বেলগ্রেডের বিক্ষোভকারীদের ওপর কারফিউ জারিতে উত্তাল সার্বিয়ার সংসদ

বেলগ্রেডের বিক্ষোভকারী 1

বেলগ্রেডের বিক্ষোভকারী 2

সার্বিয়ার রাজধানী বেলগ্রেডে জাতীয় পরিষদের বাইরে যে দাঙ্গা হয়েছিল তাতে কয়েক ডজন পুলিশ ও বিক্ষোভকারী আহত হয়েছে।মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শান্তিপূর্ণ পদ্ধতিতে শুরু হয়েছিল বিক্ষোভ । দেশজুড়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণের বৃদ্ধির কারণে সপ্তাহান্তে কারফিউ পুনরায় চাপিয়ে দেওয়ার পদক্ষেপে ক্ষুব্ধ হয়েছিল শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবারের লোকজনরা । পুলিশকে হস্তক্ষেপ করার অনুরোধ করে বিক্ষোভকারীরা সংসদে প্রবেশ করেন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সংঘর্ষ শুরু হয় এবং বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাস ছোড়ে পুলিশ ।অস্থিরতা সৃষ্টি এবং সংসদ ভবনে বিশৃঙ্খলা করার অপরাধে দক্ষিণপন্থী জাতীয়তাবাদীদের দোষ দেওয়া হয়েছে।সার্বিয়ান মিডিয়ার তরফে জানানো হয়েছে, যে তারা এমন একটি এমপি অন্তর্ভুক্ত করেছে যিনি অ্যান্টি-ভ্যাকসিন এবং 5G বিরোধী ষড়যন্ত্রের তত্ত্বগুলিকে আরো উস্কে দিয়েছেন ।

আরও পড়ুন : নতুন করে শটডাউন শুরু অস্ট্রেলিয়ায় মেলবোর্নে

বুধবার সার্বীয় রাষ্ট্রপতি আলেকজান্ডার ভুসিক দীর্ঘ সময় ধরে চলে আসা সবচেয়ে নিষ্ঠুর রাজনৈতিক সহিংসতা বলে নিন্দা করেছেন এবং বিক্ষোভ সমাপ্ত করার জন্য আবেদন জানিয়েছেন ।

বুধবার সন্ধ্যায় পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে পুণরায় সংঘর্ষ বাঁধে । বিক্ষোভকারীদের তরফ থেকে বোতল, পাথর ও অগ্নিসংযোগ নিক্ষেপ করায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে টিয়ার গ্যাসের গুলি চালানো হয়।

কেন এই বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল?

সার্বিয়ার ইতিহাসে ভয়ঙ্করতম দিন ছিল ৭ জুন । করোনা মহামারীতে সার্বিয়া এখন পর্যন্ত এর সবচেয়ে মারাত্মক দিন দেখেছিল । রাষ্ট্রপতি ভুসিক ঘোষণা করেছিলেন যে আরও ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ১২০ জন ভেন্টিলেটরে রয়েছেন । ৪ হাজার সার্বিয়াবাসী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে ।

আরও পড়ুন : জনসংখ্যার বিচারে ভারতে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার সবচেয়ে কম

বেলগ্রেডের পরিস্থিতি সবচেয়ে উদ্বেগজনক ছিল । তিনি বলেছিলেন, বুধবার থেকে পাঁচজনের বেশি লোকের জমায়েতে নিষেধাজ্ঞার আগে স্থানীয় সময় শুক্রবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টে থেকে সোমবার সকাল ৫.০০ অবধি কারফিউ প্রয়োগ করা হয়েছিল ।

তবে বুধবার সার্বিয়ার প্রধান মহামারী বিশেষজ্ঞ প্র্রেড্রাগ কন পরে বুধবার পরিস্থিতি পুনর্বিবেচনার পরে বলেছিলেন যে বেলগ্রেডের উন্নতি হচ্ছে এবং শহরে একটি লকডাউনের প্রয়োজন ছিল না ।বুধবার আরও একটি টিভি ভাষণে রাষ্ট্রপতি ভুসিক বলেছিলেন, সম্ভবত রাজধানীতে কারফিউ জারি করা হবে না, তবে কঠোর ব্যবস্থা ঘোষণা করা হবে ।

আরও পড়ুন : এবার আমেরিকাতে ব্যান হতে চলেছে টিকটক সহ একাধিক চিনা অ্যাপ

বৃহস্পতিবার কোভিড -১৯ –এর বিশেষজ্ঞদলটি এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।বিরোধীদের অভিযোগ মে মাসে খুব শীঘ্রই লকডাউন জোর করেই তুলেছিলেন প্রেসিডেন্ট । সমালোচকরাও সরকারের উদ্দেশ্যে করোনা মহামারির প্রাথমিকস্তরে মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা না দেওয়ার অভিযোগ তুলেছিল । সার্বীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ৩৪১ জন মারা গেছে এবং ১৭হাজার ৭৬ টি মামলা হয়েছে । প্রতিদিন গড়ে ৩০০ টি নতুন সংক্রমণ দেখা দিচ্ছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here