রসগোল্লার ইতিহাস এর পিছনে মূল কারণ

rasgulla.

rasgulla.

রসে ভরা রসগোল্লা বাঙালীদের প্রিয় মিষ্টি।  কলকাতা রাস্তা থেকে রাষ্ট্রপতি ভবনের করিডোর, রসগোল্লা ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় মিষ্টি। একদিকে যেমন বাঙালিরা এটিকে ঐতিহ্য মনে করেন, অন্যদিকে তেমন ওড়িশা তাদের আবিষ্কার মনে করতেন। ইতিহাস পাতা দেখলে রসগোল্লা ইতিহাস এর পিছনে অনেক মতামত রয়েছে। দুই রাজ্যের মধ্যে রসগোল্লা নিয়ে বিরোধ দীর্ঘদিনের। তবে রসগোল্লার ইতিহাস এর পিছনে মূল কাহিনী অনেক রয়েছে। চলুন আজকের এই নিবন্ধ থেকে আমরা জেনে নিই রসগোল্লার ইতিহাস এর কাহিনী।

আরও পড়ুনঃ জেনে রাখুন জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার পদ্ধতি

ওড়িশার রসগোল্লার ইতিহাস

rasgoola

সূত্রঃ- 3 . bp . blogspot . com

অনেক ওড়িয়া বিশ্বাস করেন এই মিষ্টির জন্মস্থান ওড়িশার পুরীতে। ভগবান জগন্নাথ হাঁড়িভরা রসগোল্লা দিয়ে তাঁর স্ত্রী লক্ষ্মীর মান ভাঙিয়ে মন্দিরে ঢুকতে হয় তাকে। একাদশ শতাব্দীতে সাদা বর্ণের কারণে এটি খীর মোহন নামে পরিচিত ছিল এবং এই কারণে ছানা থেকে তৈরি মিষ্টি দিয়ে মহালক্ষ্মীর ভোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক বলে মনে করা হয়। বিশেষ করে রথযাত্রার শেষ দিন ।

যদিও এটি তৈরির পদ্ধতিটি মন্দির দ্বারা গোপন রাখা হয়েছিল, তবে মন্দিরের বাইরে এটি কীভাবে পৌঁছেছে তা জানা মুশকিল। কিছু লোক বিশ্বাস করেন যে মন্দিরের একজন পন্ডিত যখন দেখলেন যে গ্রামে দুধের অতিরিক্ত অপচয় হয়, তখন তিনি লোকদের তা বের করে রসগোল্লা তৈরি করতে শিখিয়েছিলেন।

আরও পড়ুনঃ কলকাতার শহীদ মিনার এর ইতিহাস

কলকাতার  রসগোল্লার ইতিহাস

kolkata

সূত্রঃ- thebetterindia . com

বাঙালিরা বলছেন যে, ১৮৬৮ সালে কলকাতার নবীন চন্দ্র দাস রসগোল্লা আবিষ্কার করেছিলেন এবং যা তাঁর প্রজন্ম তার দ্বারা এগিয়ে নিয়ে যায়। নবীন চন্দ্র দাস জোড়াসাঁকোয় প্রথম তার একটি মিষ্টির দোকান খুলেছিলেন। সাল ১৮৬৪। তবে বেশিদিন না চলায় তিনি সেটি বন্ধ করে ১৮৬৬ সালে বাগবাজারে একটি মিষ্টির দোকান চালু করেছিলেন। এখান তার প্রথম মিষ্টি ছিল সন্দেশ, পরে দুই বছর চেষ্টা করে তৈরি করেন রসগোল্লা।

অনেক শুভাকাঙ্ক্ষী তাদের বলেছিলেন যে তাদের এই মিষ্টির পদ্ধতিটি নিজের নামে পেটেন্ট করা উচিত তবে তিনি রাজি হন নি। তিনি অনেক লোককে কীভাবে এটি তৈরি করবেন তা জানিয়েছিলেন কারণ তিনি বিশ্বাস করেছিলেন যে তাঁর উদ্ভাবন তখনই সফল হবে যখন এটি সারা দেশের মানুষের কাছে পৌঁছবে।

আরও পড়ুনঃ  জেনে নিন বাংলাদেশের পদ্মা সেতু সমস্ত খবরাখবর

দাশের এই আবিষ্কারটি  বাঙালীদের কাছে খুব বিখ্যাত হয়েছিল। কথিত আছে যে, বাগবাজারের বিখ্যাত ডাক্তার পশুপতি ভট্টাচার্য যখনই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাথে দেখা করতে যেতেন তখন এই রসগোল্লা নিয়ে যেতেন।

তবে কলকাতার মিষ্টি আবিষ্কার নিয়ে ভিন্ন মত রয়েছে। কেউ বলে রানাঘাটের বিখ্যাত মিষ্টান্ন হারাধন ময়রা একবারে দুর্ঘটনাক্রমে ফুটন্ত সিরাপে ছানার বল ফেলে রসগোল্লা আবিষ্কার করেছিলেন। উনিশ শতকের শেষের দিকে এবং বিশ শতকের গোড়ার দিকে ভবানিপুরের মল্লিক এবং শোভাবাজারের চিত্তরঞ্জন মিষ্টান্ন ভাণ্ডার এই মিষ্টান্নটির চেহারা বদলে দেয়। আবার বাংলাদেশের মানুষের মতে রসগোল্লা তাদের আবিষ্কার। কারণ এই নবীন চন্দ্র দাস বরিশালে থাকতেন।

একটি গল্পনুযায়ী, বান দাশ বাগলা নামে এক ব্যবসায়ী, যিনি তখন কলকাতায় বাস করতেন, তিনি এই মিষ্টান্ন বহন করে পুরো ভারত ভ্রমণ করেছিলেন। এই কারণে স্থানগুলির অনুসারে এর প্রকৃতি পরিবর্তন হয়েছিল। রাজস্থানে, যেখানে এটি রাসবাড়ি হয়ে গেছে, এটি উত্তর প্রদেশের রাজভোগ নামে পরিচিত। বানারসে লোকেরা একে রসমালাই বলে থাকেন।

আরও পড়ুনঃ  বিভিন্ন ধরণের ফটো এডিটর অ্যাপের বিস্তারিত তথ্য

কলকাতা এবং পুরী রসগোল্লার ভিন্নতা

kolkata rasgola

সূত্রঃ- livemint . com

কলকাতার রসগোল্লা সাদা রঙের এক প্রকার ছানার মিষ্টি যা ছানা ও চিনির রস দিয়ে তৈরি করা হয়। বাংলার রসগোল্লা নরম ও তুলতুলে হয়। রস হয় পাতলা।

অন্যদিকে ওড়িশার রসগোল্লা রঙ হয় লাল। যা ক্ষীর ও সুজি দিয়ে তৈরি হয়। এই রসগোল্লা রস হয় মোটা এবং মিষ্টি স্বাদ আনতে গুড়ের ব্যবহার করা হয়।

তাই দু’বছরের আইনি লড়াইয়ের পর জিওগ্র্যাফিক্যাল ইন্ডিকেশন জানিয়েছে ওড়িশা নয়, রসগোল্লা বাংলার সম্পদ। কারণ নামে মিল থাকলেও দুই রাজ্যের রসগোল্লায় কিছু অমিল রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ অনলাইনে পাসপোর্ট চেক এবং আবেদন করবেন যেভাবে

তাই  সর্বশেষে এটাই বলার রসগোল্লার জন্ম যেই রাজ্যেই হোক না কেন বাঙালীর মিষ্টি রাজা রসগোল্লাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here