ইক্যুইটি ক্যাপিটাল: ইক্যুইটি ক্যাপিটালের সুবিধা এবং অসুবিধা

Equity share

Equity share

সূত্রঃ- cdn . differencebetween . net

ইক্যুইটি ক্যাপিটাল প্রতিষ্ঠানের মূলধন যে অংশটি রেফারেন্স করে, যার মধ্যে কোম্পানি মালিকানাধীন শেয়ারের অংশ পরিবর্তিত হয়। এই শেয়ারগুলি বলা হয় ইক্যুইটি শেয়ার। ইক্যুইটি শেয়ারগুলি সেই ধরণের শেয়ারের, যাদের হোল্ডার কোম্পানিটির প্রকৃত মালিক। কোম্পানির সভায় ইক্যুইটি শেয়ারহোল্ডারদের ভোট দেওয়ার অধিকার আছে। কোম্পানির লভ্যাংশ প্রথমে প্রেফারেন্স শেয়ারহোল্ডাররা পায়, পরে তারা ইক্যুইটি শেয়ারহোল্ডারদের প্রদান করে।

আরও পড়ুনঃ ইক্যুইটি শেয়ার কিঃ ইক্যুইটি শেয়ারের সুবিধা ও অসুবিধা

ইক্যুইটি ক্যাপিটাল বলতে কি বোঝায় ?

equity 1

সূত্রঃ- img-aws.ehowcdn . com

ইক্যুইটি শেয়ারহোল্ডার কোম্পানির মালিক, যারা সংস্থার পরিচলনা নিয়ন্ত্রণ করে এবং মালিকনার ঝুঁকি বহন করে। যদিও, তাদের মূলধনের উপর দায়ের পরিমাণ সীমাবদ্ধ। ইক্যুইটি ক্যাপিটালকে শেয়ার ক্যাপিটাল বা ইকুইটি ফাইন্যান্সিংও বলা হয়ে থাকে।

আরও পড়ুনঃ ইক্যুইটি ফান্ড বলতে কি বোঝায় এবং কত প্রকার

ইক্যুইটি ক্যাপিটাল সুবিধা: 

  • নির্দিষ্ট লভ্যাংশ প্রদান করতে হয় নাঃ

সূত্রঃ- static.seekingalpha . com

কোন নির্দিষ্ট লভ্যাংশ প্রদানের জন্য ইক্যুইটি শেয়ারগুলি কোন দায়বদ্ধ থাকে না। কোম্পানি যদি মুনফা অর্জন করে থাকে তাহলে ইক্যুইটি শেয়ারহোল্ডাররা তার লভ্যাংশ পাওয়ার অধিকারি হয়ে থাকে।

  • ভোট দেওয়ার অধিকারঃ

শেয়ারহোল্ডাররাই কমানির প্রকৃত মালিক। তাই তারা সমস্ত রকম ভোট দেওয়ার জন্য যোগ্য। এই ধরনের কর্তৃপক্ষ কেবল ইকুইটি শেয়ারহোল্ডারদের কাছে অ্যাক্সেসযোগ্য।

আরও পড়ুনঃ জেনে রাখুন ইক্যুইটি শেয়ার কত প্রকার এবং কি কি

  • কোম্পানি সম্পদের উপর ইস্যু করতে পারেঃ

সূত্রঃ- miro.medium . com

ইক্যুইটি শেয়ারগুলি কোন চার্জ ছাড়াই কোম্পানির সম্পদের উপর ইস্যু করতে পারে।

  • ইক্যুইটি শেয়ার পরিশোধঃ

ইক্যুইটি শেয়ার মূলধনের স্থায়ী উৎস। তাই কোম্পানিকে পরিশোধের সময় ইক্যুইটি শেয়ার ফেরত দিতে হবে।

  • অর্থের স্থায়ী উৎসঃ 

Equity 4

সূত্রঃ- d3381fd3mt5iv0.cloudfront . net

ইক্যুইটি ক্যাপিটাল মূলধনের স্থায়ী উৎস যা দীর্ঘমেয়াদী স্থায়ী হয়। এটি ব্যবসার উদ্বেগে জন্য দীর্ঘমেয়াদী বা নির্দিষ্ট মূলধনের প্রয়োজনে ব্যবহার করা যায়।  

আরও পড়ুনঃ আপনার জানা উচিত কীভাবে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করতে হয়

  • লাভকারীঃ

যখনই মুনাফা অর্জন করা হয়, তখন ইক্যুইটি শেয়ারহোল্ডাররা লভ্যাংশ বৃদ্ধি এবং শেয়ার মূল্যের আদায় হিসাবে প্রকৃত লাভকারী হয়ে ওঠে।

  • কম মূলধন খরচঃ

কোম্পানির মূল্যের পার্থক্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ হল মূলধনের খরচ। এক্ষেত্রে কোম্পানি যদি তাদের মূলধন বাড়াতে ইচ্ছুক থাকে তাহলে তাদের আরও মূলধন ব্যবহার করতে হবে। কারণ ফিনান্সের অন্যান্য উৎস তুলনায় এই মূলধনের কম খরচ রয়েছে।

ইক্যুইটি ক্যাপিটাল অসুবিধাঃ

  • ঝুঁকিঃ

risk

সূত্রঃ- blogs.gartner . com

বিনিয়োগকারীরা সাধারণত তার লাভের অ্যাক্সেসের বিনিময়ে বা তাদের মালিকানার মূল্য বৃদ্ধির মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের সুযোগের বিনিময়ে ব্যবসায়ের ঝুঁকি নিয়ে থাকে।

আরও পড়ুনঃ বাংলার আর্থিক অবস্থাঃ পশ্চিম বাংলার আর্থিক অবস্থা

  • মালিকানার ঝুঁকিঃ

মালিকানার ঝুঁকিগুলি ভাগ করে নেওয়ার পাল্টা প্রভাবটি হ’ল আপনি লাভের কিছু সুযোগও ছেড়ে দেন। প্রতিটি বিনিয়োগকারী এবং বিনিয়োগের নতুন রাউন্ডের অর্থ আপনি আরও বেশি মালিকানা ছেড়ে চলে যান। অংশীদারিত্ব বা কর্পোরেশনে আপনার বর্তমান এবং ভবিষ্যতের উপার্জনের অংশটি আপনার নিজের শেয়ারের সংখ্যা বা ব্যবসায়ের শতাংশের উপর নির্ভরশীল। কিছু ক্ষেত্রে, লাভের কিছুটা ছেড়ে দেওয়ার ব্যয় আপনার সঞ্চয়ের সুদের উপর সাশ্রয় করা অর্থের চেয়েও বেশি হতে পারে।

  • বিনিয়োগকারীদের কোনও নিয়মিত অর্থ প্রদান নেইঃ

equity capitalসূত্রঃ-  www.irishtimes . com

ইক্যুইটি ক্যাপিটাল বনাম ফিনান্সিংয়ের একটি উল্লেখযোগ্য সুবিধা হ’ল বিনিয়োগকারীদের নিয়মিত অর্থ প্রদানের আপনার কোনও বাধ্যবাধকতা নেই। এটি আপনাকে ব্যবসায়ের পরিচালনা ও বিকাশ করতে আপনার আগত নগদ প্রবাহের আরও বেশি ব্যবহার করতে দেয়। আপনি যখন বড় হন এবং অর্থোপার্জন শুরু করার আগে আপনাকে মাসিক অর্থ প্রদানের বিষয়ে চিন্তা করতে হবে না।

আরও পড়ুনঃ ৫ টি জিনিস যা ভারতের অর্থনৈতিক অবস্থা সম্পর্কে ধারণা দেবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here