মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য দেবের জীবন কাহিনী

sree chaitanya deb

sree chaitanya deb

সুত্রঃ- www . iskconbangalore . org

নাম: চৈতন্য মহাপ্রভু

ডাক নামঃ নিমাই

জন্মঃ ১৮ ই ফেব্রুয়ারি, ১৪৮৬

জন্মস্থানঃ  নবদ্বীপ, পশ্চিম বাংলা

পিতাঃ শ্রীজগন্নাথ মিশ্র

মাতাঃ শ্রীমতী শচীদেবী

ভাইঃ বিশ্বরূপ

পত্নীঃ লক্ষ্মীদেবী

মৃত্যুঃ ১৪ জুন, ১৫৩৪

sri chaitanya

সুত্রঃ- modeindia . co . in

১৫ তম শতাব্দীর আধ্যাত্মিক গুরু মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য। যাকে তাঁর অনুসারীরা ভগবান কৃষ্ণের অবতার বলে মনে করেন। চৈতন্য গৌড়ীয় বৈষ্ণব ধর্ম প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, যা একটি ধর্মীয় আন্দোলন। যা ভগবান বিষ্ণুর উপাসনা বৈষ্ণব বা পরমাত্মা হিসাবে প্রচার করে।

নদিয়া শহরের মায়াপুরে এক ধর্মপ্রাণ ব্রাহ্মণ দম্পতির কাছে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, তিনি খুব সুন্দর শিশু ছিলেন, যিনি সবাইকে আবাক করেছিলেন। তিনি পড়াশুনায় দক্ষতা অর্জন করেছিলেন এবং অল্প বয়সেই পণ্ডিত হয়েছিলেন। গয়া ভ্রমণে তিনি তার গুরু ঈশ্বর পুরী কাছ থেকে গোপাল কৃষ্ণের মন্ত্রে দীক্ষা নিয়েছিলেন।

আজকের নিবন্ধে আমরা মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্যের জীবনের কিছু অজানা কাহিনী জেনে নেব। তাহলে চলুন জেনে নিই শ্রী চৈতন্যের জীবনের সংক্ষিপ্ত কাহিনী।

আরও পড়ুনঃ রামকৃষ্ণ পরমহংস দেবের জীবন কাহিনী

মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য দেবের প্রারম্ভ্রিক জীবন (Mahaprabhu  Chaitanya Dev’s Early Life)

chaitanya

সুত্রঃ- learn . culturalindia . net

১৪৮৬ সালে ১৮ ই ফেব্রুয়ারি মহাপ্রভু চৈতন্য দেবের জন্ম হয়েছিল। তিনি যখন জন্ম হয়েছিলেন তখন ভারতে পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ দেখা গিয়েছিল। যা হিন্দুধর্মের শুভ বলে ধরা হয়। তিনি গৌড়বঙ্গের নদিয়া অন্তর্গত শ্রীধাম নবদ্বীপে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা শ্রীজগন্নাথ মিশ্র এবং মা শ্রীমতী শচীদেবী। তিনি ছিলেন তাঁর বাবা মায়ের দ্বিতীয় সন্তান। তাঁর বড় ভাই বিশ্বরূপ। তাঁর শৈশব নাম ছিল নিমাই।

তিনি ছোট থেকেই মন্ত্র এবং অন্যান্য ধর্মীয় স্তবগুলি আবৃত্তি করতেন এবং পণ্ডিতের মতো জ্ঞানও ছড়িয়ে দিতেন। অনেকে বলতেন যে তাঁর শ্রীকৃষ্ণের কল্পনার সঙ্গে মিল ছিল। তাছাড়াও তিনি যৌবনে কৃষ্ণের উপাসনা শুরু করেছিলেন। ১৬ বছর বয়সে তিনি নিজের স্কুল চালু করেছিলেন, যা থেকে অনেক শিক্ষার্থী আকৃষ্ট হয়েছিল।

শোনা যায় তাঁর জ্ঞান এত বেশি ছিল যে তিনি একবার তর্ক বিতর্কে কেশব কাশ্মীরি নামক এক বিদ্বান ব্যক্তিকে হারিয়ে দিয়েছিলেন। সূত্রে শোনা যায় যে সেই বিতর্কে রাতে কেশব কাশ্মীরি সরস্বতী দেবীর স্বপ্ন দেখেছিলেন এবং দেবী সরস্বতী তাকে মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য কাছে তাঁর পরাজয় স্বীকার করে নেয়।

তিনি কিশোর বয়সে গয়া গিয়েছিলেন এবং সেখানে তাঁর  ঈশ্বর পুরী নামক এক সন্ন্যাসী সঙ্গে দেখা হয়। যিনি পড়ে তাঁর গুরু হয়েছিলেন। মহাপ্রভু চৈতন্য দেব তাঁর শহরে ফিরে এসে বাংলার স্থানীয় বৈষ্ণব ছিলেন।

বাংলায় প্রত্যাবর্তনের পরে তিনি একজন বিশিষ্ট ধর্ম প্রচারক হয়ে ওঠেন এবং অনেক আগেই নদিয়ার মধ্যে বৈষ্ণব গোষ্ঠীর প্রখ্যাত নেতা হিসাবে বিবেচিত হন।

আরও পড়ুনঃ সিস্টার নিবেদিতা প্রাথমিক জীবন এবং কর্মজীবন

মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য দেবের শিক্ষা (Mahaprabhu Chaitanya Dev’s Education)

আট বছর বয়সে তিনি গঙ্গানগরে গঙ্গাদাস পণ্ডিতের গুরুকুলে প্রবেশ করেছিলেন। তিনি একজন মেধাবী ছাত্র ছিলেন এবং পড়াশুনোয় খুব পারদর্শী হয়েছিলেন। অল্প বয়সেই সংস্কৃত ব্যাকরণে ও বক্তৃতাবিদ্যায় পণ্ডিত হন। সিক্সকাস্টম আট শ্লোকের ১৬ তম শতাব্দীর প্রার্থনা শ্রী চৈতন্যের একমাত্র লিখিত রেকর্ড।

আরও পড়ুনঃ অরবিন্দ ঘোষ শৈশব, শিক্ষা, পরিবার এবং কর্মজীবন

মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য দেবের ভারত ভ্রমণ (Mahaprabhu  Chaitanya Dev’s India Tour)

chaitanya deb

সুত্রঃ- 1 . bp . blogspot . com

সন্ন্যাসী হওয়ার পরে তিনি ভারতবর্ষে ভ্রমণ করেছিলেন এবং বহু জায়গায় গিয়ে শ্রী কৃষ্ণের নাম ছড়িয়েছিলেন। ১৫১৫ সালে মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য শ্রীকৃষ্ণের জন্মস্থান বৃন্দাবন পরিদর্শন করেছিলেন। চৈতন্যের যাত্রার মূল উদ্দেশ্য ছিল বৃন্দাবনে শ্রীকৃষ্ণের সাথে জড়িত গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলি দেখা।

কথিত আছে যে চৈতন্য সাতটি মন্দির সহ সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ স্থান চিহ্নিত করতে সফল হয়েছিল, যা এখনও বৈষ্ণবদের দ্বারা দেখা যায়। বছরের পর বছর ভ্রমণ করার পরে চৈতন্য পুরীতে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। যেখানে তিনি তার জীবনের শেষ ২৪ বছর ধরে ছিলেন।

চৈতন্য সমগ্র ভারতবর্ষে কৃষ্ণ সংকীর্তন, ঈশ্বরের পবিত্র নামগুলি সম্মিলিত মন্ত্রকে জনপ্রিয় করেছিলেন। ভক্তি আন্দোলনের অন্যতম প্রধান ব্যক্তি, তিনি গৌড়ীয় বৈষ্ণব ধর্ম প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ভগবত গীতা এবং ভাগবত পুরাণের দর্শনশাস্ত্রে এর ভিত্তি সহ একটি ধর্মীয় আন্দোলন। আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দু হ’ল রাধা ও কৃষ্ণের ভক্তি পূজা।

আধ্যাত্মিকতাঃ

চৈতন্য মহাপ্রভু গৌড়ীয় সম্প্রদায় প্রতিষ্ঠা করেছিল। তাঁর ভক্তরা তাকে ভগবান কৃষ্ণ নামে বিবেচনা করতেন। তিনি তাঁর ভক্তদের শেখাতেন কীভাবে ঈশ্বরের প্রতি ভক্তি ও শ্রদ্ধা করতে হয়। তিনি হরে কৃষ্ণ ও হরে রামের মন্ত্র পাঠের জন্য বিখ্যাত। চৈতন্য মহাপ্রভু গৌরাঙ্গ এবং গৌড় নামেও পরিচিত।

আঠারো শতকের গোড়ার দিকে, কালাচাঁদ বিদ্যালঙ্কর তাঁর শিক্ষাগুলি বাংলায় জনপ্রিয় করেছিলেন এবং আধুনিক যুগেও বহু লোক তাঁকে কৃষ্ণের অবতার হিসাবে শ্রদ্ধা করে।

আরও পড়ুনঃ মাদার টেরেসা শৈশব, প্রাথমিক এবং কর্মজীবন

মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য দেবের ব্যক্তিগত জীবন (Mahaprabhu  Chaitanya Dev’s Personal Life)

১৫ বছর বয়সে মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য দেব নদিয়ার বল্লভচার্যের কন্যা লক্ষ্মীদেবী সাথে বিবাহ করেন। তবে তিনি যখন সন্ন্যাসী হয়ে ওঠেন তার কয়েকবছর পর তিনি পারিবারিক জীবন ত্যাগ করেন।

আরও পড়ুনঃ রানি রাশমণি দাশীর শৈশব এবং কর্মজীবন

মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য দেবের মৃত্যু জীবন (Mahaprabhu  Chaitanya Dev’s

sree chaitanyaa

সুত্রঃ- gumlet . assettype . com

একটি রহস্যবাদী তত্ত্ব বলে যে চৈতন্য মহাপ্রভু যাদুবিদ্যার সাথে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিলেন এবং কিছু লোক বলেছিলেন যে ওড়িশার পুরীর তোতা গোপীনাথ মন্দিরে তাঁর মৃত্যু হয়েছিল।  ঐতিহাসিকরা বলেছিলেন যে চৈতন্য মহাপ্রভু মৃগী রোগে ভুগছিলেন বলে প্রমাণ রয়েছে। এছাড়াও তারা বলেছিলেন চৈতন্য মহাপ্রভু মৃগীরোগে আক্রান্ত হয়ে ভোগ করেছিলেন এবং মৃগী রোগে মারা গিয়েছিলেন ১৫৩৪ সালে ১৪ ই জুন। তবে তার মৃত্যুর আসল কারন জানা যায়নি।

আরও পড়ুনঃ  কাজী নজরুল ইসলাম শৈশব, শিক্ষা, কর্ম, বৈবাহিক জীবন

সচরাচর জিজ্ঞাস্য প্রশ্ন উত্তরঃ

প্রঃ মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য কবে জন্মগ্রহণ করে?

উঃ মহাপ্রভু শ্রী চৈতন্য ১৪৮৬ সালে ১৮ ই ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করে।

প্রঃ  শ্রী চৈতন্য কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?

উঃ শ্রী চৈতন্য নদিয়া অন্তর্গত শ্রীধাম নবদ্বীপে জন্মগ্রহণ করেন।

প্রঃ শ্রী চৈতন্যের পিতার নাম কি?

উঃ শ্রী চৈতন্য পিতার নাম শ্রীজগন্নাথ মিশ্র।

প্রঃ শ্রী চৈতন্যের মাতার নাম কি?

উঃ শ্রী চৈতন্য মাতার নাম শ্রীমতী শচীদেবী।

প্রঃ শ্রী চৈতন্য কবে বিয়ে করে?

উঃ শ্রী চৈতন্য ১৫ বছর বয়সে বিয়ে করেন।

প্রঃ শ্রী চৈতন্যের কীভাবে মারা যায়?

উঃ তথ্য সূত্রে জানা যায় শ্রী চৈতন্য মৃগী রোগে মারা যায়। তবে তার মৃত্যুর সঠিক কারন জানা যায়নি।

প্রঃ শ্রী চৈতন্য কবে মারা যান?

উঃ ১৫৩৪ সালে ১৪ ই জুন মারা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here