ছোট চুলের যত্নঃ দেখে নিন কীভাবে নেবেন ছোট চুলের যত্ন

কীভাবে নেবেন ছোট চুলের যত্ন

অনেক মেয়েরা চুল ছোট রাখতে খুব পছন্দ করে। কারণ তাদের ধারণা ছোট চুল বেশি ফ্যাশনেবল। আবার অনেকে লম্বা চুল হ্যান্ডেল করতে অসুবিধার জন্য চুল ছোট করে কেটে ফেলেন। এটা সত্যিই যে ছোট চুলে মেয়েদের স্টাইলিশ লাগে আবার লম্বা চুলের থেকে ছোট চুলের যত্ন নিতে কম সময় লাগে। কিন্তু ছোট চুল ভালো রাখতে দরকার যত্ন। আমাদের আজকের নিবন্ধনটি সেইসব নারীদের জন্য যারা ছোট চুল রাখতে ভালোবাসেন। কারণ আজ এই পেজে থাকবে ছোট চুলের কীভাবে যত্ন নেওয়া যায়। আসুন তাহলে দেখেই নিই কোন পদ্ধতি অনুকরণে ছোট চুল ভালো থাকবে।

কীভাবে নেবেন ছোট চুলের যত্ন

কীভাবে নেবেন ছোট চুলের যত্ন ?

1. নিয়মিত ছোট চুল আঁচড়ানঃ

চুল যখন ছোট, আঁচড়াতে তো কোন অসুবিধা নেই। নিয়মিত সকালে বিছানা থেকে উঠে, স্নান করার আগে, স্নান করার পরে এবং ঘুমোতে যাওয়ার আগে চুল ভালো করে আঁচড়ান। তাতে ছোট চুল ভালো থাকে। সম্ভব হলে হেয়ার স্প্রে ব্যবহার করবেন।

2. নিয়মিত চুল ওয়াশ করুনঃ

নিয়মিত চুল ওয়াশ করুনঃ

ছোট চুলের যত্ন এ হেয়ার এক্সপার্টরা বলেন, লম্বা চুলের চেয়ে ছোট চুল রোজ ধোয়া উচিত। কারণ ছোট চুল খুব তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়। নিয়মিত চুল ওয়াশ করলে বাইরের ধুলোবালি স্ক্যাল্পে জমতে পারে না। যার ফলে চুল সুস্বাস্থ্য থাকে এবং প্রাণবন্ত থাকে।

3. কন্ডিশনার এবং শ্যাম্পু অল্প পরিমাণ ব্যবহার করুনঃ

চুল পরিষ্কার করার সময় অল্প পরিমাণ শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। কারণ ছোট চুলে অতিরিক্ত পরিমাণ শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনারের প্রয়োজন হয় না। অতিরিক্ত পরিমাণ শ্যাম্পু আমাদের চুল শুষ্ক করে দিতে পারে।

4. নিয়মিত চুলে তেল লাগানঃ

নিয়মিত চুলে তেল লাগানোর অভ্যাস করুন। তেল চুলের পুষ্টি। আমাদের দেহের কার্যক্ষমতার বৃদ্ধির জন্য যেমন প্রতিদিন খাবারের প্রয়োজন ঠিক তেমনি চুলকে ভালো রাখতে হলে চাই চুলের পুষ্টি। আর সেটা সম্ভব নারকেল তেলে। অনেকেই চুল চিটচিটে হয়ে যাওয়ার ভয়ে তেল লাগানোর থেকে দূরে থাকে। কিন্তু ছোট চুল থাকার একটা সুবিধা নিয়মিত তেল ব্যবহার করে শ্যাম্পু করতে সময় লাগবে না। তাই ছোট চুলের যত্ন করার জন্য আজই নারকেল তেল ব্যবহার করুন।

5. চুল ট্রিম করানঃ

ছোট চুল ভালো রাখতে প্রতি মাসে একবার ট্রিম করান। এতে চুলের আগা ফাটে কম এবং চুল তাড়াতাড়ি বৃদ্ধিও পায়।

6. হিট প্রোডাক্ট এড়িয়ে চলুনঃ

হিট প্রোডাক্ট এড়িয়ে চলুনঃ

প্রাচীনযুগের নারীদের চুলের সমস্যা ছিল না। কিন্তু বর্তমানে নারীদের চুল নিয়ে সমস্যার শেষ নেই। এই সমস্যার একমাত্র কারণ মানুষ নিজেই। নিজেই একটু সতর্ক হলে এই সমস্যাগুলি থেকে মুক্তি পাওয়া যায় তা ছোট চুল হোক বা বড়। আমারা নিত্যনতুন স্টাইলের জন্য ইলেক্ট্রিক্যাল হেয়ার প্রোডাক্টে মেতে থাকি। কিন্তু এটা ভুলে যাই এই হিট প্রোডাক্টগুলি চুলের ক্ষতি করে। হেয়ার ড্রায়ার, হেয়ার স্ট্রেইটনার, হেয়ার স্টাইল কিট চুলের মারাত্মক সর্বনাশ ডেকে আনে। তাই চুল ভালো রাখতে হিট প্রোডাক্ট এড়িয়ে চলুন।

7. স্ক্যাল্পের যত্নঃ

ত্বকের যেমন যত্ন নেওয়া দরকার ঠিক তেমনি স্ক্যাল্পেও যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। ছোট চুলে স্ক্যাল্পের যত্ন বেশি করে নেওয়া প্রয়োজন। কারণ ছোট চুলে খুব সহজেই ধুলোবালি আটকে যেতে পারে। তাই চুলের যত্নে, স্ক্যাল্প পরিষ্কার রাখা মাস্ট। স্ক্যাল্প পরিষ্কার রাখার জন্য কোনও কেমিক্যাল প্রোডাক্ট ব্যবহার কথা ভুলে পরিবর্তে বাড়িতে তৈরি হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করা শ্রেষ্ঠ মাধ্যম।

8. সূর্যের হাত থেকে ছোট চুল রক্ষাঃ

সূর্যের হাত থেকে ছোট চুল রক্ষাঃ

রোদ, ধুলোবালি এবং সূর্যের অতিরিক্ত ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে আমদের চুলকে রক্ষা করা অত্যন্ত জরুরী। কারণ এতে চুল নষ্ট হয়ে যাওয়ার প্রবণতা থাকে। তাই যাদের চুল ছোট তারা টুপি বা ওড়না দিয়ে চুল ঢেকে রাখতে পারেন।

9. সঠিক পদ্ধতিতে কন্ডিশন লাগানঃ

সঠিক পদ্ধতিতে কন্ডিশন করা খুব প্রয়োজন। কন্ডিশন চুলে ময়শ্চারাইজ করে চুলের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনে। খেয়াল রাখবেন চুলের স্ক্যাল্পে কোন ভাবেই যেন কন্ডিশনার না লাগে। এতে চুল অতিরিক্ত অয়েলি হতে পারে। স্ক্যাল্পের থেকে ২ ইঞ্চি দূর থেকে কন্ডিশনার লাগান।

10. শক্ত করে চুল বাঁধা বন্ধ করুন এবং ঘুমানোর আগে চুল পেঁচিয়ে নিনঃ

অনেকেই খুব শক্ত করে চুল বাঁধে। এতে চুল ভেঙ্গে যাওয়ার প্রবণতা থাকে এবং চুল পড়ার প্রবণতা বেড়ে যায়। তাই চুল বাঁধার সময় হালকাভাবে বাঁধুন এবং ছোট চুলের যত্ন নিতে হলে নিয়মিত ঘুমানোর আগে চুল পেঁচিয়ে নিন।

সারকথাঃ
ভিতরের স্বাস্থ্য চুলের উপর প্রতিফলিত হয়। স্বাস্থ্য ভালো থাকলে ভালো চুল পেতে সময় লাগে না। চুল ভালো রাখতে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া প্রয়োজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here