বন্ড কাকে বলে এবং এটি কীভাবে কাজ করে

বন্ড কাকে বলে

বন্ড হল এক ধরণের চুক্তি বা ঋণপত্র। বন্ড কাকে বলে সাধারণ অর্থে, যে চুক্তিপত্র বা ঋণপত্র মাধ্যমে কোন কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ঋণ মূলধন সংস্থান করে, সেই চুক্তিপত্র বা দলিলকেই বন্ড বলে। বন্ড হল বিনিয়োগকারীদের হাতিয়ার। নিম্নে রইল বন্ড কাকে বলে এবং তা কীভাবে কাজ করে-

বন্ড কাকে বলে

বন্ড কাকে বলে ?

বন্ড হল ইস্যুকারী এবং ধারকের মধ্যে একটি লিখিত চুক্তি পত্র। যেখানে ইস্যুকারী ধারককে বন্ডের লিখিত চুক্তি অনুযায়ী সুদের নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ প্রদান করেন।

বন্ড সাধারণ বড় বড় প্রতিষ্ঠান বা সংস্থায় তৈরি করা হয়। জাতীয় সরকার, কর্পোরেশন এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত। একটি পৃথক বন্ড হল বৃহদায়তন ঋণের অংশ। কারণ এই সংস্থাগুলি বৃদ্ধির জন্য একাধিক প্রতিষ্ঠানের থেকে অর্থ ধার করে। ফিক্সড ইনকামে বিনিয়োগ একটি বন্ডের নমুনা। অন্যান্য বিনিয়োগের নমুনা হল নগদ, ডেরিভেটিভস, স্টক এবং পণ্য।

বিভিন্ন ধরণের বন্ড রয়েছে। যেমন – কর্পোরেট বন্ড, পরিবর্তনীয় বন্ড , মেয়াদ বন্ড, সমন্বয় বন্ড, ট্রেজারি বন্ড, জাঙ্ক বন্ড। ট্রেজারি বন্ড মুদ্রাস্ফীতি বিরুদ্ধে রক্ষা করে। মিউনিসিপাল বন্ড একটু ঝুঁকিপূর্ণ। কর্পোরেট বন্ডগুলিতে মিউনিসিপাল বন্ড থেকে আরও ঝুঁকি বেশি। কিন্তু জাঙ্ক বন্ডগুলিকে সর্বোচ্চ ঝুঁকি বন্ড বলা হয়।

সুপারিশ নিবন্ধন :- 

বন্ড কীভাবে কাজ করে

বন্ড কীভাবে কাজ করে ?

অধিকাংশমানুষ ঋণ ছাড়া গাড়ী, বাড়ি কিনতে সক্ষম হয় না। বেশীরভাগ মানুষ তাদের ব্যবসার জন্য অর্থ ধার করে থাকে। নতুন ব্যবসা শুরু করতে বা বৃদ্ধি করতে ব্যবসাগুলি প্রায়ই অপারেশন তহবিলের জন্য ঋণের প্রয়োজন হয়। অন্যদিকে কর্পোরেশনগুলি তাদের তহবিল বাড়ানোর জন্য একটি কার্যকারী উপায় হল বন্ড ইস্যু।
বন্ড হল একটি ঋণ। যেমন- যখন আপনি কোন বন্ড ক্রয় করেন, তখন আপনাকে বণ্ডটি ইস্যু করার জন্য সংস্থাকে অর্থ প্রদান করতে হয়। আপনাকে ঋন পরিশোধের জন্য কোন কোম্পানি আপনাকে সুদের পেমেন্ট দিতে প্রতিশ্রুতি দেয়। আপনাকে কতবার সুদ প্রদেয় করতে হবে তা বন্ডের শর্তাবলীর উপর নির্ভর করে। সুদের হারকে কুপনও বলা হয়ে থাকে। যা সাধারণত দীর্ঘমেয়াদী বন্ডের সঙ্গে উচ্চতর।

সুদ প্রদেয় সময় বার্ষিক, ত্রৈমাসিক বা এমনকি মাসিকও হতে পারে। বণ্ডটি যখন মেয়াদপূর্তির তারিখে পৌঁছায়, তখন ইস্যুকারী ঋণের আসল পরিমাণ অর্থ প্রদান করে।

বন্ড একটি স্টকের মতোই বিনিয়োগের একটি মাধ্যম। শুধুমাত্র পার্থক্য হল স্টক ঋণ নয়। স্টক একটি কোম্পানির আংশিক মালিকনা এবং মুনফার প্রতিনিধিত্ব করে। যার জন্য স্টক ঝুঁকিপূর্ণ। এটি কোম্পানির সাফল্য প্রতিফলিত করে। অন্যদিকে বন্ডগুলি একটি নির্দিষ্ট সুদের হাড় থাকে। কিন্তু কিছু বন্ডের সুদের হাড় অস্থায়ী। এই বন্ডের সুদের হার বাজারের অবস্থার উপর নির্ভর করে।

স্টকের মতোই বন্ড ব্যবসা করতে পারে। যখন কেউ মূখ্য দামের থেকে কম দামে বন্ড বিক্রি করে থাকে, তখন বলা যেতে পারে ছাড়ে বিক্রয় করা হয়। আবার মূখ্য দামের থেকে যদি বেশি দামে বন্ড বিক্রি করা হয়, তখন এটা প্রিমিয়ামে বিক্রি করা হয়।

বন্ডের সুবিধাঃ

বন্ডের সুবিধাঃ

1. বন্ডে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নিরাপদ সুবিধা আছে। কারণ নির্দিষ্ট মেয়াদপূর্তির পর আপনি বিনিয়োগের টাকা ফেরত পাবেন। তাছাড়াও বন্ডে লিখিত সুদের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

2. অন্যান্য সিকিউরিটিজের উপর বন্ডের একটি সুবিধা আছে। স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদি বন্ডগুলি ইক্যুইটির চেয়ে কম।

3. বেশীরভাগ দেশের আইন অনুসারে, যদি কোন সংস্থা দেউলিয়া হয়ে যায়, তার বন্ড হোল্ডাররদের কিছু অর্থ ফেরত পাবে।

বিনিয়োগকারীদের বিভিন্ন চাহিদাগুলি কর্মক্ষম করতে বিভিন্ন ধরণের বন্ড রয়েছে। যেমন- নির্দিষ্ট হারের বন্ড, অস্থায়ী হারে বন্ড, শূন্য কূপণ বন্ড, রূপান্তরযোগ্য বন্ড, মুদ্রাস্ফীতিযুক্ত বন্ড।

বন্ডের অসুবিধাঃ

বন্ডের অসুবিধাঃ

1. বন্ডগুলি নানারকম ঝুঁকির অধীনে। যেমন- প্রিপেইমমেন্ট ঝুঁকি, ক্রেডিট ঝুঁকি, পূর্ণবিনিয়োগের ঝুঁকি, তরলতা ঝুঁকি, ইভেন্ট ঝুঁকি, বিনিময় হার ঝুঁকি, উদ্বায়ীতা ঝুঁকি, মুদ্রাস্ফীতি ঝুঁকি, সার্বভৌম ঝুঁকি, এবং উৎপাদন বক্ররেখা ঝুঁকি।

2. মূল্য পরিবর্তনের জন্য বন্ডগুলি ধরে রাখার জন্য মিউচুয়াল ফান্ডগুলিকে প্রভাবিত করে। যদি ট্রেডিং পোর্টফোলিওতে বন্ডের মূল্য পতিত হয় তবে পোর্টফোলিও মূল্যও পড়ে। এটি ব্যাংক, বীমা সংস্থা, পেনশন ফান্ডগুলির পেশাদারী বিনিয়োগকারীর পক্ষে ক্ষতিকর হতে পারে।

3. অনেকের ক্ষেত্রে বন্ডের মূল্য নির্ধারণ করা বিভ্রান্তিকর হতে পারে। কারণ বন্ডের উৎপাদন বন্ডের মানের বিপরীতভাবে চলে।

সারকথাঃ

বন্ড কাকে বলে নিবন্ধটিতে বোঝা গেল, বন্ড শেয়ার বাজারকে প্রতিফলিত করে। সুদের হাড় যখন বৃদ্ধি পায়, তখন শেয়ার বাজার কম আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here