চলচ্চিত্রগুলির মধ্যে একটি হয়ে উঠেছে।

সত্যজিৎ রায়

তিনি কেবল পরিচালক এবং স্ক্রিপ্ট-লেখক হিসাবেই নয় বরং ক্যামেরাম্যান এবং সংগীত স্কোরার হিসাবেও কাজ করেছেন। তিনি তার ছবিতে নতুন এবং বিভিন্ন থিম তৈরি করার চেষ্টা করেছেন। ১৯৬১ সালে সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে তিনি বাচ্চাদের ম্যাগাজিন সন্দেশকে পুনরুজ্জীবিত করেছিলেন।

তথ্যবহুল এবং বিষয়বস্তুতে মজাদার এই ম্যাগাজিনটি তাকে লেখার এবং চিত্রণে একটি ক্যারিয়ার শুরু করতে সহায়তা করেছিল। ১৯৬৪ সালে তিনি তাঁর সবচেয়ে দক্ষ ও স্বীকৃত চলচ্চিত্র ‘চারুলতা’ নিয়ে এসেছিলেন। তার ক্যারিয়ারে এটি ম্যাগনাম ওপাস ফিল্ম হিসাবে চিহ্নিত, এটি সমালোচক এবং দর্শকদের দ্বারা ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছে।

১৯৬৫ থেকে ১৯৮২ সাল পর্যন্ত তিনি তিনি চলচ্চিত্র নির্মাণের বিভিন্ন ধারায় আত্মপ্রকাশ করেছিলেন, কথাসাহিত্য, কল্পনা, গোয়েন্দা চলচ্চিত্র এবং ঐতিহাসিক নাটকগুলি করেছিলেন। এমনকি তিনি সমসাময়িক ভারতের ইস্যু তুলে ধরে অন স্ক্রিনে চিত্রিত করেছিলেন।

দ্য এলিয়েন’ চলচ্চিত্রের মার্কিন-ভারত সহ-প্রযোজনার ব্যর্থ হওয়ার পর তিনি একটি সংগীত কল্পনা নিয়ে এসেছিলেন ‘গুপি জ্ঞান বাঘা বাইনে’। এটি আজ অবধি তার বাণিজ্যিকভাবে সবচেয়ে সফল চলচ্চিত্র হয়ে উঠেছে। আজ অবধি মানুষ মনে এই ছবিটি জাগ্রত রয়েছে। চলচ্চিত্রের সাফল্য তাকে একই শিরোনামের একটি সিক্যুয়াল নিয়ে আসে হিরাক রাজার দেশ। যা ইন্দিরা গান্ধীর জরুরী সময়কালীন সময়ে কার্যকর হয়।

১৯৮৪ সালে তার শেষ ছবি ‘ঘরে বাইরে’ মুক্তিপ্রাপ্ত হয়েছিল যা সত্যজিৎ রায়ের অসুস্থতায় আক্রান্ত হওয়ার আগে শেষ ছবি। উৎসাহী জাতীয়তাবাদের ঝুঁকি নিয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উপন্যাসের উপর নির্মিত এই চলচ্চিত্রটি সমালোচকদের কাজে প্রশংসা পেয়েছে।

চিকিত্সা সংক্রান্ত জটিলতা এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যাগুলি সমাধান করার সঙ্গে সঙ্গে তার কেরিয়ারের গ্রাফটি হ্রাস পেয়েছে। জীবনের শেষ নয় বছরে তিনি কেবল তিনটি ছবি নিয়ে এসেছিলেন গণশত্রু, শাখা প্রশাখা, আগন্তুক এগুলি সবই তার আগের প্রযোজনার সাথে সামঞ্জস্য ছিল না।

তার প্রথম চলচ্চিত্র ‘পথের পাঁচালী’ একটি রেকর্ড ব্রেকিং ফিল্ম ছিল এবং একটি সংস্কৃত মর্যাদা পেয়েছিল। একটি আধা-আত্মজীবনমূলক সিনেমাটি এগারোটি আন্তর্জাতিক পুরষ্কার জিতেছে। ছবিটির সাফল্য এবং গ্র্যান্ড রিসেপশনের মাধ্যমে ‘অপরাজিতা’ এবং ‘অপুর সংসার’ মুক্তি পেয়েছিল। ১৯৬৪ সালে তার মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি চারুলতা’ তাঁর কেরিয়ারের সবচেয়ে সফল চলচ্চিত্র হয়ে ওঠে। ছবিটি ব্যাপক সমালোচনামূলক স্বীকৃতি এবং দর্শকদের প্রশংসা পেয়েছে। ছবিটি তাঁর কেরিয়ারের একটি ম্যাগনাম অপস হিসাবে বিবেচিত হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ অমর্ত্য সেন শৈশব, শিক্ষা, পরিবার ও কর্মজীবন

সত্যজিৎ রায়ের ব্যক্তিগত জীবন (Satyajit Ray’s Personal Life):

১৯৪৯ সালে তার দীর্ঘকালীন প্রিয়তম বিজয়া দাশের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। এই দম্পতির একটি সন্দীপ। যিনিও চলচ্চিত্র নির্মাণে ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন।

আরও পড়ুনঃ প্রশান্ত চন্দ্র মহলানবিশ শৈশব, শিক্ষা ও কর্মজীবন

পুরস্কার ও সম্মান (Awards and honors):

পুরস্কার ও সম্মান (Awards and honors)

  • ১৯৮২ সালে সত্যজিৎ রায় গোল্ডেন লায়ন পুরস্কার পান।
  • চার্লি চ্যাপলিন পরে তিনি দ্বিতীয়বারের মতো চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব যিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডিলিট পেয়েছিলেন।
  • ১৯৮৫ সালে তিনি মর্যাদাপূর্ণ দাদাসাহেব ফালকে পুরষ্কার পেয়েছিলেন এবং দু’বছর পরে ফ্রান্সের সর্বাধিক মর্যাদাপূর্ণ পুরষ্কার, ‘ লেজিওঁ দনরে’ পেয়েছিলেন।
  • ১৯৯২ সালে ভারত সরকার তাকে সর্বোচ্চ সম্মান ‘ভারতরত্ন’ দিয়েছিল।
  • সত্যজিৎ রায়কে তার জীবনকালে, তাকে ৩২ টি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার এবং গোল্ডেন লায়নের তো অসংখ্য আন্তর্জাতিক সম্মান প্রদান করা হয়েছিল।
  • ১৯৯২ সালে তিনি মৃত্যুর ঠিক কয়েকদিন আগে একাডেমি অফ মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সের দ্বারা সম্মানসূচক অস্কার লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিলেন।

আরও পড়ুনঃ আলী আকবর খান শৈশব, শিক্ষা এবং কর্মজীবন

মহাপ্রয়াণঃ

মহাপ্রয়াণঃ

১৯৮৩ সালে তিনি প্রথম হার্ট অ্যাটাক হয়েছিলেন যা কেবল তার চিকিত্সা এবং স্বাস্থ্যের অবস্থা আরও খারাপ করেছিল। ১৯৯২ সালে তিনি বড় হার্টের জটিলতায় ভুগছিলেন যা থেকে তিনি কখনই পুরোপুরি সেরে উঠতে পারেননি। অবশেষে ১৯৯২ সালে ২৩ শে এপ্রিল তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছিলেন।

আরও পড়ুনঃ কাজী নজরুল ইসলাম শৈশব, শিক্ষা, কর্ম, বৈবাহিক জীবন

সত্যজিৎ রায় উত্তরাধিকার দেশজুড়ে সর্বব্যাপী। তার নামে সত্যজিৎ রায় ফিল্ম অ্যান্ড স্টাডি কালেকশন এবং সত্যজিৎ রায় ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইনস্টিটিউট রয়েছে।

সারকথাঃ

সত্যজিৎ রায় ভারতীয় চলচ্চিত্রের দর্শকদের কাছে নায়কের থেকে কিছু কম ছিল না।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রঃ সত্যজিৎ রায় কবে জন্মগ্রহণ করে?

উঃ সত্যজিৎ রায় ১৯২১ সালে ২রা মে জন্মগ্রহণ করেন।

প্রঃ সত্যজিৎ রায় কোথায় জন্মগ্রহণ করে?

উঃ সত্যজিৎ রায় কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

প্রঃ সত্যজিৎ রায়ের প্রথম ফিল্ম কোনটি?

উঃ তার প্রথম ফিল্ম পথের পাঁচালি।

প্রঃ সত্যজিৎ রায় কবে ভারতরত্ন পেয়েছিলেন?

উঃ ১৯৯২ সালে তিনি ভারতরত্ন লাভ করেন।

প্রঃ সত্যজিৎ রায় কীভাবে মারা যান?

উঃ হার্টের অসুখে মারা যান।

প্রঃ সত্যজিৎ রায় কবে মারা যান?

উঃ সত্যজিৎ রায় ১৯৯২ সালে ২৩ শে এপ্রিল মারা যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here